× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯, বুধবার
ভারি বর্ষণের পূর্বাভাষ

পাঞ্জাবে উচ্চ সতর্কতা জারি

বিশ্বজমিন

মানবজমিন ডেস্ক | ১৭ আগস্ট ২০১৯, শনিবার, ১:১৯

ভারতের আবহাওয়া দপ্তর শনি ও রবিবার দু’দিন ভারি বর্ষণের পূর্বাভাষ দিয়েছে। এর প্রেক্ষিতে পাঞ্জাব রাজ্যে উচ্চ সতর্কতা জারি করা হয়েছে। শুক্রবার রাতে এ সতর্কতা জারি করেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী ক্যাপ্টেন অমরিন্দর সিং। এতে সব ডিসিকে সরাসরি নজরদারি করতে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। বলা হয়েছে, ভারি বর্ষণে অনাকাঙ্খিত পরিস্থিতি থেকে জনগণকে নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে। রাজস্ব, পয়ঃনিষ্কাশন, স্বাস্থ্য, খাদ্য ও পশু সম্পদ বিভাগের মাঠ পর্যায়ের কর্মকর্তাদেরও সতর্ক থাকার নির্দেশনা দিয়েছেন অমরিন্দর সিং। বলা হয়েছে, প্রয়োজন হলে ত্রাণ ও পুনর্বাসন কাজে অ্যাকশন প্লান অনুযায়ী কাজ করতে প্রস্তুত থাকতে হবে। এ খবর দিয়েছে অনলাইন জি নিউজ।

অতিরিক্ত পানি বের করে দেয়ার জন্য বক্র ড্যামের চারটি গেটের সবটাই শুক্রবার খুলে দিয়েছে বক্র বিয়াস ম্যানেমেন্ট বোর্ড (বিবিএমবি)। কর্মকর্তাদের উদ্ধৃত করে ভারতের বার্তা সংস্থা এএনআই এ কথা জানিয়েছে। বলা হয়েছে, অতিরিক্ত পানির কারণে রাজ্যের নদীগুলোর পানির স্তর বৃদ্ধি পাচ্ছিল। সেই পানি বের করে দেয়ার জন্য গেটগুলো খুলে দিয়েছে কর্তৃপক্ষ। পানি সংরক্ষণাগারের উচ্চতা ১৬৭৪ ফুটে উন্নীত হওয়ার পর এ ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। এখানকার সর্বোচ্চ ধারণ ক্ষমতা হলো ১৬৮২ ফুট। বক্র ড্যাম থেকে ৫৫,০০০ কিউসেক পানি ছেড়ে দেয়ার পর সুতলেজ নদীর আশপাশে বসবাসকারী এবং জলান্ধর জেলার নি¤œ এলাকার জনগণকে সতর্ক থাকতে বলেছে কর্তৃপক্ষ। এর ওপর পরবর্তী ৪৮ ঘন্টার জন্য প্রবল বর্ষণের পূর্বাভাস দেয়া হয়েছে। এর প্রেক্ষিতে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী তার কর্মকর্তাদেরকে তাদের সদর দপ্তর ত্যাগ করতে বারণ করেছেন।
 
রিপোর্টে বলা হয়েছে, শুক্রবার পুরোদিন উত্তরাখন্ড ও হিমাচল প্রদেশের পাহাড়ি এলাকায় মুষলধারে বৃষ্টি হয়েছে। সেই পানি নেমে আসছিল। তাতে বক্র ড্যামে অতিরিক্ত পানি জমা হয়। এ জন্য সেখান থেকে ৫০,০০০ কিউসেক পানি ছেড়ে দেয়া হয়েছে। ওদিকে শনিবার আবহাওয়ার বুলেটিনে বলা হয়েছে, মৌসুমি বায়ু রাজস্থান, হরিয়ানা, উত্তর প্রদেশ, মধ্যপ্রদেশ, ঝাড়খন্ড, পশ্চিমবঙ্গ ও বাংলাদেশের ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এর ফলে পাঞ্জাব, হিমাচল প্রদেশ, জম্মু-কাশ্মীর, উত্তরাখন্ড, হরিয়ানা, দিল্লি, রাজস্থান ও অন্ধ্র প্রদেশে ভারি থেকে ভারি বৃষ্টিপাত ও বজ্রবৃষ্টি হতে পারে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর