× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ২৪ আগস্ট ২০১৯, শনিবার

দেবিদ্বারে গৃহবধূ হত্যার অভিযোগ

বাংলারজমিন

দেবিদ্বার (কুমিল্লা) প্রতিনিধি | ২৩ জুলাই ২০১৯, মঙ্গলবার, ৯:১৬

দেবিদ্বার উপজেলার এলাহাবাদ ইউনিয়ন-এর উটখাড়া এলাকায় স্বামীর পাশবিক নির্যাতনে রেহানা বেগম (২৬) নামে এক গৃহবধূর মৃত্যু হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। গতকাল সকাল দশটার সময় দেবিদ্বার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে এলে কর্তব্যরত চিকিৎসক রেহানাকে  মৃত ঘোষণা করেন। পরে দেবিদ্বার থানা পুলিশ নিহত রেহানা বেগমের লাশ ময়নাতদন্তের জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করে। স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, একই উপজেলার জাফরগঞ্জ ইউনিয়ন এর দ. নারায়ণপুর গ্রামের মেয়ে রেহেনা বেগমের সঙ্গে এলাহাবাদ ইউপি’র উটখাড়া গ্রামের মো. খোরশেদ আলম (৩০)-এর বিয়ে হয়। বিয়ের কয়েকবছর পর থেকেই বিভিন্নভাবে পারিবারিক কলহ ও পরকীয়া প্রেমে জড়িয়ে পড়ে রেহেনার স্বামী খোরশেদ আলম। যার কারণে নিয়মিতই তাদের মধ্যে ঝগড়া-বিবাদ সহ দাম্পত্য জীবনে অশান্তি শুরু হয়। রেহানা ও খোরশেদের পারিবারিক অশান্তি দূর করার লক্ষ্যে স্থানীয়ভাবে কয়েকবার সালিশ বৈঠক করেও সমাধান মিলেনি। পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, গত  রোববার রাতে নিহত রেহানাকে মারধর করে তার স্বামী মো. খোরশেদ আলম।
এরপর রেহানা অসুস্থ হয়ে পড়লে সোমবার সকালে তাকে দেবিদ্বার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে এলে ডাক্তার মৃত ঘোষণা করেন। অন্যদিকে, ঘটনার সুষ্ঠু বিচারের দাবি জানিয়ে জাফরগঞ্জ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সোহরাব হোসেন জানান, রেহানা আমার ইউনিয়নের মেয়ে, তার স্বামীর অন্য মেয়ের সঙ্গে পরকীয়ার সম্পর্ক ছিল, আমি নিজে কয়েকবার গ্রাম্য সালিশে তাদের মধ্যে মিলমিশ করে দিয়েছি। আমরা চাই এই ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত হোক এবং দোষীদের আইনের আওতায় আনা হোক। এদিকে  দেবিদ্বার থানার এসআই সোহরাব হোসেন ভূঁইয়া জানান, সংবাদ পেয়ে হাসপাতাল থেকে নিহত রেহানার লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কুমেক হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।
ঘটনায় নিহতের পরিবার বাদী হয়ে একটি হত্যা মামলার এজাহার প্রক্রিয়াধীন। জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নিহত রেহানার স্বামী মো. খোরশেদ আলমকে  আটক করা হয়েছে। প্রাথমিক সুরতহালে নিহতের গলায় দাগ পাওয়া গেছে। ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন এলেই জানা যাবে মৃত্যুর মূল রহস্য।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর