× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার মন ভালো করা খবর
ঢাকা, ২১ অক্টোবর ২০১৯, সোমবার

ঔষধ না থাকায় চিকিৎসককে জুতা নিক্ষেপ

অনলাইন

নওগাঁ প্রতিনিধি | ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯, সোমবার, ৮:৩২

নওগাঁর ধামইরহাটে বহির্বিভাগে চিকিৎসা নিতে আসা রোগী কর্তৃক চিকিৎসককে জুতা ছুঁেড় মারার ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় থানায় অভিযোগ ও লাগাতার কর্মবিরতি ঘোষণা করেছে ধামইরহাট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স। আজ সকাল সাড়ে ১১ টায় হাসপাতালের আউটডোরে এই ঘটনা ঘটে। এই ঘটনায় হাসপাতালের স্বাস্থ্য প্রশাসক ডা. আসাদুজ্জামান বাদী হয়ে ধামইরহাট থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন।

ভুক্তভোগী চিকিৎসক ধামইরহাট হাসপাতালের উপ-সহকারী কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার (স্যাকমো) চিকিৎসক কাজী ফজলে রাব্বী শিহাব জানান, উত্তর চকযদু গ্রামের আবুল কাশেমের ৩ মেয়ে হাসপাতালে লাইন ছাড়াই চিকিৎসকের রুমে ঢুকে পড়ে। এ সময় চিকিৎসক কাজী ফজলে রাব্বী শিহাব বলেন, লাইন ভেঙ্গে এভাবে জোড় করে প্রবেশ করা ঠিক নয়, এ কথা বলাতে রোগী জান্নাতুন বলেন, ‘আমাদের চিনেন, আমাদের পাওয়ার কত জানেন, এখনই ঔষধ লিখে দিতে হবে’ তাদের মারমুখী অবস্থান দেখে পরিবেশ স্থিতি রাখতে চিকিৎসক তাদের সমস্যার কথা জানতে চাইলে রোগী জান্নাতুন বলেন, আমাকে কৃমির ঔষধ দেন, কৃমির ঔষধ সাপ্লাই নাই বলাতে তিনি ক্ষিপ্ত হয়ে গালাগালাজ করেন এবং এক পর্যায়ে পা থেকে জুতা খুলে চিকিৎসক কাজী ফজলে রাব্বী শিহাবকে ছুঁেড় মারেন। এ সময় চিকিৎসক কর্তৃপক্ষকে বিষয়টি জানাতে গেলে অন্যান্য রোগীদের রোষানল থেকে বাঁচতে বিশৃঙ্খলাকারী জান্নাতুন ও তার ২ বোন পালিয়ে যায়।

ধামইরহাট উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা অফিসার ডা. আসাদুজ্জামান আজ বিকেল ৩ টায় জরুরী ভিত্তিতে সকল চিকিৎসক-কর্মচারীদের নিয়ে জরুরী আলোচনায় জানান, আমরা চিকিৎসরা সেবার মন মানসিকতা নিয়ে ডাক্তারি পেশায় নিয়োজিত আছি, কিন্তু আমাদের উপর এমন নেক্কার জনক হামলা, জুতা ছুড়ে মারা আমরা বরদাস্ত করবনা, এই ঘটনায় সুরাহা ও উপযুক্ত শাস্তির ব্যবস্থা না করা পর্যন্ত আমরা অনির্দিষ্টকালের জন্য আউটডোরে ১১ টা থেকে ১২ টা পর্যন্ত প্রতিদিন ১ ঘণ্টার কর্মবিরতি চলমান থাকবে।

ধামইরহাট উপজেলার ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী অফিসার মাসুম আলী বেগ জানান, হাসপাতালে ঔষুধ সাপ্লাই নেই জন্য চিকিৎসককে বিনা অপরাধে জুতা পেটা করতে এমন নাক্কার জনক ঘটনা মেনে নেয়া হবেনা, অপরাধীদের দ্রুত আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে, এবং আসামীদের দ্রুত গ্রেপ্তারে থানা পুলিশকে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

ধামইরহাট থানার ওসি জাকিরুল ইসলাম বলেন, অভিযোগ পেয়েছি, দ্রুত আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
কায়সার
১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯, সোমবার, ৮:১০

চিকিৎসককে জুতা মারা মস্ত বড় অপরাধ। কিন্তু সরকার বলছে দেশ খুব উন্নত হয়েছে, অথচ হাস্পাতালে কৃমির ঔষধ নাই তা কি মেনে নেয়া যায়?

অন্যান্য খবর