× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার মন ভালো করা খবর
ঢাকা, ২১ অক্টোবর ২০১৯, সোমবার
বিএনপি নেতা দুদুর কুশপুত্তলিকা দাহ

‘দেশের যেখানে পাওয়া যাবে সেখানেই গণধোলাই দেয়া হবে’

দেশ বিদেশ

বিশ্ববিদ্যালয় রিপোর্টার | ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯, শুক্রবার, ৯:২৫

বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদুকে পুরো দেশে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করেছে ছাত্রলীগ। আজ থেকে দুদুকে দেশের যেখানে পাওয়া যাবে সেখানেই  গণধোলাই দেয়ারও হুমকি দিয়েছে আওয়ামী লীগের এ ছাত্র সংগঠনটি। গতকাল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সন্ত্রাসবিরোধী রাজু স্মারক ভাস্কর্যের সামনে আয়োজিত এক বিক্ষোভে এসব কথা বলেন ছাত্রলীগের নেতারা। এ সময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে কটূক্তির অভিযোগে সংগঠনটি সারা দেশে দুদুর নামে মামলা করারও ঘোষণা দেয়। অতিদ্রুত তাকে গ্রেপ্তার করে শাস্তি নিশ্চিত করতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে আহ্বান করা হয়। ঘোষণা দেয়া হয় বিএনপির নয়াপল্টনের কার্যালয় ঘেরাওয়ের। বিক্ষোভ শেষে ছাত্রলীগ শামসুজ্জামান দুদুর কুশপুত্তলিকা দাহ করে। এর আগে মধুর ক্যান্টিন থেকে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করে সংগঠনটি।
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের উদ্যোগে এ কর্মসূচি পালিত হয়। বিক্ষোভ সমাবেশে ছাত্রলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয় বলেন, কেউ যদি আমাদের নেত্রী শেখ হাসিনাকে নিয়ে কোনো ধরনের ধৃষ্টতা দেখায় তাহলে পিঠের চামড়া থাকবে না। আমরা ছাত্রলীগ জননেত্রীর ভ্যানগার্ড হিসেবে কাজ করি। কেউ যদি শেখ হাসিনাকে নিয়ে কোনো ধরনের ধৃষ্টতা দেখায় তাদেরকে আমরা বলে দিতে চাই, পিঠের চামড়া কিন্তু থাকবে না। আমাদের আবেগ নিয়ে কেউ খেলা করবেন না। বিএনপিকে ষড়যন্ত্রকারীদের দল উল্লেখ করে তিনি বলেন, বিএনপি নেতা শামসুজ্জামান দুদু ধৃষ্টতা দেখিয়েছেন, আমাদের নেত্রীকে প্রাণনাশের হুমকি দিয়েছেন। টকশোতে বসে বড় বড় কথা না বলে রাজপথে এসে মোকাবিলা করেন। বাংলাদেশ ছাত্রলীগ যতদিন বেঁচে থাকবে আমাদের নেত্রীকে কোনো ধরনের আঁচড়ও কেউ দিতে পারবে না। বুকের রক্ত ঢেলে দেব কিন্তু আমাদের নেত্রীকে কোনো ধরনের ষড়যন্ত্রে পড়তে দেব না। এ সময় ছাত্রদলের নতুন কমিটি সম্পর্কে তিনি বলেন, চল্লিশ বছরে ছয়টি সম্মেলন করেছে তারা। কোনো ধরনের গঠনতন্ত্র নেই। বুড়ো বাবাদের সংগঠন ছাত্রদল। কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য বলেন, দুদুর নামে ফৌজদারি মামলা করা হবে। ইতিমধ্যে মামলার প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। ঢাবি ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেন বলেন, ১৫ই আগস্ট নিয়ে যদি আর কোনো কটূক্তি করা হয় এবং প্রধানমন্ত্রীকে প্রাণনাশের হুমকি আসে তাহলে আমাদের বিক্ষোভ মিছিল মধুর ক্যান্টিন থেকে রাজু ভাস্কর্যে থেমে থাকবে না। আমরা তাদের নয়াপল্টন অফিস ঘেরাও করে দাঁতভাঙা জবাব দেব। ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে সাদ্দাম বলেন, ছাত্রলীগের নাম নিয়ে অন্যায় করে কেউ পার পাবে না। সবাই ছাত্রলীগের সাংগঠনিক রাজনীতি করুন। ভাইয়ের রাজনীতি বন্ধ করুন। এখানে আমাদের কারো কোনো অনুসারী নেই। সবাই বঙ্গবন্ধুর আদর্শের রাজনীতি করুন। তিনি বলেন, বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কর্মীরা যেমন হবে, নেতৃত্ব তেমন হতে বাধ্য। কর্মীদের গেস্ট রুমের নামে ছাত্রলীগ ও সাধারণ শিক্ষার্থীদের মধ্যে কোনো বিভেদ না করারও আহ্বান জানান তিনি। সমাবেশে ঢাবি ছাত্রলীগের সভাপতি সনজিত চন্দ্র দাস বলেন, শামসুজ্জামান দুদু যে দুঃসাহস দেখিয়েছে। আমরা কোথাও তার ছায়া দেখতে পেলে এর জবাব দেব। প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে যদি কোনো চক্রান্ত হয় সারা দেশ তোলপাড় করে দেব। তিনি বলেন, তারেকের বাবা ছিল বড় পাগল আর তারেক নয়া পাগল। তার ইশারাতেই পাগলের প্রলাপ করেছে দুদু।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
আকরাম
২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯, শুক্রবার, ১:১২

বাপুরা, অনেক হয়েছে। এবারে নাহয় ক্ষমতার নেশার তড়কা ছেড়ে একটু হুঁশে ফেরো। নিতান্ত গোবেচারা নিরীহ মানুষরাও সইতে সইতে এক সময় ভয়ঙ্কর হয়ে ওঠে, জানো তো?

অন্যান্য খবর