× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার মন ভালো করা খবর
ঢাকা, ২১ অক্টোবর ২০১৯, সোমবার

গাজীপুর ও নারায়ণগঞ্জে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ২

অনলাইন

অনলাইন ডেস্ক | ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯, বুধবার, ৯:৪৭

গাজিপুরের শ্রীপুরে ও নারায়ণগঞ্জ শহরের সৈয়দপুর এলাকায় র‌্যাবের সঙ্গে পৃথক ‘বন্দুকযুদ্ধে’ ২ জন নিহত হয়েছেন। র‌্যাবের দাবি, শ্রীপুরে নিহত ব্যক্তি ডাকাতদলের সদস্য। তার নাম মাসুদ পারভেজ। অন্যদিকে, নারায়ণগঞ্জে নিহত ব্যক্তির নাম তুহিন ওরফে চাপাতি তুহিন। তিনি মাদক ব্যবসায়ের সঙ্গে জড়িত ছিলেন।
 
স্টাফ রিপোর্টার, গাজীপুর থেকে জানান, শ্রীপুর উপজেলার সাতখামাইর এলাকায় র‌্যাবের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ মাসুদ পারভেজ নামে একজন নিহত হয়েছেন। নিহত পারভেজ ডাকাত দলের সদস্য। ঘটনাস্থল থেকে একটি পিস্তল, ৬টি শটগান, একটি ওয়ান শুটারগান, ১৩টি কার্তুজ ও ২ রাউন্ড গুলি উদ্ধার করা হয়েছে।
মরদেহ উদ্ধার করে শ্রীপুর থানা কমপ্লেক্সে রাখা হয়েছে। নিহত মাসুদ পারভেজ শ্রীপুর উপজেলার বরমী গ্রামের আজিজুল হকের ছেলে।

র‌্যাব -১ এর সহকারি পুলিশ সুপার কামরুজ্জামান জানান, মঙ্গলবার রাত আড়াইটার দিকে একদল ডাকাত শ্রীপুর উপজেলার সাতখামাইর এলাকায় ডাকাতির প্রস্তুতি নিচ্ছে এমন সংবাদের ভিত্তিতে র‌্যাবের টহল দল সেখানে অভিযান পরিচালনা করে। এ সময় র‌্যাবের উপস্থিতি টের পেয়ে ডাকাতদল র‌্যাব সদস্যদের লক্ষ্য করে গুলি ছুঁড়ে। র‌্যাব পাল্টা গুলি ছুঁড়লে ঘটনাস্থলে মাসুদ পারভেজ ওরফে পারভেজ ডাকাত গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা যান এবং অপর সহযোগিরা পালিয়ে যায়। গোলাগুলিতে র‌্যাবের কনস্টেবল সোহরাব আহত হন। পরে ঘটনাস্থল থেকে একটি বিদেশী পিস্তল, ৬টি শটগান, ১টি ওয়ান শুটার, ১৩টি কাতুর্জ, ২ রাউন্ড গুলি উদ্ধার করা হয়।

নিহত পারভেজের বিরুদ্ধে বিভিন্ন থানায় ১৩টি মামলা রয়েছে। এসব মামলার মধ্যে ৭টি ডাকাতি, একটি হত্যা, একটি অস্ত্র আইনে মামলাসহ মাদক ও অন্যান্য অভিযোগের মামলা রয়েছে বলে জানান তিনি।

এদিকে,  নারায়ণগঞ্জ শহরের দেওভোগ এলাকার শীর্ষ সন্ত্রাসী ও মাদক ব্যবসায়ী তুহিন ওরফে চাপাতি তুহিন র‌্যাবের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত হয়েছেন। আজ বুধবার ভোরে নারায়ণগঞ্জের সৈয়দপুর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। তিনি দেওভোগ শান্তিনগর এলাকার কাওসার হোসেনের ছেলে।

আদমজী র‌্যাব-১১-এর এএসপি মশিউর রহমান জানান, মঙ্গলবার রাতে কুমিল্লার দেবিদ্বার থেকে তুহিনকে আটক করা হয়। এরপর অস্ত্রের সন্ধানে তার দেয়া তথ্যমতে, রাতে শহরের সৈয়দপুর এলাকায় অস্ত্র ও মাদক উদ্ধার যায় র‌্যাব। এ সময় আগে থেকে ওঁৎ পেতে থাকা তুহিনের সহযোগিরা তাকে ছাড়িয়ে নিতে র‌্যাবকে লক্ষ্য করে গুলি ছোঁড়ে। এ সময় র‌্যাবও পাল্টা গুলি চালায়। দু’পক্ষের গোলাগুলির একপর্যায়ে গুলিবিদ্ধ হয়ে গুরুতর আহত হন তুহিন। পরে তাকে উদ্ধার করে নারায়ণগঞ্জ  জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। নিহতের মৃতদেহ ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে রাখা হয়েছে।

ঘটনাস্থলে তল্লাশি চালিয়ে একটি বিদেশি পিস্তল, একটি ম্যাগজিন ও তিন রাউন্ড গুলি উদ্ধার করেছে র‌্যাব।

মশিউর আরও জানান, তুহিনের বিরুদ্ধে হত্যা, মাদক ও চাঁদাবাজিসহ চারটি মামলা রয়েছে। এর আগে রাবের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত হন হাসান নামের এক সন্ত্রাসী। তুহিন ওই হাসান বাহিনীর সেকেন্ড ইন কমান্ড ছিল।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর