× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯, শুক্রবার

নিজস্ব প্রযুক্তিতে অত্যাধুনিক আকাশ প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা তৈরি করেছে ইরান

বিশ্বজমিন

মানবজমিন ডেস্ক | ২৪ আগস্ট ২০১৯, শনিবার, ৮:১৩

নতুন আকাশ প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা সার্ভিসে এনেছে ইরান। সম্পূর্ণ নিজস্ব প্রযুক্তিতে তৈরি এই ব্যবস্থাটি দেশটির সবথেকে আধুনিক আকাশ প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা। মঙ্গলবার ইরানি প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানি রাজধানী তেহরানে এই প্রতিরক্ষা ব্যবস্থার উদ্বোধন করেন। এ খবর দিয়েছে আল-জাজিরা।
নতুন ওই আকাশ প্রতিরক্ষা ব্যবস্থার নাম বাভার-৩৭৩। যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে চলমান উত্তেজনার মধ্যেই এই নতুন অস্ত্রের সঙ্গে বিশ্বকে পরিচয় করিয়ে দিলো ইরান। এটি একটি দূর পাল্লার ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা। ফারসিতে বাভার শব্দের অর্থ হচ্ছে বিশ্বাস। এটিই এখন পর্যন্ত ইরানের নিজেদের তৈরি সবথেকে আধুনিক প্রযুক্তির সমরাস্ত্র।
২০১০ সালে রাশিয়া থেকে এস-৩০০ সিস্টেম ক্রয়ের দ্বারপ্রান্তে পৌঁছে গিয়েছিল ইরান। কিন্তু আন্তর্জাতিক চাপের কারণে সেসময় এই রুশ প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা কিনতে ব্যর্থ হয় দেশটি। এরপর থেকেই নিজস্ব প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা তৈরির কার্যক্রম শুরু করে তেহরান। সাফল্যও আসে দ্রুত। তবে ২০১৫ সালের ইরান পরমাণু সমঝোতা চুক্তির পর অবস্থা বদলে যেতে থাকে। পরের বছরই এস-৩০০ ক্রয় করে দেশটি। একইসঙ্গে নিজেদের প্রযুক্তির উন্নয়নের কাজও চলতে থাকে।
উদ্বোধন অনুষ্ঠানে ইরানি প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানি জানান, বাভার আকাশ প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা এস-৩০০ থেকে উন্নত ও এস-৪০০ এর প্রায় সমপর্যায়ের। এর পাল্লা ২০০ কিলোমিটারেরও বেশি। দেশটির রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা ইরনা একে স্থানীয় ভূপ্রকৃতির সাপেক্ষে উপযুক্ত দাবি করেছে। বক্তব্যে যুক্তরাষ্ট্রকে হুঁশিয়ারি বার্তা দিয়েছেন রুহানি। একইসঙ্গে দেশটির সঙ্গে কোনো ধরনের আলোচনায় না বসার কথাও জানান তিনি। রুহানি বলেন, আমাদের শত্রুরা আর যুক্তি মেনে চলছে না। আমরাও শুধু আর যুক্তি দিয়ে এর জবাব দিতে পারি না। যখন শত্রু রাষ্ট্র আমাদের ওপর ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালাবে আমরা তখন আমরা তাকে শুধু কথা দিয়ে থামাতে পারবো না। আমরা নিশ্চই তাকে বলবো না, মিস্টার রকেট আপনি দয়া করে আমাদের ও নিরীহ মানুষদের আঘাত করবেন না।  জুন মাসে যুক্তরাষ্ট্রের একটি গ্লোবাল হক গোয়েন্দা ড্রোন ধ্বংস করে দেয় ইরান। এ জন্য দেশটি ব্যবহার করে সারফেস টু সারফেস ক্ষেপণাস্ত্র।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর