× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯, বুধবার

কাশ্মীর: প্রেসিডেন্টের আদেশ চ্যালেঞ্জ ভারতের সুপ্রিম কোর্টে

বিশ্বজমিন

মানবজমিন ডেস্ক | ১৮ আগস্ট ২০১৯, রবিবার, ১০:৩২

কাশ্মীরের স্বায়ত্তশাসন সংক্রান্ত প্রেসিডেন্টের আদেশকে চ্যালেঞ্জ জানানো হয়েছে ভারতের সুপ্রিম কোর্টে। চ্যালেঞ্জ জানিয়েছেন অবসরপ্রাপ্ত সেনা কর্মকর্তা, সরকারি নীতিনির্ধারকরা। সম্প্র্রতি কাশ্মীরের স্বায়ত্তশাসন সংক্রান্ত সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদ বাতিল বিষয়ক আদেশে স্বাক্ষর করেন প্রেসিডেন্ট রামনাথ কোবিন্দ। এরপরই স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ পার্লামেন্টে ওই অনুচ্ছেদ বাতিল, সঙ্গে সঙ্গে জম্মু কাশ্মীরকে দেয়া বিশেষ মর্যাদা বাতিল ঘোষণা দেন। এর কড়া নিন্দা জানিয়েছে পাকিস্তান। নিন্দা জানিয়েছেন কংগ্রেসের সদ্য বিদায়ী সভাপতি রাহুল গান্ধী। এবার ভারতের প্রেসিডেন্টের ওই আদেশকে দেশের শীর্ষ আদালতে চ্যালেঞ্জ করলেন ভারতেরই সাবেক সেনা কর্মকর্তা ও নীতিনির্ধারকরা।

অনলাইন জি নিউজ এ খবর দিয়ে জানাচ্ছে, শনিবার এমন চ্যালেঞ্জ জানিয়ে পিটিশন দাখিল করেছেন জম্মু কাশ্মীর ইস্যুতে মধ্যস্থতাকারী স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একদল সদস্যের সাবেক সদস্য রাধা কুমার। ওই গ্রুপের সদস্য ছিলেন তিনি ২০১০ থেকে ২০১১ সাল পর্যন্ত। আরেকটি পিটিশন জমা দিয়েছেন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সাবেক সচিব গোপাল পিল্লার। কেরালা ক্যাডারে ভারতীয় প্রশাসনিক সার্ভিসের সাবেক কর্মকর্তা তিনি। আরো যারা পিটিশন দিয়েছেন তার মধ্যে আছেন জম্মু কাশ্মীরে ভারতের প্রশাসনিক সার্ভিস ক্যাডারের সাবেক অফিসার হিন্দাল হায়দার তৈয়বজি, সাবেক এয়ার ভাইস মার্শাল কপিল কাক, অবসরপ্রাপ্ত মেজর জেনারেল অশোক কুমার মেহতা ও ভারতীয় প্রশাসনিক সার্ভিসে পাঞ্জাব ক্যাডারের সাবেক অফিসার অমিতাভ পান্ডে। এর মধ্যে ইন্সটিটিউট অব ডিফেন্স স্টাডিজ অ্যান্ড এনালাইসিসের উপপরিচালক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন কপিল কাক। তাদের পক্ষে পিটিশনের খসড়া করেছেন আইনজীবী অর্জুন কৃষ্ণাণ, কৌস্তুব সিং ও রাজালক্ষ্মী সিং। আর এর চূড়ান্ত কাজ শেষ করেছেন সিনিয়র আইনজীবী প্রশান্ত সেন।

আবেদনে বলা হয়েছে, কাশ্মীরের জনগণের সম্মতি ছাড়াই সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদ বাতিল করা হয়েছে। এতে গণতন্ত্রের মৌলিক নীতি, ফেডারেলিজম ও মৌলিক অধিকার লঙ্ঘিত হয়েছে। এমন আবেদন করা হয়েছে যখন পুরো জম্মু-কাশ্মীর অনাকাঙ্খিত নিরাপত্তার চাদরে ঢাকা রয়েছে। সেখানে অতিরিক্ত আধা সামরিক বাহিনীর সদস্য পাঠাচ্ছে কেন্দ্রীয় সরকার। অভিযোগ উঠেছে, সেখানে মানবিক এক বিপর্যয় সৃষ্টি হতে পারে। মানবাধিকার লঙ্ঘিত হচ্ছে। মানুষের নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্র ফুরিয়ে এসেছে। চিকিৎসা নিতে মানুষ হাসপাতালে যেতে পারছে না। পাকিস্তান অভিযোগ তুলেছে, সেখানে জাতি নিধন শুরু করতে পারে ভারত। মুসলিমদের বিরুদ্ধে নির্যাতনের অভিযোগ আছে। এসব ইস্যুতে এরই মধ্যে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদে রুদ্ধদ্বার বৈঠক হয়েছে। ৫০ বছরেরও বেশি সময়ের মধ্যে এ ইস্যুতে পরিষদ বৈঠক করেছে। সেখানে কাশ্মীর পরিস্থিতিতে উদ্বেগ প্রকাশ করা হয়েছে। ভারতীয় মিডিয়ার খবরে বলা হচ্ছে জম্মু-কাশ্মীরের বেশ কিছু এলাকায় কড়াকড়ি শিথিল করা হয়েছে। ভারত সরকার বলছে, এখন পর্যন্ত ওই অঞ্চলে কোনো অঘটন ঘটেনি। বড় আকারে বিক্ষোভ বানচাল করে দিয়েছে সরকার ও পুলিশ বাহিনী।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর