× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯, সোমবার
সংবাদ সম্মেলনে মিসবাহ

রাজনগর আওয়ামী লীগের বৈধ সভাপতি আমি

বাংলারজমিন

রাজনগর (মৌলভীবাজার) প্রতিনিধি | ১৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, শুক্রবার, ৭:৪৩

 মৌলভীবাজারের রাজনগর উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি মো. মিসবাহুদ্দোজা নিজেকে বৈধ সভাপতি দাবি করেছেন। গতকাল রাজনগর প্রেস ক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে তিনি জেলা আওয়ামী লীগের দেয়া অব্যাহতি পত্রকে অবৈধ ও নিজেকে বৈধ সভাপতি দাবি করেন। এদিকে একই দিন (১২ই সেপ্টেম্বর) কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. ওবায়দুল কাদের স্বাক্ষরিত কারণ দর্শানোর একটি চিঠিকে তিনি প্রমাণ হিসেবে উপস্থাপন করেন। সংবাদ সম্মেলনে মো. মিছবাহুদ্দোজা লিখিত বক্তব্য পেশ করেন। লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, তিনি দীর্ঘ ২৫ বছর ধরে সুনামের সঙ্গে রাজনগর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতির দায়িত্ব পালন করছেন। গত ২৭শে আগস্ট কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের নির্দেশনা ছাড়া মৌলভীবাজার জেলা আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে তাকে সভাপতির পদ থেকে অব্যাহতি পত্র দেয়া হয়। জেলার সেই চিঠি নিয়ে তিনি গত ৩রা সেপ্টেম্বর কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের সঙ্গে দেখা করেন। কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক তাকে আশ্বস্ত করে বলেছেন, জেলা আওয়ামী লীগের দেয়া অব্যাহতি পত্রটি সঠিক নয় এবং তা কার্যকরও নয়। গঠনতন্ত্র অনুযায়ী আওয়ামী লীগের সভাপতি ব্যতীত কোনো ব্যক্তিকে পদ হতে অব্যাহতি কিংবা অপসারণের এখতিয়ার কারো নেই। সেই হিসেবে তিনিই রাজনগর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হিসেবে এখন বহাল আছেন। মো. মিসবাহুদ্দোজা জানান, আগামী ১৪ই সেপ্টেম্বর রাজনগর উপজেলা আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভায় সভাপতি হিসেবে তাকে আমন্ত্রণ জানানো হলে তিনি সেই সভায় অংশ নেবেন এবং পরবর্তীতে সভাপতি হিসেবে কাউন্সিলে প্রার্থীও হবেন। অন্যতায় তিনি পৃথক বর্ধিত সভা করে করণীয় নির্ধারণ করবেন। এদিকে গত ৮ই সেপ্টেম্বর কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের স্বাক্ষরিত একটি কারণ দর্শানোর চিঠি গতকাল হাতে পান মো. মিসবা্‌হুদ্দোজা। চিঠিতে উল্লেখ করা হয়, ‘সম্প্রতি অনুষ্ঠিত উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থীর বিরুদ্ধে প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশগ্রহণ ও নানাবিধ তৎপরতাসহ সংগঠনের শৃঙ্খলা বিরোধী ও গঠনতন্ত্র পরিপন্থী কর্মকাণ্ডে লিপ্ত থাকার লিখিত অভিযোগ পাওয়া গেছে। সে কারণে গঠনতন্ত্রের ৪৭ (ক) ধারা অনুযায়ী কেন সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়া হবে না তা ২১ কার্যদিবসের মধ্যে আওয়ামী লীগের সভাপতির ধানমণ্ডিস্থ রাজনৈতিক কার্যালয়ে প্রেরণ করার নির্দেশ দেয়া হয়। এই পত্রকে তিনি বৈধ সভাপতি আছেন- প্রমাণ হিসেবে উপস্থাপন করেন। সংবাদ সম্মেলনকালে উপস্থিত ছিলেন, রাজনগর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি গোলাম মওলা লুকু, ফতেহপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শেখ আবুল হোসেন, সহ- সভাপতি ফজর আলীসহ বিভিন্ন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ।

এদিকে জেলা আওয়ামী লীগের অব্যাহতির সিদ্ধান্ত সম্পর্কে মৌলভীবাজারের জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. মিসবাউর রহমান জানান, কেন্দ্রের সিদ্ধান্ত কেবল তাকে অবগত করা হয়েছে। এতে জেলার কোনো সিদ্ধান্ত নেই।




অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর