× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার মন ভালো করা খবর
ঢাকা, ১৫ অক্টোবর ২০১৯, মঙ্গলবার

ইতালিতে বাংলাদেশি যুবকের সততা

এক্সক্লুসিভ

মানবজমিন ডেস্ক | ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯, বুধবার, ৭:৪৯

ইতালির রোমে সততার প্রমাণ দিলেন এক বাংলাদেশি যুবক মোহসেন রাসেল (২৩)। তিনি রোমের রাস্তায় একটি ওয়ালেট পেয়েছিলেন। তার ভেতর ছিল দুই হাজার ইউরো। বাংলাদেশি টাকায় যার পরিমাণ প্রায় দুই লাখ টাকা। রাসেল ওই টাকা নিজের পকেটে না ভরে খুঁজে বেরিয়েছেন এর মালিককে। অবশেষে তাকে খুঁজে পেয়ে তুলে দেন তার হাতে। এ সময় মালিক খুশি হয়ে তাকে পুরস্কৃত করার সিদ্ধান্ত নেন। কিন্তু পুরস্কারের অর্থ নিতে অস্বীকৃতি জানান রাসেল।
এ খবর দিয়েছে অনলাইন বিবিসি। ঘটনাটি শুক্রবারের। এদিন ইতালির রাজধানী রোমের ফুটপাথে একটি ওয়ালেট খুঁজে পান রাসেল। তিনি সরাসরি চলে যান পুলিশে। পরে পুলিশই ওই ওয়ালেটের মালিককে খুঁজে বের করে। তার হাতে নিজের অর্থ তুলে দেয়ার জন্য ছোট্ট একটি অনুষ্ঠানের আয়োজন করে পুলিশ। সেখানে ডাকা হয় রাসেলকে। রাসেল নিজের হাতে ওই ইউরো তুলে দেন মালিকের হাতে। এ সময় তার সততার জন্য ধন্যবাদ জানানো হয়। জবাবে রাসেল বলেন, আমি তো বড় কোনো কিছু করে বসিনি। ব্যতিক্রমী কিছুও করিনি। স্রেফ ওই অর্থটা আমার ছিল না। তাই এর মালিকের হাতে তুলে দিতে পেরে ভালো লাগছে। ওয়ালেটের ভেতর কত ইউরো ছিল তা আমি জানতাম না। কারণ, গুণে দেখিনি। যেভাবে পেয়েছিলাম, ঠিক সেভাবেই পুলিশের কাছে নিয়ে গিয়েছি। আমি সৎ থাকতে চেয়েছি। আমার পরিবারের কাছ থেকে শিখেছি এই সততা। ওই ওয়ালেটের ভেতর শুধু ইউরোই ছিল এমন না। ছিল বেশ কয়েকটি ক্রেডিট কার্ড, একটি ড্রাইভিং লাইসেন্স, ব্যক্তিগত পরিচয়পত্রের ডকুমেন্টস। বাংলাদেশি যুবক রাসেল মধ্য রোমে একটি ছোট্ট দোকান চালান। এই শহরেই সাত বছর ধরে তার বসবাস। তিনি যে ওয়ালেট পেয়েছেন তার মালিক স্থানীয় একজন ব্যবসায়ী। রাসেল বলেছেন, যদি তিনি একবার তার দোকান দেখতে যেতেন! হ্যাঁ, রাসেলের খায়েস পূরণ করেছেন ওই ব্যবসায়ি। এখন তিনি রাসেলের দোকানের নিয়মিত একজন কাস্টমার।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
omar faruque
১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯, মঙ্গলবার, ১২:২১

হা আমিও বাজারে ব্যবসা করতে গিয়ে অনেক পেয়ে, ফেরত ও দিয়েছি।ওরা বাংলাদেশের লোক দের ভালোবাসে,পাওয়া টাকা খাওয়া হারাম মনে করি আমরা,কিন্তু অন্য জাতি মরক্কোর লোক,আফ্রিকার লোক , এই টাকা ফেরত দিত না,ওরা বলে "পরতফুরতুনা" ইটালির ভাষা, God gifte, এখন একটু ,,,,, তাও ভালো,,হায়রে আমার দেশ দুর্নীতিগ্রসত দুঃখ লাগে।

অন্যান্য খবর