× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার মন ভালো করা খবর
ঢাকা, ২৩ অক্টোবর ২০১৯, বুধবার

হাসি হত্যার লোমহর্ষক বর্ণনা প্রাক্তন স্বামীর

অনলাইন

রুদ্র মিজান | ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯, সোমবার, ২:০২

প্রাক্তন স্ত্রী হাসি আক্তার হত্যার লোমহর্ষক বর্ণনা দিয়েছে সোহেল রানা। প্রেম করে সোহেলকে বিয়ে করেছিলেন হাসি। কিন্তু সোহেলের অত্যাচার-নির্যাতনে কয়েক মাসেই দূরত্ব সৃষ্টি হয়। আলাদাভাবে বাঁচার চেষ্টা করেন। সোহেলকে ডিভোর্স দিয়ে একটু সুখ খুঁজছিলেন তিনি। চাকরিও নিয়েছিলেন। সময়গুলো ভালোই কাটছিলো। কিন্তু হাসিকে হাসিখুশিভাবে বাঁচতে দেয়নি সোহেল।
দানব রূপে হাজির হয়েছিলো তার কাছে। তারপর কেড়ে নেয় হাসির প্রাণ। বেদম মারধরে অজ্ঞান হয়ে ফ্লোরে পড়ে গেলেও মায়া হয়নি সোহেলের। ইট দিয়ে মাথায় আঘাত করে হত্যা করা হয় হাসিকে। চাঞ্চল্যকর হাসি আক্তার হত্যা মামলার আসামি সোহেলকে রোববার সন্ধ্যায় গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব-৪। কুমিল্লা শহরের ধর্মসাগর এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেপ্তারের পর র‌্যাবের কাছে হত্যাকাণ্ডের বর্ণনা দিয়েছে সোহেল।

র‌্যাব জানিয়েছে, গত ১লা মে হাসিকে হত্যা করে সোহেল। ওই দিন সকাল সাড়ে ৮টায় হাসির ভাড়া বাসায় জোর পূর্বক প্রবেশ করে সে। হাসির কাছে টাকা দাবি করে। টাকা দিতে অস্বীকার করলে বেদম মারধর করে হাসিকে। চোখে এবং মাথার মারাত্বক আঘাত প্রাপ্ত হয়ে অজ্ঞান হয়ে ফ্লোরে পড়ে যান হাসি। সোহেলের পা ধরে জীবন ভিক্ষা চান। বাঁচার আকুতি জানান। কিন্তু মন গলে না সোহেলের। হাসির চুল ধরে

ফ্লোরের টাইলসের সঙ্গে উপর্যুপরি মাথায় আঘাত করতে থাকে। একপর্যায়ে খাটের নীচে থাকা ইট দিয়ে মাথা থেঁতলে দেয়। এক পর্যায়ে আশপাশের লোকজন গুরুতর রক্তাক্ত অবস্থায় শহীদ সোহরাওয়ার্দী হাসপাতলে ভর্তি করে তাকে। অবশেষে নিউরোলজী সায়েন্সের আইসিওতে লাইফ সাপোর্টে ছয় দিন মৃত্যুর সঙ্গে লড়ে গত ৭ ই মে মারা যান হাসি।

হত্যাকাণ্ডের চার মাস আগে সোহেল রানার সঙ্গে বিয়ে হয় হাসি আক্তারের।বিয়ের পর পারিবারিক বিভিন্ন বিষয় নিয়ে সোহেলসহ তার পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে মনোমালিন্য দেখা দেয় হাসির। শারীরিক ও মানসিক নির্যাতনের শিকার হন তিনি। বাধ্য হয়েই হত্যাকাণ্ডের দুই মাস আগে সোহেলকে ডিভোর্স দেন।

বিবাহ বিচ্ছেদের পরে হাসি আক্তার মানসিক বিপর্যস্ত হয়ে পড়েন। তারপরও বেঁচে থাকার তাগিদে তিনি একটি এনজিওতে চাকরি নেন। সাভার থানার আমীন বাজারের শিবপুরে নাজিম উদ্দিনের বাড়িতে ভাড়াটিয়া হিসেবে বসবাস শুরু করেন। ডির্ভোস হলেও হাসির সঙ্গে সম্পর্ক ধরে রাখতে নানা কৌশল অবলম্বন করে সোহেল। অফিসে যাওয়া আসার পথে উত্যক্ত করে তাকে। এমনকি টাকাও দাবি করে। এসব বিষয়ে কঠোর হলে হাসিকে হত্যার পরিকল্পনা করে সোহেল। অবশেষে বাসায় গিয়ে হাসিকে হত্যা করে সে।

এ ঘটনায় হাসির মা বাদি হয়ে সাভার থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। মামলা দায়েরের পর পলাতক সোহেল রানাকে অবশেষে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব।গ্রেপ্তার সোহেল রানা ব্রাহ্মনবাড়ীয়া জেলার নবীনগর থানার বিদ্যাকুট গ্রামের আবুল কাশেমের পুত্র।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
সুমন
১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯, সোমবার, ৪:৪৬

আর কত এভাবে জীবন দিতে হবে! ওদের কি একটু চিন্তাও হয়না পরে কি হবে?

অন্যান্য খবর