× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯, শুক্রবার

ফুলপুরে কংসের বেণীপোড়ার মোড়ে ভাঙন

বাংলারজমিন

ফুলপুর (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি | ২০ আগস্ট ২০১৯, মঙ্গলবার, ৮:২৬

ময়মনসিংহের ফুলপুরে কংস নদীর বেণীপোড়া মোড় এলাকায় ব্যাপক ভাঙনে এলাকাবাসীর দুঃখের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। অনেক পরিবার জমি বাড়ি হারিয়ে অন্যত্র চলে যেতে বাধ্য হচ্ছে।
জানা যায়, উপজেলার পূর্ববাখাই এলাকায় কংস নদী একটি আশ্চর্য বাঁক নিয়ে প্রবাহিত হয়েছে। এখানে প্রায় ৪০০ মিটার দূরত্বের জায়গা নদী সোজাভাবে না গিয়ে প্রায় ১০ কিলোমিটার দূরত্ব ঘুরে এসে প্রবাহিত হয়েছে। পূর্ববাখাই গ্রামের রাক্ষসখালি বাঁকে নদীটি সোজাসুজি প্রায় ২০০ মিটার দূরত্বের জায়গা প্রায় ৫ কিলোমিটার ঘুরে এসে আবার প্রায় ২০০ মিটার দূরত্বের জায়গা সোজাসুজি না গিয়ে প্রায় ৫ কিলোমিটার ঘুরে বাঁশতলা এলাকার দিকে প্রবাহিত হয়েছে। যা এলাকাবাসীর কাছে বেণীপোড়ার মোড় নামে পরিচিত। এ বৃত্তাকার বাঁকে দিন দিনই ভাঙন বেড়ে আরো ভয়াবহ রূপ ধারণ করছে। এতে পূর্ববাখাই, পশ্চিমবাখাই, বাতিকুড়া, নাসুল্যা ও ইটাখলা গ্রামের অসংখ্য মানুষের জমি ও বাড়িঘর ভেঙে নদীর পেটে বিলীন হচ্ছে। অনেক পরিবারকে জমি বাড়ি হারিয়ে অন্যত্র চলে যেতে বাধ্য হচ্ছেন। এলাকাবাসীর দাবি সরকারিভাবে নদীটি খনন করে সোজাভাবে প্রবাহিত করলে ভাঙন থেকে রক্ষা পাবেন।
স্থানীয় ইউপি সদস্য মোফাখ্‌খারুল ইসলাম জানান, পানি উন্নয়ন বোর্ড থেকে কংস নদীর খনন কাজ চলছে। এ সময় সরকারিভাবে বাঁকটি সোজা করলে দুর্ভোগের শেষ হতো। এতে নদীর বাঁকের শত শত একর জমি আবাদের আওতায় চলে আসতো। সাবেক ইউপি সদস্য মোক্তার উদ্দিন জানান, এটুকু জায়াগা নৌকায় পাড়ি দিতে খড়ের একটি বড় বেণী পুড়ে যাওয়ায় নাম হয়েছে বেণীপোড়ার মোড়। এ নদীর ভাঙনে আমাদের অনেকের জমি ওপারে চলে যাওয়ায় বেদখল হয়েছে। ইউপি চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আলম জানান, সংসদ সদস্যের ডিউ লেটারসহ আবেদন করায় খনন শুরু হয়েছে। এ বিষয়েও সমাজকল্যাণ প্রতিমন্ত্রী শরীফ আহমেদের সহায়তায় প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের চেষ্টা করব।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর