× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ২৬ আগস্ট ২০১৯, সোমবার

রায়পুরে ভুল চিকিৎসায় রোগী মৃত্যুর অভিযোগ হাসপাতাল ভাঙচুর

বাংলারজমিন

লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি | ২৪ জুলাই ২০১৯, বুধবার, ৯:০১

লক্ষ্মীপুরের রায়পুর মাতৃছায়া হাসপাতালে ভুল চিকিৎসায় আলী হায়দার নামে এক রোগীর মৃত্যুর অভিযোগ উঠেছে। ঘটনার পর বিক্ষুব্ধ স্বজনরা মাতৃছায়া হাসপাতাল ভাঙচুর করেছে। সোমবার দিবাগত রাতে রায়পুর মাতৃছায়া হাসপাতালে এ ঘটনা ঘটে। নিহত হায়দার রায়পুর উপজেলার রাখালিয়া গ্রামের হাবিব উল্লাহর ছেলে ও স্থানীয় ৩নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। পুলিশ ও নিহত রোগীর স্বজনরা জানায়, সোমবার বিকাল ৩টার দিকে স্থানীয় মরকম আলী সর্দার বাড়ির সামনের দোকানে চা পান করছিলেন আলী হায়দার। এ সময় হঠাৎ মাটিতে লুটে পড়েন তিনি। তাকে উদ্ধার করে রায়পুর মাতৃছায়া হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়। মাতৃছায়া হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক সৈয়দ সাখাওয়াত হোসেন রোগীর ডায়রিয়া রোগ নির্ণয় করে চিকিৎসাপত্র প্রদান করেন।
রোগীর অবস্থার অবনতি হলে দীর্ঘ সময় পরে দ্রুত রোগীকে চাঁদপুর ডায়রিয়া হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার  পরামর্শ প্রদান করেন। এরপর তাকে মৃত ঘোষণা করেন চিকিৎসক। রোগীর স্বজন মো. হারুন জানান, স্ট্রোকের রোগীকে মাতৃছায়া হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক সৈয়দ সাখাওয়াত হোসেন ভুল চিকিৎসা প্রদান করে ডায়রিয়ার রোগী হিসেবে চিকিৎসা দেয়ায় আলী হায়দার মারা যায়। এ ঘটনায় তারা চিকিৎসককে আসামি করে মামলা করা হবে।
হাসপাতালের ব্যবস্থাপক মো. তুহিন চৌধুরী জানান, আলী হায়দার নামে এক ব্যক্তিকে ডায়রিয়া রোগীকে হিসেবে হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। পরে তাকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে চাঁদপুর হাসপাতালে পাঠানো হয়। পরে ওই রোগী মারা গেলে রাতেই মাতৃছায়া হাসপাতালের চিকিৎসক সৈয়দ সাখাওয়াত হোসেনের খোঁজ করে ১০-১৫ জন রোগীর স্বজন হঠাৎ হাসপাতাল ভাঙচুর করে। পরে তিনি বিষয়টি পুলিশকে অবহিত করলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে। ততক্ষণে হাসপাতালে ব্যাপক ভাঙচুর চালায় নিহতের স্বজনরা।

রায়পুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদ তোতা মিয়া জানান, ভুল চিকিৎসায় রোগী মৃত্যুর অভিযোগ এনে স্বজনরা হাসপাতালে ভাঙচুর চালায়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। ঘটনার তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানান তিনি।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর