× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার মন ভালো করা খবর
ঢাকা, ২৩ অক্টোবর ২০১৯, বুধবার

বিয়ানীবাজার স্থলবন্দরের প্রাণিসম্পদ অফিসের নামফলকে ভারতীয় ঠিকানা

বাংলারজমিন

মিলাদ জয়নুল, বিয়ানীবাজার (সিলেট) থেকে | ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯, বুধবার, ৮:৫০

বিয়ানীবাজারের শেওলা স্থলবন্দর বাংলাদেশ সীমান্তে অবস্থিত। একটু দূরে নতুনভাবে নির্মিত হয়েছে প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তর। এটির অবস্থানও বাংলাদেশ সীমান্তে। এপারে বাংলাদেশ সীমান্তকে বলা হয় শেওলা আর ওপারে ভারতীয় সীমান্তকে বলা হয় সুতারকান্দি।  
বিস্ময়কর হলেও সত্য, বাংলাদেশ সীমান্তের প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের ঠিকানায় লেখা হয়েছে সুতারকান্দি স্থলবন্দর। কি কারণে, কেন এমন হলো, এর উত্তর নেই কারো কাছে। উল্টো প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের কর্মকর্তাদের এ নিয়ে কোনো অনুশোচনা নেই। সরজমিন দেখা যায়, শেওলা স্থলবন্দরে প্রাণিসম্পদ কোয়ারেনটাইন স্টেশন নির্মাণের পর ভবনের প্রধান ফটকে ভারতীয় স্থলবন্দরের ঠিকানা যুক্ত করেছে প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তর।
ভিত্তিপ্রস্তর ফলকসহ যাবতীয় কাগজপত্রে শেওলা না লিখে সুতারকান্দি স্থলবন্দর লেখা রয়েছে। এ নিয়ে বন্দর ব্যবহারকারী ব্যবসায়ী, স্থানীয় বাসিন্দারা ক্ষোভ প্রকাশ করে প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের দায়িত্বশীল কর্মকর্তাদের অসচেতনতাকে দায়ী করেছেন। নাম বিভ্রাটের বিষয়টি ধরা পড়ে গতকাল বিজিবি-বিএসএফ পতাকা বৈঠকের প্রেস বিজ্ঞপ্তি দেখে। দুই দেশের সীমান্ত বাহিনী সৌজন্য সাক্ষাৎ শেষে প্রাণিসম্পদ কোয়ারেনটাইন স্টেশনের সভাকক্ষে বৈঠক করে। গণমাধ্যমে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) ৫২ ব্যাটালিয়নের দেয়া প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে প্রাণিসম্পদ কোয়ারেনটাইন স্টেশন সুতারকান্দি স্থলবন্দর উল্লেখ করা হলে তথ্য বিভ্রাট দেখা দেয় সাংবাদিকদের মধ্যে। শেওলা স্থলবন্দর ব্যবহারকারী কয়লা ব্যবসায়ী জাহেদ ইকবাল বলেন, শুল্ক স্টেশন, ইমিগ্রেশনসহ সব জায়গায় শেওলা লেখা থাকলেও প্রাণিসম্পদ কোয়ারেনটাইন স্টেশনে সুতারকান্দি লেখা রয়েছে। ফলে অনেকের কাছে প্রশ্ন দেখা দেয় ভবনটি বাংলাদেশের না ভারতের। এটা দায়িত্ব্বশীলদের খামখেয়ালীপনার কারণে হয়েছে। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তর থেকে নির্মিত এ কোয়ারেনটাইন স্টেশনের গোড়াতেই গলদ রয়েছে। ডিও লেটার থেকে শুরু করে একনেকে অনুমোদন পর্যন্ত প্রাণিসম্পদ কোয়ারেনটাইন স্টেশন নির্মাণের প্রতিটি পদক্ষেপে দায়িত্বশীলরা শেওলা স্থলবন্দরের স্থলে সুতারকান্দি স্থলবন্দর নাম ব্যবহার করেছেন। অথচ বাংলাদেশের শেওলা স্থলবন্দরের ওপাশে ভারতের সুতারকান্দি স্থলবন্দর। উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. রঞ্জিত কুমার আচার বলেন, ভবন নির্মাণের শুরুতে আমাদের কাছে ভুলটি ধরা পড়ে। বিষয়টি একাধিকবার ঊর্ধ্বতন দায়িত্বশীলদের অবহিত করা হয়েছিল।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কাজী আরিফুর রহমান বলেন, আসলে এটি অনিচ্ছাকৃত ভুল। লোকমুখে শুনে হয়তো দায়িত্বশীলরা এমনটি করেছেন। এটি সংশোধন করার জন্য দায়িত্বশীলদের অবহিত করা হয়েছে। এ বিষয়ে দায়সারা ভাব দেখান জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. আতিয়ার রহমান। শেওলা স্থলবন্দরের জায়গায় সুতারকান্দি স্থলবন্দর লেখায় কোনো সমস্যা হয়নি বলে মন্তব্য করেন তিনি। বিষয়টি অমার্জনীয় উল্লেখ করে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব ড. একেএম মনিরুল হক বলেন, বিষয়টি গুরুত্ব সহকারে দেখা হবে এবং দ্রুত সময়ের মধ্যে সংশোধন করা হবে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
মোহাম্মদ আবু ইউসুফ
১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯, বুধবার, ১০:২৪

সংবাদটি পড়ার শেষ পর্যায় দেখলাম উপজেলা কর্মকর্তা হিন্দু, তাই এমনতো হতেই পা। বাংলাদেশের নাগরিক এবং এদেশে চাকুরী করলেও এদেশের ৯৫% হিন্দুর আয়ের অংশ ইন্ডিয়ায় চলে যায়। তাই বলবো হিন্দু কর্মকর্তা সাংবাদিকদের কাছে মুখে যাই বলুক, আসলে সে অনুতপ্ত নয়। আজ মেজরিটি মুসলমানদের দেশে মুসলমান নির্যাতিত।

Helal shah
১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯, মঙ্গলবার, ২:২৯

বিয়ানীবাজার স্থলবন্দর অফিস শ্যাওলা সীমান্ত থেকে ৩ মাইল দূরে কুশিয়ারা নদীর তীরে। ভারতের সীমান্তের সাথে যে গ্রামটি তার নাম সুতারকান্দি । এটা বাংলাদেশের অভ্যন্তরে। তাই সুতারকান্দি ভুল নয় । ভারতের ভিতরের স্থলবন্দর সুতারকান্দি কিনা তা জানিনা। এই সুতারকান্দির পার্শ্ববর্তী গ্রাম বড় গ্রাম। এগুলো থেকে বেশী দূরে নয় আমার নিজের গ্রাম। সুতারকান্দি, বিয়ানীবাজার উপজেলার গ্রাম ।তাই এটা লিখা থাকলে মহাভারত অশুদ্ধ হয়ে যায়নি?

অন্যান্য খবর