× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ২২ আগস্ট ২০১৯, বৃহস্পতিবার

বঙ্গবন্ধুর ছবি আঁকতে রংপুর থেকে পায়ে হেঁটে টুঙ্গিপাড়ায় রিকশাচালক

অনলাইন

গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি | ২০ জুলাই ২০১৯, শনিবার, ১২:৪৬

বঙ্গবন্ধুর ছবি আঁকার জন্য পায়ে হেঁটে রংপুর থেকে গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় গেলেন রিকশাচালক রফিকুল ইসলাম রফিক। জেলায় জেলায় বঙ্গবন্ধুর ছবি অংকন ও তার কবর জিয়ারতের সপ্ন বাস্তবায়নেই রফিকুলের এই পদযাত্রা। গত ১৩ জুন রংপুর জেলা প্রশাসকের অনুমতি নিয়ে টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর ছবি আঁকতে এবং কবর জিয়ারত করার উদ্দেশ্যে পাঁয়ে হেটে রওয়ানা করেন রফিকুল। ৩৫ দিন পর গত ১৮ জুলাই তিনি গোপালগঞ্জে পৌঁছে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের বরান্দায় বঙ্গবন্ধুর একটি ছবি অংকন করেন। এরপর ২০ জুলাই টুঙ্গিপাড়ায় সমাধিসৌধে পৌঁছে বঙ্গবন্ধুর ছবি অংকন করেন। এর আগে রফিকুল ১১ জেলার ২৬টি স্থানে বঙ্গবন্ধুর ছবি অংকনের পর একটি করে কৃষ্ণচুড়া গাছ রোপন করেন।

 এ বিষয়ে রফিকুল ইসলাম বলেন, ৭১ সালে বঙ্গবন্ধুর ভাষন শোনার পর থেকেই আমি জাতির পিতার ভক্ত। এরপর থেকেই বিভিন্ন জায়গায় বঙ্গবন্ধুর ছবি আঁকতে থাকি। আগামী ৪ আগষ্ট গণভবনে বঙ্গবন্ধুর একটি ছবি অংকন ও একটি গাছ রোপনের পর আমার পদযাত্রা শেষ করব।

পেশায় রিকশাচালক রফিকুল ইসলামের বাড়ী রংপুর শহরের তাজহাটা বাবুপাড়া এলাকায়।
স্ত্রী রাশিদা বেগম দুই মেয়ে ও ৩ ছেলেসহ বাবাকে নিয়ে এক বাড়িতেই বসবাস করেন তিনি। ছেলেদের হাতে সংসারের দায়িত্ব বুঝিয়ে দিয়ে বঙ্গবন্ধুর প্রতি ভালোবাসা নিয়েই ঘর থেকে বের হয়েছেন ৫৯ বছর বয়সী এই মানুষটি। রিকশা চালানোর পাশাপাশি প্রেস শ্রমিকের কাজও করেন তিনি। সেই অভিজ্ঞতা থেকেই সরকারি-বেসরকারি গুরুত্বপূর্ণ ভবনের দেয়ালে দেয়ালে বঙ্গবন্ধুর ছবি অংকন করেছেন রফিকুল।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
Md SiddiqurRahman
২০ জুলাই ২০১৯, শনিবার, ১:৫৭

তাকে যথাযথ সন্মান প্রদর্শন এর জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সদয় দৃষ্টি আকর্ষণ করছি। এটা তার একটি ব্যতিক্রম উদ্যোগ।

অন্যান্য খবর