× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার মন ভালো করা খবর
ঢাকা, ১৫ অক্টোবর ২০১৯, মঙ্গলবার

পটুয়াখালীতে হত্যা মামলার আসামি গ্রেপ্তার দাবি

বাংলারজমিন

পটুয়াখালী প্রতিনিধি | ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯, সোমবার, ৭:৫২

 পটুয়াখালীর বাউফলে হত্যা মামলার প্রধান আসামি জোবায়ের হোসেন জামসেদকে গ্রেপ্তার ও বিচার দাবিতে পটুয়াখালী প্রেস ক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করেছে নিহতের পরিবার ও স্বজনরা। গতকাল সকাল ১১টায় সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন নিহত নুরুল ইসলামের বড়ছেলে মো. মনিরুল ইসলাম। তিনি বলেন, আমাদের বাড়ি বাউফল উপজেলার ইন্দ্রকুল গ্রামে। আমাদের একই বাড়ির নাসির উদ্দিন ও তার ভাই বাহাউদ্দিন বাবুলের সঙ্গে জমিজমা নিয়ে বিরোধ চলে আসছিল। এ বিরোধকে কেন্দ্র করে ২৩শে আগস্ট দুইভাই নাসির উদ্দিনগং ও তার ভাই বাহাউদ্দিন বাবুলগংদের মধ্যে মারামারি হয়। এতে দুইপক্ষের মোট ১০ জন আহত হন। এ ঘটনায় ২৪শে আগস্ট বাউফল থানায় নাসির উদ্দিনের পক্ষে তার মেয়ে নাইমা আক্তার দোলন, নুর ইসলাম হাওলাদারকে সাক্ষী করে মামলার প্রস্তুতি নেয়। পুলিশের হস্তক্ষেপে স্থানীয়ভাবে সালিশ বিচারেরা কথা হলে মামলা করা থেকে বিরত থাকেন দোলন।
নুরুল ইসলাম হাওলাদার সাক্ষী হওয়ার কথা শুনে বাহাউদ্দিন বাবুল ও তার ছেলে জোবায়ের হোসেন জামসেদগং ক্ষিপ্ত হয়। বাউফল হাসপাতালে চিকিৎসারত অবস্থায়- জামসেদ, রাকিব হোসেন, মাসুদ আকন, বাহাউদ্দিন বাবুল, ইউসুফ হাওলাদারসহ ৭-৮ জন সাক্ষী নুরুল ইসলাম হাওলাদারকে খুনের পরিকল্পনা করে হাসপাতাল থেকে পালিয়ে যায়। পরে দেশীয় তৈরি ধারালো অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে বাড়িতে গিয়ে নুরুল ইসলাম হাওলাদারকে কুপিয়ে ও পিটিয়ে গুরুতর জখম করে। স্থানীয়রা উদ্ধার করে তাকে বাউফল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন। অবস্থার অবনতি হলে উন্নত চিকিৎসার জন্য নুরুল ইসলামকে বরিশাল শেরেবাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। এ ঘটনায় ২৬শে আগস্ট নুরুল ইসলামের মেয়ে সালমা সুলতানা বাদী হয়ে- জোবায়ের হোসেন জামসেদ, রাকিব হোসেন, মাসুদ আকন, বাহাউদ্দিন বাবুল, ইউসুফ হাওলাদার, নাছিমা বেগম, মমতাজ বেগমকে আসামি করে বাউফল থানায় একটি মামলা করেন। মামলা নং-৪০, জিআর ২৬৬/৩০২। এ মামলার পর ১লা সেপ্টেম্বর আনুমানিক রাত ১১টার সময় বরিশাল মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসরত অবস্থায় নুরুল ইসলাম হাওলাদারের মৃত্যু হয়। এ মামলায় প্রধান আসামি ব্যতীত অন্য আসামিরা আদালতে হাজির হলে আদালত বাহাউদ্দিন বাবুলকে জামিন দিয়ে- রাকিব হোসেন, মাসুদ আকন, ইউসুফ হাওলাদারকে জেলে প্রেরণ করেন।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর