× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার মন ভালো করা খবর
ঢাকা, ২৩ অক্টোবর ২০১৯, বুধবার

এ কেমন মা-বাবা!

দেশ বিদেশ

স্টাফ রিপোর্টার | ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯, সোমবার, ৯:০৩

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নবজাতক কন্যাকে রেখে পালিয়েছেন মা-বাবা। শিশুটি বর্তমানে নবজাতকদের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (এনআইসিইউ) ভর্তি আছে। শুক্রবার ভোরে ঢামেক হাসপাতালে সিজারের মাধ্যমে ওই শিশুর জন্ম হয়। শনিবার রাত থেকে শিশুটির মা-বাবাকে খুঁজে পাচ্ছে না হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। হাসপাতাল সূত্র জানায়, শিশুটি জন্মের পর থেকেই ১০৬ নম্বর ওয়ার্ডের অতিরিক্ত বিছানায় চিকিৎসাধীন ছিল। নবজাতকটির সঙ্গে তার বাবা ও মা ছিলেন। ওই বেডের পাশে থাকা রোগীর স্বজনরা জানান, মা-বাবার ঝগড়ার জের ধরে তারা নবজাতকটিকে হাসপাতালে রেখে চলে গেছেন। ঢামেক হাসপাতাল পুলিশ ক্যাম্পের সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) আবদুল খান বিষয়টি গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন।
হাসপাতালে ভর্তি রেজিস্টার সূত্রমতে, নবজাতকটির মায়ের নাম নাহার, বাবার নাম রাসেল। তাদের বাসা মিরপুরে। ঢামেক হাসপাতালের সহকারী পরিচালক ডা. নাছির উদ্দিন জানান, নবজাতকের অবস্থা মোটামুটি ভালো। সে সুস্থ আছে। তার প্রতি আলাদা দৃষ্টি আছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের। যত প্রকার সহযোগিতা দরকার শিশুটির জন্য তার সবগুলোই করছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। এছাড়া পুলিশকে অবগত করা হয়েছে। ফেলে যাওয়া নবজাতকের নাম রাখা হয়েছে সারা। গতকাল শাহবাগ থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করা হবে। শিশুটির যদি কোনো অভিভাবক না আসে, তাহলে সমাজকল্যাণের মাধ্যমে আইনি প্রক্রিয়া শেষে তাকে ছোটমনি নিবাসে দিয়ে দেয়া হবে। এখন নবজাতককে কৌটার দুধ খাওয়ানো হচ্ছে। গতকাল দুপুরে হাসপাতালের নবজাতক বিভাগের বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক ডাক্তার মনিষা ব্যানার্জি বলেন, নবজাতকটিকে এখন এনআইসিইউতে রাখা হয়েছে। নবজাতকটি ভালো আছে। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের দেয়া কৌটার দুধ শিশুকে খাওয়ানো হচ্ছে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর