× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার মন ভালো করা খবর
ঢাকা, ২১ অক্টোবর ২০১৯, সোমবার

ঢাবি ক্যাম্পাসে ভূত তাড়ানোর মিছিল

অনলাইন

স্টাফ রিপোর্টার | ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯, রবিবার, ৬:৪৬

পরীক্ষা ছাড়া ভর্তি হয়ে ডাকসু নেতা ও রোকেয়া হলের নিয়োগ বাণিজ্যের অভিযোগ ওঠার পর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে ‘দুর্নীতি ও জালিয়াতির বিরুদ্ধে কর্মসূচি পালন করছে বেশ কয়েকটি সংগঠনের নেতাকর্মীরা।
আজ দুপরে বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি থেকে মিছিলটি বের হয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাস ঘুরে ডাকসু ভবনের সামনে এসে শেষ হয়। এসময় বেশ কয়েকজন শিক্ষার্থী বেশ ভূষায় ভূতের আকৃতি ধারণ করেন। প্লাকার্ডে ভিসি-ডিন ও প্রভোস্টের প্রতিকৃতি অঙ্কন করে সেখানে ধোঁয়া দিয়ে ভূত তাড়াবো, ভূত তাড়াবো, ঢাবি ভিসির ভূত তাড়াবো, ডিনের ভূত তাড়াবো, জিনাত হুদার ভূত তাড়াবো’ স্লোগান দিতে থাকেন। ভিসি অধ্যাপক ড. আখতারুজ্জামান, বাণিজ্য অনুষদের ডিন অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াতুল ইসলাম ও রোকেয়া হলের প্রভোস্ট অধ্যাপক জিনাত হুদার পদত্যাগ চেয়ে তারা ‘দুর্নীতির ভূত তাড়াও’ শিরোনামে মিছিল করেন তারা।
সমাবেশ ছাত্র ইউনিয়নের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সংসদের সাধারণ সম্পাদক রাগীব নাঈম বলেন, আমরা এই কর্মসূচির মধ্য দিয়ে দুর্নীতি ও জালিয়াতির ভূত তাড়াতে সক্ষম হইনি। এই ভূত তাড়াতে হলে আন্দোলনের কোনো বিকল্প নেই। বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের আহ্বায়ক হাসান আল মামুন বলেন, দুর্নীতি ও জালিয়াতির বিরুদ্ধে আমরা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা এখানে জড়ো হযয়েছি।
জালিয়াতির যে ভূত প্রশাসনের উপর ভর করেছে সে ভূত তাড়ানোর জন্য আজ আমরা এ বিক্ষোভ মিছিল করেছি। এর মাধ্যমে আমরা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি এবং বাণিজ্য অনুষদের ডিনসহ রোকেয়া হলের প্রভোস্ট জিনাত হুদার পদত্যাগ দাবি করছি। সমাবেশ থেকে তিনটি দাবি জানানো হয়।
দাবিগুলো হলো- যারা অবৈধভাবে ভর্তি হয়েছেন তাদের ছাত্রত্ব ও ডাকসুর পদ বাতিল করে স্থায়ীভাবে বহিষ্কার করে খালি পদগুলোতে দ্রুত উপ-নির্বাচন দেয়া, ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদের ডিন অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াতুল ইসলাম ও বিশ্ববিদ্যালয় উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামানের পদত্যাগ ও রোকেয়া হলের প্রভোস্টের পদত্যাগ।
এসময় অন্যান্যে মধ্যে বক্তব্য রাখেন ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের আহ্বায়ক হাসান আল মামুন, স্বতন্ত্র জোটের সংগঠক চয়ন বড়ুয়া ও ছাত্র ফেডারেশনের সহ-সভাপতি ইশতিয়াক মাহমুদ।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
Kazi
১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯, রবিবার, ১১:৫৫

যদি ঢাকসু নির্বাচনের মাধ্যমে গঠিত কমিটি কিন্তু ছাত্র ঐক্য পরিষদের কমিটি তার চেয়ে স্বচ্ছ কমিটি মনে হচ্ছে। ঢাকসুতে অছাত্র অন্তর্ভুক্ত কিন্তু এতে অছাত্রের অস্তিত্ব নাই।

অন্যান্য খবর