× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯, শুক্রবার
ত্রিপুরার চাকমা সংগঠনের দাবি

পার্বত্য চট্টগ্রাম ভারতের অবিচ্ছেদ্য অংশ

প্রথম পাতা

মানবজমিন ডেস্ক | ১৯ আগস্ট ২০১৯, সোমবার, ৯:৪৮

বাংলাদেশের পার্বত্য চট্টগ্রামকে ভারতের অবিচ্ছেদ্য অংশ হিসেবে দাবি করেছে ত্রিপুরার চাকমা সমপ্রদায়। বৃটিশদের কাছ থেকে ভারতের স্বাধীনতার সাত দশক পর এমন দাবি করেছে তারা। পাশাপাশি আন্তর্জাতিক বিচার আদালতে (আইসিজে) আদিবাসী নির্যাতনের অভিযোগে বিচারের দাবিও জানিয়েছে স্থানীয় চাকমা সংগঠনগুলো। এ খবর দিয়েছে দ্য ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস।

এতে বলা হয়, চলতি বছর ত্রিপুরার ১১টি অংশে বিক্ষোভ করেছে চাকমা ন্যাশনাল কাউন্সিল অব ইন্ডিয়া ও ত্রিপুরা চাকমা স্টুডেন্টস এসোসিয়েশন। ২০১৬ সাল থেকে ১৭ই আগস্টকে কালো দিন হিসেবে পালন করে আসছে সংগঠন দুটি। সমপ্রতি পার্বত্য চট্টগ্রামকে ভারতের অংশ হিসেবে দাবি করেছে তারা। ১৭ই আগস্ট ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে চাকমা ন্যাশনাল কাউন্সিল অব ইন্ডিয়ার সাধারণ সমপাদক উদয় জ্যোতি চাকমা বলেন, দেশভাগের সময় পার্বত্য চট্টগ্রামকে তৎকালীন পাকিস্তানের কাছে দিয়ে দেয়ার সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ হিসেবেই দিনটিকে কালো দিন হিসেবে পালন করা হয়।

সংগঠনটির ভাইস প্রেসিডেন্ট অনিরুদ্ধ চাকমা বলেন, আমরা বিগত বছরগুলোর মতো এবারো কালো দিন পালন করছি। চাকমা জনগোষ্ঠীর ওপর চালানো নির্যাতন, জাতিগত নিধন ও অন্যায়ের প্রতিবাদ হিসেবে দিনটি পালন করা হচ্ছে। আমরা পার্বত্য চট্টগ্রামকে ভারতের অবিচ্ছেদ্য অংশ মনে করি এবং আন্তর্জাতিক বিচার আদালতের কাছে ন্যায়বিচার ও সহানুভূতির আবেদন জানাচ্ছি।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
অর্ণব
১৯ আগস্ট ২০১৯, সোমবার, ২:২৩

চাকমাদের আসল দেশ হলো ভারতের একেবারে উত্তর-পূর্ব অংশের অরুণাচল প্রদেশ। শ’খানেক বছর আগে ব্রিটিশরা তাদের একটা অংশকে ভুলিয়ে-ভালিয়ে এখনকার বাংলাদেশের পার্বত্য চট্টগ্রাম এলাকায় নিয়ে এসেছিলো। তার আগে এই এলাকায় চাকমা বলতে কেউ ছিলোই না। এখনকার যে চাকমারা বাংলাদেশ ছেড়ে ভারতে চলে গেছেন, তারা নিজ দেশ ফিরে পেতে চাইলে অরুণাচল প্রদেশে চলে যেতে পারেন। অনেক বাংলাদেশি চাকমাকেই তো সেখানে পুনর্বাসিত করা হয়েছে। সেখানেই তারা ফিরে পাবেন সত্যিকারের নিজ দেশকে, নিজ ভাষা আর নিজ সংস্কৃতির পরিবেশকে। শুধু শুধু রাজনৈতিক-সম্প্রসারণবাদী কুমতলবওয়ালাদের ভাড়া খেটে এইসব আজেবাজে ‘আন্দোলন’ করার কী দরকার?

MOHAMMED ABDUL MOMEN
১৯ আগস্ট ২০১৯, সোমবার, ১১:১২

আমাদের দাবী পশ্চিম বঙ্গ,আসাম,মেঘালয়,এিপুরা এসব পুরোটাই বাংলাদেশের অংশ।ব্রিটিশরা ষড়যন্ত্র করে ওগুলো ভারতকে দিয়েছিল,এজন্যইতো বাংলাদেশ এত ছোট হয়ে গেছে।

Amir
১৯ আগস্ট ২০১৯, সোমবার, ১০:১১

ঔদ্ধত্যপূর্ণ বক্তব্য!

Kazi
১৮ আগস্ট ২০১৯, রবিবার, ৮:৪৮

Tripura is part of Bangladesh.

Quazi Nasrullah
১৮ আগস্ট ২০১৯, রবিবার, ৮:৩০

হাস্যকর

Nannu chowhan
১৮ আগস্ট ২০১৯, রবিবার, ৭:৫৭

Eaigoli varotio shorojontro, Bangladeshke chaper moddhe rekhe ja kisu varotio shorkar chai ta jeno adai kore nete pare.Tai shorkarke Bangladeshe boyoshko jadrel kutnoitiqder theke porsmorsho nia shob kisu mokabela korai sreo....

Mohammad esteak hoss
১৮ আগস্ট ২০১৯, রবিবার, ৫:৫৭

এদের বিরুদ্ধে এখনই আইনগত ব্যাবস্থা নেওয়া উচিৎ।

Kazi
১৮ আগস্ট ২০১৯, রবিবার, ১:০১

Chakma in Bangladesh is enjoying kings life.

মাহবুব
১৮ আগস্ট ২০১৯, রবিবার, ১১:৩২

আমরাও দাবি করতে পারি কলকাতা বাংলাদেশের অংশ

অন্যান্য খবর