× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ২৬ আগস্ট ২০১৯, সোমবার

তিন জেলার ৩৭৫০ কৃষককে আধুনিক চাষাবাদ প্রযুক্তি হস্তান্তর

অনলাইন

স্টাফ রিপোর্টার | ২২ জুলাই ২০১৯, সোমবার, ৩:৩৬

বর্ধিত মেয়াদে ভোলা, বরিশাল ও পটুয়াখালী জেলার আরও ৩৭৫০ জন কৃষককে আধুনিক চাষাবাদ প্রযুক্তি হস্তান্তর করা হয়েছে। পল্লী কর্ম-সহায়ক ফাউণ্ডেশন (পিকেএসএফ)-এর প্রোমোটিং এগ্রিকালচার কমার্সিয়াল এন্ড এন্টারপ্রাইজ-এর প্রকল্পের আওতায় এসব সহায়তা দেয়া হয়। একইসঙ্গে প্রকল্পভূক্ত সদস্যদের জলবায়ু পরিবর্তনের বিরূপ প্রতিক্রিয়া মোকাবেলায় লবণাক্ত জমিতে মুগডাল ও সূর্যমুখী চাষ এবং পরিবারে আয় বৃদ্ধি ও পুষ্টি ঘাটতি মেটাতে সুগন্ধি ধান চাষের উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে।

গ্রামীণ জন উন্নয়ন সংস্থা কর্তৃক ‘মুগডাল ও সুগন্ধি ধানের উৎপাদন বৃদ্ধি এবং বাজারজাতকরণের মাধ্যমে আয় বৃদ্ধি ও কর্মসংস্থান সৃষ্টি’ শীর্ষক ভ্যালু চেইন প্রকল্প সফলভাবে বাস্তবায়নের পর বর্ধিত মেয়াদে এ উদ্যোগ নেয়া হয়।

গত ১৯শে জুলাই বরিশাল জেলায় বাকেরগঞ্জে প্রকল্পের সম্প্রসারিত অংশের স্টার্ট-আপ কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়েছে। কর্মশালায় প্রধান অতিথি ছিলেন, পল্লী কর্ম-সহায়ক ফাউণ্ডেশন (পিকেএসএফ)-এর সিনিয়র মহাব্যবস্থাপক ড. আকন্দ মো. রফিকুল ইসলাম। তিনি জানান, নতুন প্রযুক্তি হিসাবে বরিশালে মুগডাল, সূর্যমুখী ও সুগন্ধী ধান চাষের প্রচলন করানো গেলে কৃষকদের গড় উৎপাদন বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে তাদের আয়ও বৃদ্ধি পাবে। তিনি আরও জানান, ইতিমধ্যে পিকেএসএফ কৃষকদের উৎপাদিত মুগডাল ও সুগন্ধী ধান জাপান এবং মালয়েশিয়ায় রপ্তানির ব্যবস্থা করেছে।
এখানকার উৎপাদিত মুগডাল ও সুগন্ধী ধানও বিদেশে রপ্তানির ব্যবস্থা করা হবে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর