× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার মন ভালো করা খবর
ঢাকা, ২৩ অক্টোবর ২০১৯, বুধবার

উৎকোচের টাকা ফেরত চাওয়ায়...

বাংলারজমিন

মির্জাগঞ্জ (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি | ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯, বৃহস্পতিবার, ৮:৩৪

পটুয়াখালীর মির্জাগঞ্জে উৎকোচের টাকা ফেরত চাওয়ায় হতদরিদ্র দুলাল মুসল্লিকে পিটিয়ে হাসপাতালে পাঠিয়েছেন এক ইউপি সদস্য। ঘটনাটি ঘটেছে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় উপজেলার আমড়াগাছিয়া ইউনিয়নের শ্রীনগর গ্রামে। এ ঘটনায় মির্জাগঞ্জ থানা ও উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন দুলাল মুসল্লি।
মির্জাগঞ্জ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন দুলাল মুসল্লি বলেন, উপজেলার আমড়াগাছিয়া ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মো. সোহেল হাওলাদার আমার কাছ থেকে এক বছর আগে ভিজিডির কার্ড পাইয়ে দেয়ার আশ্বাসে ৩ হাজার টাকা নেন। কিন্তু এক বছর পেরিয়ে গেলেও ইউপি সদস্য মো. সোহেল হাওলাদার ভিজিডির কার্ড না দিয়ে নানা ভাবে টালবাহানা করতে থাকে।
ঘটনার দিন মঙ্গলবার রাতে দুলাল মুসল্লি ইউপি সদস্য মো. সোহেল হাওলাদারের কাছে সেই উৎকোচের টাকা ফেরত চাইলে ইউপি সদস্য ক্ষিপ্ত হয়ে তিনি ও তাঁর দুই সহযোগীসহ আমাকে লাঠি দিয়ে পিটিয়ে গুরুতর আহত করে। স্থানীয়রা ওই রাতেই তাকে উদ্ধার করে মির্জাগঞ্জ হাসপাতালে ভর্তি করেন। একই এলাকার বাসিন্দা হতদরিদ্র মো. বশির, মোসা. পারভিন বেগম, তাসলিমা বেগম, আনসার বিশ্বাস, রিনা বেগম, সমসের বিশ্বাস, খালেক হাওলাদার, মোসা. সালেহা বেগম, হক বিশ্বাস ও তাজনেহার বেগম অভিযোগ করে বলেন, ভিজিডি কার্ড পাইয়ে দেয়ার জন্য আমাদের কাছ  থেকে ৩ হাজার থেকে ৫ হাজার টাকা পর্যন্ত নিয়েছেন ওই ইউপি সদস্য।
টাকা নিয়েও ইউপি সদস্য আমাদের ভিজিডি কার্ড দেননি এবং টাকা ফেরত চাওয়ায় আমাদেরকে নানাভাবে ভয়ভীতি দেখায়।
ইউপি চেয়ারম্যান মো. সুলতান হোসেন বলেন, ভিজিডি কার্ড নিয়ে দরিদ্রদের সঙ্গে ইউপি সদস্য মো. সোহেল হাওলাদারের ভুল বোঝাবুঝি হয়েছে।
উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. সরোয়ার হোসেন বলেন, এ বিষয়ে একটি লিখিত অভিযোগ পেয়েছি।   পরবর্তী ব্যবস্থা নেয়ার জন্য মির্জাগঞ্জ থানাকে বলা হয়েছে।  

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর