× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯, বৃহস্পতিবার

খালেদা জিয়ার শরীরের অবস্থা খুবই খারাপ

প্রথম পাতা

স্টাফ রিপোর্টার | ৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯, সোমবার, ৮:৫৬

চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে আগামী বুধবার ঢাকায় এবং বৃহস্পতিবার সারা দেশে মানববন্ধন করবে    বিএনপি। এছাড়াও ২৬শে সেপ্টেম্বর ময়মনসিংহে ও ২৯শে সেপ্টেম্বর রাজশাহীতে বিভাগীয় সমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে। আর ২১শে সেপ্টেম্বর সিলেটে সমাবেশ হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। সবশেষে রংপুরে খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে বিভাগীয় সমাবেশ করা হবে। গতকাল নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান, দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।
তিনি বলেন, খালেদা জিয়াকে একটা মিথ্যা মামলায় আটকে রাখা হয়েছে। গণতন্ত্রের এই নেত্রী শুধুমাত্র গণতন্ত্র পূন:প্রতিষ্ঠার আন্দোলন করার কারণেই তাকে মুক্তি দেয়া হচ্ছে না। কিন্তু তার (খালেদা) শরীরের অবস্থা খুবই খারাপ। আমরা বার বার বলে আসছি তার পছন্দ মতো হাসপাতালে চিকিৎসা করানোর জন্য। কিন্তু এর অনুমতি দেয়া হচ্ছে না। তিনি প্রচন্ড অসুস্থ। অথচ বিএসএমএমইউ হাসপাতালের পরিচালক ও সহকারী পরিচালক বলেছেন, ম্যাডাম সম্পূর্ণ সুস্থ রয়েছেন। এ কথায় পরিস্কার বুঝা যায়, তাকে চিকিৎসা না দিয়ে আবার কারাগারে পাঠানোর চক্রান্ত চলছে।
তিনি বলেন, সম্প্রতি ওনার পরিবার এবং আমরা দেখা করতে গিয়ে দেখেছি, ম্যাডাম একা বিছানা থেকে উঠতে পারেন না। তাকে দুই জনের সহায়তা নিয়ে চলাফেরা করতে হয়। তার দুটি হাতে গ্রিফ করতে পারেন না। দুই পা বেন করতে পারেন না। ওনার ডায়াবেটিসের অবস্থা ভাল না। খালেদা জিয়ার শরীরতো এমনিতেই নুয়ে গেছে। আর সঠিক চিকিৎসা যদি না হয় তাহলেতো তার শরীরের অবস্থা আরো বিপদজনক অবস্থায় গিয়ে দাঁড়াবে। ওনাকে জেলে রাখা হয়েছে একমাত্র রাজনৈতিক প্রতিপক্ষকে সম্পূর্ণভাবে নিশ্চিহ্ন করে দেয়ার জন্য। খালেদা জিয়ার চিকিৎসার জন্য যে অপশনগুলো আছে সেগুলো থেকে বঞ্চিত করে তাকে মৃত্যুর দিকে ঠেলে দেয়া হচ্ছে। এটা কখনোই মেনে নেয়া যায় না। একমাত্র মুক্তির মাধ্যমেই খালেদা জিয়ার সুচিকিৎসা সম্ভব।
খালেদা জিয়াকে চিকিৎসাহীন রাখা হচ্ছে দাবি করে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ও চিকিৎসক এ জেড এম জাহিদ হোসেন বলেন, খালেদার ব্লাড সুগার ১৪তে উঠে গেছে। এটাকে বিএসএমএমইউয়ের চিকিৎসকরা বলছেন, স্বাভাবিক। তিনি হাঁটতে পারেন না। বাঁ হাতে কিছু ধরতে পারেন না। কিন্তু তারা বলছেন, সুস্থ আছেন। চিকিৎসকরা পেশাগত দায়িত্ব পালন করতে পারছেন না বলে অভিযোগ করেন তিনি।
সংবাদ সম্মেলনে আরো উপস্থিত ছিলেন, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদ, ড. আব্দুল মঈন খান, আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী, ভাইস চেয়ারম্যান ডা. এজেডএম জাহিদ হোসেন, সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুস সালাম আজাদ প্রমূখ।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
Kazi
৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯, সোমবার, ১২:৫৫

I am much younger than madame, living in Canada. Medical is free. But I couldn't avoid the effect of age. Suffering from different diseases. Do they think madam health should be like her young life ?

অন্যান্য খবর