× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ২৬ আগস্ট ২০১৯, সোমবার

সিলেটে ঈদ জামাতে ৪ স্তরের নিরাপত্তা

দেশ বিদেশ

স্টাফ রিপোর্টার, সিলেট থেকে | ১১ আগস্ট ২০১৯, রবিবার, ৮:১৬

সিলেটের ঈদ জামাতে থাকছে চার স্তরের নিরাপত্তা। এবার সিলেট মহানগর এলাকায় ৩৫৯ স্থানে পবিত্র ঈদুল আজহার জামাত অনুষ্ঠিত হবে। এরমধ্যে ৯৫ ঈদগাহে ও ২৬৪ মসজিদে এসব জামাত অনুষ্ঠিত হবে। সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশ জানিয়েছে শাহী ঈদগাহে থাকবে চার স্তরের নিরাপত্তা বলয়। এ ছাড়া নগরের দ্বিতীয় বৃহত্তম ঈদ জামাত হজরত শাহজালাল (রহ.) দরগাহে, আলীয়া মাদ্রাসা ময়দান, কুদরত উল্লাহ জামে সমজিদ, কালেক্টরেট মাঠ, বন্দরবাজার, শাহপরান মাজার মসজিদকেন্দ্রিক নিরাপত্তা ছাড়াও ঈদের দিন বিনোদন কেন্দ্রগুলোতেও নিরাপত্তা দেবে পুলিশ। সিলেট মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার সুজ্ঞান চাকমা সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, ঈদে নিরাপত্তায় পোশাকে-সাদা পোশাকে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। সেই সঙ্গে পুলিশের মোবাইল টিম ও ট্রাফিক পুলিশ দায়িত্ব পালন করবেন। সব মিলিয়ে নিরাপত্তায় পর্যাপ্ত ফোর্স মোতায়েন রাখা হবে।
তাছাড়া শাহী ঈদগাহে সিসি ক্যামেরার মাধ্যমে পর্যবেক্ষণ করা হবে। ঈদগাহগুলো ছাড়াও বাসা-বাড়ি, মার্কেট, হোটেল-মোটেল ও রাস্তাঘাটে চুরি-ছিনতাই প্রতিরোধে টহল পুলিশ মোতায়েন থাকবে। সিলেট জেলা পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, ঈদের আগে থেকেই সড়ক-মহাসড়কে পশুবাহী ট্রাকে যাতে চাঁদাবাজি না হয়, সেজন্য নিরাপত্তা জোরদার রয়েছে। ঈদের নিরাপত্তায় উপজেলাগুলোতে পোশাকে-সাদা পোশাকে সহস্রাধিক পুলিশ মোতায়েন থাকবে। পাশাপাশি জেলার আওতাধীন পর্যটন এলাকাগুলো ও আগত পর্যটকদের নিরাপত্তায় ট্যুরিস্ট পুলিশের সঙ্গে জেলা পুলিশও নিরাপত্তা এবং শান্তিশৃঙ্খলা বজায় রাখতে কাজ করবে।
মেয়রের অনুরোধ: পবিত্র ঈদুল আজহায় এবার পশু কোরবানির জন্য নগরীর ২৭টি ওয়ার্ডে ৩০টি স্থান নির্ধারণ করেছে সিলেট সিটি করপোরেশন (সিসিক)। অন্য বছরের মতো এবারো নির্দিষ্ট স্থানে পশু জবাই করতে নগরবাসীকে অনুরোধ জানিয়েছেন সিসিকের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী। গতকাল সিসিকের জনসংযোগ শাখা থেকে গণমাধ্যমে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়- পবিত্র ঈদুল আজহায় এ বছর নগরীর ২৭টি ওয়ার্ডের ৩৬টি স্থানে কোরবানির পশু জবাই করার কথা থাকলেও সর্বশেষ ৩০টি স্থানে পশু জবাইয়ের স্থান নির্ধারণ করা হয়েছে। ২৭টি ওয়ার্ডের সিটি কাউন্সিলর ও সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলরদের মতামতের ভিত্তিতে এই ৩০টি স্থানে পশু কোরবানির সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। নির্ধারিত পশু জবাইয়ের স্থানগুলো হলো- ১নং ওয়ার্ডের ৩০-অর্ণব, মীরের ময়দান, ২নং ওয়ার্ডের প্রহরী আ-এ পুরাতন মেডিকেল কলোনী, ৩নং ওয়ার্ডের ডা. গার্ডেন কাজলশাহ, পুকুরপাড়, ৪নং ওয়ার্ডের আম্বরখানা সরকারি কলোনি মাঠ, ৫নং ওয়ার্ড কাউন্সিলরের কার্যালয়, বাসা নং ৬৯, আম্বরখানা বড় বাজার, ৬নং ওয়ার্ড কাউন্সিলরের কার্যালয় চৌকীদেখী, এয়ারপোর্ট রোড, ৭নং ওয়ার্ড কাউন্সিলরের কার্যালয়, ১০৯ ঐক্যতান পশ্চিম পীরমহল্লাহ, ৮নং ওয়ার্ড কাউন্সিলরের কার্যালয়, কালিবাড়ি, ৯নং ওয়ার্ডের জবাইখানা, এতিম স্কুল রোড, বাগবাড়ী, ১০নং ওয়ার্ডের কলাপাড়া ওয়ার্কশপের মাঠ ঘাসিটুলা, একই ওয়ার্ডের নবাব রোড, পিডিবি কোয়ার্টার, ১১নং ওয়ার্ডের লালাদিঘীর পাড় কাউন্সিলর কার্যালয়, ১২নং ওয়ার্ড কাউন্সিলরের বাসা সংলগ্ন স্থান, শেখঘাট, ১৩নং ওয়ার্ড কাজীর বাজার মাদ্রাসা মাঠ, ১৪নং ওয়ার্ড কাউন্সিলরের বাসা সংলগ্ন স্থান, ছড়ারপার, একই ওয়ার্ডের জেলা প্রশাসকের কার্যালয় মাঠ, ১৫নং ওয়ার্ডের শাহজালাল জামিয়া স্কুল অ্যান্ড কলেজ মাঠ, মিরাবাজার, ১৬নং ওয়ার্ডের সওদাগর টুলা মাঠ, ১৭নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলরের বাসা সংলগ্ন খোলা স্থান, কাজীটুলা, ১৮নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলরের বাসার সামনের মাঠ, কুমারপাড়া, ১৯নং ওয়ার্ডের দপ্তরীপাড়া জামে মসজিদ সংলগ্ন মাঠ, ২০নং ওয়ার্ডের সৈয়দ হাতিম আলী (রহ.) উচ্চ বিদ্যালয় মাঠ, ২১নং ওয়ার্ডের সৈয়দ হাতিম আলী (রহ.) সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠ, ২২নং ওয়ার্ডের ব্লক-এ, রোড নং-৭, শাহজালাল উপশহর, একই ওয়ার্ডের ব্লক-আই, খেলার মাঠ, শাহজালাল উপশহর, ২৩নং ওয়ার্ড কাউন্সিলরের কার্যালয়, মাছিমপুর, ২৪নং ওয়ার্ড কাউন্সিলরের বাসা সংলগ্ন স্থান প্রতিশ্রুতি-৮০, কুশিঘাট, গাজী বুরহান উদ্দিন রোড, ২৫নং ওয়ার্ড কাউন্সিলরের বাসা সংলগ্ন স্থান, বঙ্গবীর রোড, ২৬নং ওয়ার্ড কাউন্সিলরের বাসা সংলগ্ন স্থান, কদমতলী ও ২৭নং ওয়ার্ডের আলমপুর বিভাগীয় কমিশনারের বাস ভবন সংলগ্ন স্থান।
 নির্ধারিত এসব স্থানে পশু জবাই করে বর্জ্য যত্রতত্র না ফেলে সিটি করপোরেশনের নির্ধারিত স্থানে রাখতে নগরবাসীকে অনুরোধ জানানো হয়েছে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর