× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯, সোমবার

নোয়াখালীতে ৩৪৭ অবৈধ দোকান উচ্ছেদ

বাংলারজমিন

স্টাফ রিপোর্টার, নোয়াখালী থেকে | ২৫ আগস্ট ২০১৯, রবিবার, ৮:৫৩

যানজট নিরসন ও খাল সংস্কার করে জলাবদ্ধতা দূরীকরণের লক্ষ্যে নোয়াখালীবাসীর দীর্ঘদিনের দাবির প্রেক্ষিতে সোনাপুর জিরো পয়েন্ট এলাকায় উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করেছে জেলা প্রশাসন। সরকারি এবং স্থানীয় ভূমি ইমারত দখল ও পুনরুদ্বার করার লক্ষ্যে সোনাপুর জিরো পয়েন্টের নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় রোড এবং আলেকজান্ডার রোড়ের পাশে খালের উপর নির্মিত সব অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করা হয়েছে। অসহনীয় যানজট নিরসনে জেলা প্রশাসন এই অভিযান পরিচালনা করেন। অভিযানে সহযোগিতা করেন- বাংলাদেশ সেনাবাহিনী, র‌্যাব, নোয়াখালী পৌরসভা, সড়ক ও জনপথ বিভাগ, সুধারাম মডেল থানার পুলিশ ও আনসার-ভিডিপি সদস্যরা। জেলা প্রশাসক কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, নোয়াখালী জেলার সোনাপুর-বেগমগঞ্জ চৌরাস্তা সড়কের বিভিন্ন অংশে বিদ্যমান যানজট দূরীকরণের জন্য জেলা আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভার সিদ্ধান্তের আলোকে এবং নোয়াখালীর দক্ষিণ অঞ্চলের মানুষের আবেদনের প্রেক্ষিতে সোনাপুর জিরো পয়েন্ট থেকে এই অভিযান শুরু করা হয়েছে। জেলা প্রশাসক তম্ময় দাস নোয়াখালী জেলাকে যানজটমুক্ত পরিচ্ছন্ন ও পরিবেশবান্ধব জেলা হিসেবে গড়ে তোলার লক্ষ্যে যে প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন তারই অংশ হিসেবে এ অভিযান পরিচালিত হচ্ছে। সোনাপুর জিরো পয়েন্টসহ জেলার অন্যান্য স্থানে বিদ্যমান যানজট অবসান না হওয়া পর্যন্ত জেলা প্রশাসনের এ অভিযান অব্যাহত থাকবে। সদর উপজেলা ইউএনও মো. আরিফুর সরদার জানান, সরকারি এবং স্থানীয় ভূমি ইমারত দখল ও পুনরুদ্ধার করার এবং সোনাপুর জিরো পয়েন্টের বিদ্যমান যানজট অবসান ও খাল সংস্কার করে শহরের জলাবদ্ধতা দূরীকরণের লক্ষ্যে এই উচ্ছেদ অভিযান চলছে। স্থানীয়রা জানিয়েছেন, এই উচ্ছেদ অভিযানের ফলে নোয়াখালী সদর দক্ষিণাঞ্চলের সুবর্ণচর ও হাতিয়া উপজেলা, নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় এবং লক্ষ্মীপুর জেলার রামগতিবাসীর দীর্ঘদিনের দাবি পূরণ হয়েছে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর