× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ২৬ আগস্ট ২০১৯, সোমবার

‘অধিনায়ক’ তামিমের দুই চ্যালেঞ্জ

খেলা

স্পোর্টস রিপোর্টার | ২১ জুলাই ২০১৯, রবিবার, ৯:৩৭

দলের সিনিয়র ক্রিকেটার হিসেবে ওপেনার তামিম ইকবালের কাছে অনেক প্রতাশ্যা ছিল। কিন্তু বিশ্বকাপে প্রত্যাশা পূরণ করতে পারেননি তামিম। শ্রীলঙ্কা সফরটা তাই তামিমের জন্য চ্যালেঞ্জিং। সঙ্গে নতুন চ্যালেঞ্জ হিসেবে যোগ হয়েছে অধিনায়কত্ব। গতকাল অর্ধেক স্কোয়াড নিয়ে শ্রীলঙ্কায় পাড়ি জমান এ বাঁহাতি ওপেনার। চট্টগ্রামে আফগানিস্তান ‘এ’ দলের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজ ও ভারতে মিনি রঞ্জিতে খেলার কারণে ৭ জন পরে যাবেন শ্রীলঙ্কায়। কাল তামিমের সঙ্গে গেছেন মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ, মেহেদী হাসান মিরাজ, মুশফিকুর রহীম, মোস্তাফিজুর রহমান, সৌম্য সরকার ও মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত।
শুক্রবার কয়েক ঘন্টার ব্যবধানে বাংলাদেশ দলের চিত্র পাল্টে যায়।
সংবাদ সম্মেলনের সময়ও মাশরাফি বিন মুর্তজা বলছিলেন তিনি আগের চেয়ে সুস্থ। কিন্তু অনুশীলন করতে গিয়ে হ্যামস্ট্রিং চোটে পড়েন মাশরাফি। ফলে তার আর শ্রীলঙ্কায় যাওয়া হচ্ছে না। বিসিবি অধিনায়ক ঘোষণা করে তামিমকে। একইদিন ইনজুরিতে পড়েন ইনফর্ম পেস অলরাউন্ডার মোহাম্মদ সাইফুদ্দিনও। তার জায়গায় দলে নেয়া হয় তাসকিন আহমেদকে। মাশরাফির স্থান পূরণ করেন অলরাউন্ডার ফরহাদ রেজা। আগেই জানা গেছে শ্রীলঙ্কায় অনুষ্ঠেয় এই সিরিজে খেলবেন না সাকিব আল হাসান ও লিটন দাস। তাদের অনুপস্থিতিতে সিরিজটা কঠিন হবে বলেই মনে করছেন তামিম। দেশ ছাড়ার আগে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে তামিম ইকবাল বলেন, ‘সিরিজটা আমাদের জন্য খুব গুরুত্বপূর্ণ। এই দলটার প্রমাণ করার অনেক কিছু আছে। চোটে পড়ায় আমাদের গুরুত্বপূর্ণ কয়েকজন ক্রিকেটার এই সিরিজে যাচ্ছে না। সিরিজটা আমাদের জন্য অনেক চ্যালেঞ্জিং হবে। শ্রীলঙ্কার হোম কন্ডিশনে সিরিজটা কঠিন হতে যাচ্ছে।’
গত এশিয়া কাপের সর্বশেষ দেখায় শ্রীলঙ্কাকে বড় ব্যবধানে হারিয়েছিল বাংলাদেশ। দলের অন্য খেলোয়াড়রা প্রত্যাশা অনুযায়ী খেললে বাংলাদেশের জন্য জয় পাওয়া কষ্টকর হবে না। আর লঙ্কান চ্যালেঞ্জ জেতার ব্যাপারে তামিম আশাবাদী। তিনি বলেন, ‘আগের সিরিজগুলোয় দেখেছি, আমরা ভালো করেছি ওদের সঙ্গে। আশা করি, এবারও চ্যালেঞ্জ উতরে যাবো।’
২০১৯ বিশ্বকাপ খুব একটা ভালো কাটেনি তামিমের। রাউন্ড রবিন লীগের সবগুলো ম্যাচ খেলে মাত্র একটি ফিফটির দেখা পান অভিজ্ঞ এই ব্যাটসম্যান। নটিংহ্যামে অলস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ৬২ রানের ইনিংসটাই তামিমের সর্বোচ্চ। এছাড়া ত্রিশের কোটা পার হতে পেরেছেন আর দু’বার। ভারতের বিপক্ষে বাঁচা-মরার ম্যাচে ২২ রান করে আউট হন তামিম। ৮ ম্যাচে ৫ বারই হয়েছেন বোল্ড। কাজেই শ্রীলঙ্কা সফরটা ব্যক্তিগতভাবে তার জন্যও একটা চ্যালেঞ্জ। তামিম কোনো চাপ নিচ্ছেন না। তিনি বলেন, ‘আমি এভাবে চিন্তা করছি না। কোথাও খারাপ করলে সেটা নিয়ে সারাক্ষণ ভাবলে খারাপই হবে। সব সময় সামনে তাকাতে হয়, ইতিবাচক ভাবতে হয়। আমিও তাই করছি। আমাকে ইতিবাচক থাকতে হবে।’
তামিম বলেন, ‘আমার কাছে মনে হয় সিরিজটা আমাদের জন্য অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ। আমাদের যে দল যাচ্ছে, এই দলের প্রমাণ করার অনেক কিছু আছে। ইনজুরি এবং অন্যান্য কারণে দলের অনেক অভিজ্ঞ ক্রিকেটাররা এই সিরিজে যাচ্ছে না। স্কোয়াডে যারা আছে তারা যদি দুই হাতে সুযোগটি লুফে নেয়, তাহলে সেটা বাংলাদেশ দলের পাশাপাশি তাদের জন্যও ভালো হবে।’

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
Motaleb Rahman
২১ জুলাই ২০১৯, রবিবার, ৯:৩৯

তামিম ইকবাল একজন বদরাগী খেলোয়াড় হিসাবে কুখ্যাত। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অধিনায়ক হিসাবে তিনি আম্পায়ার বা কোনো খেলোয়াড় এর সাথে অখেলোয়াড় সুলভ আচরণ করলে এর ভারী মূল্য দিতে হতে পারে বাংলাদেশ দল কে.

অন্যান্য খবর