× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯, শুক্রবার

আইএনএক্স মামলায় চিদাম্বরমের সংশ্লিষ্টতার অভিযোগ কেন?

ভারত

কলকাতা প্রতিনিধি | ২২ আগস্ট ২০১৯, বৃহস্পতিবার, ১১:৪৬

পিটার এবং ইন্দ্রানী মুখার্জির (নিজের কন্যা শিনা বোরা খুনের মামলায় বিচারাধীন দু’জনই এখন জেলে) মালিকানাধীন আইএনএক্স মিডিয়া ফরেন ইনভেস্টমেন্ট প্রমোশন বোর্ড (এফ আইপিবি) এর মাধ্যমে মরিসাসের দুই নাগরিকের থেকে সরাসরি বিদেশি বিনিয়োগের (এফডিআই) সুযোগ পায়। ৪ কোটি ৬২ লাখ রুপি সরাসরি বিদেশি বিনিয়োগের অনুমতি দেওয়া  হয়েছিল। কিন্তু, আইএনএক্সের-ই অন্য একটি সংস্থা আইএনএক্স নিউজ প্রাইভেট লিমিটেডকে এফডিআই-এর মাধ্যমে বিদেশি বিনিয়োগ টানার অনুমতি দেওয়া হয়নি। অভিযোগ, নির্দেশের তোয়াক্কা না করে আইএনএক্স বিদেশি সংস্থার থেকে বিনিয়োগ গ্রহণ করে এবং তাদের নিজের শেয়ারও বিক্রি করে। এ নিয়েই মামলা করেছিল দেশটির তদন্তকারি সংস্থা সিবিআই এবং এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট বা ইডি। ২০০৭ সালে ইউপিএ সরকারের আমলে  চিদাম্বরম যখন অর্থমন্ত্রী ছিলেন সেই সময় এফইপিবি-এর মাথায় বসে তিনি আইএনএক্স-কে বেআইনি কাজকর্ম করতে দিয়েছিলেন বলে অভিযোগ। আইএনএক্স-র স্বত্বাধিকারি ইন্দ্রানী মুখার্জি সিবিআই জেরার মুখে স্বীকার করেছিলেন, ২০০৮ সালে অর্থমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করে তিনি আইএনএক্স মিডিয়ার জন্য সেরা ‘ডিল’ করতে পেরেছিলেন। আর চিদাম্বরম পুত্র কার্তিক পুরো বিষয়টি নিয়ে আইএনএক্স-কে সাহায্য করতে এগিয়ে এসেছিলেন। তিনি অর্থমন্ত্রক এবং আইএনএক্স-এর মধ্যে মধ্যস্থতাকারীর ভূমিকা পালন করেছিলেন বলে সিবিআইয়ের অভিযোগ।  কার্তিকের কোম্পানি চেস ম্যানেজমেন্ট প্রাইভেট লিমিটেডর দ্বারস্থ হয়েছিলেন ইন্দ্রানী মুখার্জি। তদন্তে সিবিআই জানতে পেরেছে ইন্দ্রানী কার্তিককে এক মিলিয়ন ডলার দেবে বলে চুক্তি করেছিল। একটি কোম্পানির নামে কয়েক লক্ষ রুপির চেকও পাওয়া গিয়েছে। ওই কোম্পানি মালিক কার্তিক না হলেও তিনি ওই কোম্পানির সঙ্গে যুক্ত। সিবিআই আরও অভিযোগ করেছে, পুরো লেনদেনে তৎকালীন অর্থমন্ত্রী চিদাম্বরমকেও ‘পার্টি’ করা হয়েছিল।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর