× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯, সোমবার

মিয়ানমারেরও শক্তিশালী বন্ধু আছে: কাদের

অনলাইন

স্টাফ রিপোর্টার | ২৪ আগস্ট ২০১৯, শনিবার, ৬:২১

বিশ্বে মিয়ানমারেরও শক্তিশালী বন্ধু থাকার বিষয়টি মাথায় রেখে রোহিঙ্গাদের ফেরাতে সরকার কৌশলী অবস্থান নিয়েছে বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সড়ক পরিবহন এবং সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

তিনি বলেন, মিয়ানমার সরকার সেখানে পরিবেশ সৃষ্টি করেনি, নিরাপত্তা সৃষ্টি করেনি, সিটিজেনশিপের মতো বিষয়টি সুরাহা করতে পারেনি; এজন্য তাদের বিশ্বাস করতে পারেনি রোহিঙ্গারা। এর দায় মিয়ানমার সরকারকে নিতে হবে। আজ ঢাকার ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স ইনষ্টিটিউটশন মিলনায়তেনে বিআরটিসি শ্রমিক-কর্মচারী লীগের আয়োজনে শোক দিবসের আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব  কথা বলেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, আমরা যুদ্ধের পথে যাব না, আন্তর্জাতিক চাপ অব্যাহত রাখব। সেই কৌশলে এগিয়ে যাচ্ছি আমরা। এখানকার সমস্যাটা জটিল। এই জটিলতার মধ্যে যুদ্ধ পরিহার করে ঠান্ডা মাথায় আলাপ-আলোচনা করে এর সমাধান করার চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে। এ ব্যাপারে আমাদের মনে রাখতে হবে, মিয়ানমারেরও বন্ধু আছে এবং শক্তিশালী বন্ধু আছে। রোহিঙ্গা ফেরত পাঠাতে না পারা কূটনৈতিক ব্যর্থতা নয় বলে তিনি দাবি করেন।

সংগঠনের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মো. আব্দুল কাদেরের সভাপতিত্বে এসময় অন্যানের মধ্যে বক্তব্য রাখেন শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী মুন্নুজান সুফিয়ান, বিআরটিসির চেয়ারম্যান ফরিদ আহমেদ ভুইয়া ও জাতীয় শ্রমিক লীগের সভাপতি শুক্কুর মাহমুদ প্রমুখ।  

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
Nil
২৫ আগস্ট ২০১৯, রবিবার, ১০:৫৮

Nobel porokar pawar asay rohinga bodmaishder asroy diechilen. Ekhon thela samlan.

Suborna
২৫ আগস্ট ২০১৯, রবিবার, ৭:২১

আগে কই গেছিলেন? ভারত যখন ডুকতে না দেওয়ার জন্য অনুরোধ করেছিলো, তখন কথা শুনেন নি। এখন বুঝতে পেড়েছেন তাহলে?

shiblik
২৪ আগস্ট ২০১৯, শনিবার, ১১:০৬

আমাদের জনসংখ্যা মিয়ানমারের থেকে তিন গুনের বেশি ... আমাদের army, navy, air force, BGB তাহলে কিসের জন্য আছে?

রিপন
২৪ আগস্ট ২০১৯, শনিবার, ৮:৪৪

বন্ধু শুধু নেই বাংলাদেশের। শুরু থেকেই ভ্রান্তির বেড়াজালে, মিথ্যা মোহমায়ার বেড়াজালে, আটকে আছে বাংলাদেশের তামাম নীতি। যে আপাত শক্তিশালী রাষ্ট্রটিকে পরম হিতৈষী মিত্র ভেবে বাংলাদেশের তাবৎ নীতি-দুর্নীতি পাখা মেলেছিল একপেশে নির্ভরতায়, আপতকালীন দুঃসময়ে সেই তথাকথিত মিত্রটিই নিজ স্বার্থে বাংলাদেশের পাশে নেই। শক্ত অবস্থান নিয়েছে উল্টো বাংলাদেশের বিপক্ষে মিয়ানমারের পক্ষে, তথা মুসলিম নিধন নির্মূল বিতাড়নের পক্ষে। যে আমার পক্ষে নেই সে অবশ্যই আমার প্রতিপক্ষের পক্ষে। অবশ্য, মি. কাদেরের পক্ষে তাঁর বর্তমান অবস্থানে থেকে এই সত্যটি উচ্চারণ করা সম্ভব নয়, সে আমরা বুঝি।

Emon
২৪ আগস্ট ২০১৯, শনিবার, ৭:৪০

মায়ানমারের নোংরামি diplomacy কাছে বাংলাদেশ ৫ বছরের শিশু মাএ। মায়ানমার Rohingya জনগণের নাগরিকত্ব কেন ফেরত দিচ্ছে না সে দিকটা খেয়াল করলে বুঝা যায় মিয়ানমার Rohingya দের আবার তাদের রাজনৈতিক বা অন্য কোন কারণে দরকার পড়লে বিতাড়িত করবে।বাংলাদেশ মিয়ানমার যুদ্ধ ? সে আবার কি আমরা তো ক্ষমতাশীল জাতি মার খেতে আমরা অভ্যস্ত

Badrul Alam
২৪ আগস্ট ২০১৯, শনিবার, ৮:৩৬

Looks like, Mr Kader made his pants dirty for the fear of powerful ally of Myanmar.

অন্যান্য খবর