× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯, শুক্রবার

আশুলিয়ায় গৃহবধূ গণধর্ষণ, আটক ১

এক্সক্লুসিভ

স্টাফ রিপোর্টার, সাভার থেকে | ১৯ আগস্ট ২০১৯, সোমবার, ৮:১৭

সাভারের আশুলিয়ায় স্বামীকে আটকে রেখে উপজাতি (মারমা) এক গৃহবধূ গণধর্ষণের শিকার হয়েছেন। গতকাল রনি নামের এক অভিযুক্তকে আটক করেছে পুলিশ। ধর্ষণের ঘটনায় তিন জনের নাম উল্লেখ করে আশুলিয়া থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। এর আগে গত মঙ্গলবার আশুলিয়ার ডেন্ডাবর এলাকার একটি বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে। পরে শনিবার রাতে ভুক্তভোগী ওই গৃহবধূ বাদী হয়ে তিনজনের নাম উল্লেখ করে আশুলিয়া থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। এ ঘটনায় অভিযুক্তরা হলেন- পাবনা জেলার আটঘরিয়া থানার পাইকপাড়া গ্রামের মন্টু মিয়ার ছেলে রনি (২১), ডেণ্ডাবর এলাকার স্থানীয় বাসিন্দা খোরশেদ আলম খোকনের ছেলে জয় (২২) এবং ফরিদপুর জেলার শামীম (২৬)। অভিযুক্ত রনি এবং শামীম ডেন্ডাবর এলাকায় ভাড়াবাড়িতে থাকতো। মামলার এজাহারসূত্রে জানা যায়, গত মঙ্গলবার অবৈধভাবে মদ তৈরির অভিযোগ তুলে উপজাতি দম্পতির ঘরে ঢোকে তিন বখাটে। পরে তারা ওই গৃহবধূ ও তার স্বামীর কাছে ২ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে। এ সময় অভিযুক্তরা বাসায় ভাঙচুর চালায়। চাঁদা দিতে অস্বীকৃতি জানালে ওই গৃহবধূর স্বামীকে মারধর করে অভিযুক্ত ওই বখাটেরা। পরে তারা ওই গৃহবধূর স্বামীকে পাশের কক্ষে নিয়ে আটকে রেখে গৃহবধূকে পালাক্রমে ধর্ষণ করে। এ সময় তারা ওই গৃহবধূর গলায় থাকা স্বর্ণের চেইন সহ নগদ প্রায় ১০ হাজার টাকা ছিনিয়ে নেয়। এ ঘটনা কাউকে বললে প্রাণনাশের হুমকিও দেয় ওই বখাটেরা। আশুলিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রিজাউল হক দিপু জানান, উপজাতি গৃহবধূকে গণধর্ষণের ঘটনায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। ইতিমধ্যে রনি নামের এক আসামিকে গ্রেপ্তারও করা হয়েছে। বাকিদের গ্রেপ্তারের জন্য অভিযান অব্যাহত রয়েছে। এছাড়া ভুক্তভোগী ওই গৃহবধূর স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর