× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকরোনা আপডেটকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজান
ঢাকা, ৫ জুলাই ২০২০, রবিবার

‘বি-কিউরিয়াস’

ষোলো আনা

শাহরিয়ার মোস্তফা রোমিও | ৫ অক্টোবর ২০১৯, শনিবার, ৭:৫৭

প্রিয় শিক্ষক: সেলিম আহমেদ

ছাত্র থাকাকালীন অবস্থায় নিজেদের ব্যবহারিক জ্ঞান অর্জনে গুরুত্ব দিতে হবে। সেই সঙ্গে একটি পোর্টফোলিও তৈরি করাও গুরত্বপূর্ণ। এই পোর্টফোলিও দেখেই মূল্যায়ন করা হবে আপনাকে। এই পোর্টফোলিও হতে পারে আপনার নিজস্ব ওয়েবসাইট, ইউটিউব চ্যানেল কিংবা আপনার শিক্ষাজীবনের যে কোর্স ওয়ার্ক করেছেন তার লিংক। এই কথাগুলো বলছিলেন, সেলিম আহমেদ। তিনি মিডিয়া ইকোলজির ওপর নিউ ইয়র্ক ইউনিভার্সিটি থেকে এমএ এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সাংবাদিকতা ও গণ যোগাযোগের ওপর এমএ করেছেন। বর্তমানে ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির সাংবাদিকতা ও গণযোগাযোগ বিভাগের বিভাগীয় প্রধান ও সহযোগী অধ্যাপক হিসেবে কর্মরত আছেন।

ক্লাস রুম এবং মাঠে উভয় দিকেই স্যার এর জ্ঞান অপরিসীম।
ক্লাসে স্যার আমাদের ব্যবহারিক কাজ করতে উৎসাহ দিতেন। বলতেন ‘বি- কিউরিয়াস’। এমনকি স্যার নিজেও পছন্দ করেন, রুমে আবদ্ধ না থেকে বাইরে কাজ করতে বের হয়ে যাওয়াটা। থিউরেটিক্যাল এর সাথে প্রাক্টিক্যাল কাজ এর যে সংযোগ করে পাঠ্যক্রম এর মাঝে আমাদের যে তিনি রেখেছেন তা থেকেও আমরা শিক্ষা নিয়েছি এবং বেড়েছে এনালিটিক্যাল সেন্স। আমাদের ক্লাসরুমে সব সময় এসাইনমেন্ট, প্রেজেন্টেশনের জন্য কঠোর সময় মেইন্টেইন করাটা আমাদের শিখিয়েছেন। কঠোর পরিশ্রমের সঙ্গে সঙ্গে সময়ানুবর্তিতা মেনে চলা। শিক্ষার্থীদের থেকে পরবর্তীতে তিনি শুনতে পান তার এই উপদেশ তাদের বাস্তবিক জীবনে কাজে দিয়েছে। নতুন শিক্ষকতায় যারা আসতে চান তাদের কে তিনি বলেন, যে বিষয়ে আপনারা শিক্ষা দিতে চান সেই বিষয়গুলো সম্পর্কে ভালোভাবে জানা, এবং শিক্ষার্থীদের সেই বিষয়গুলো নেয়ার মত করে কোর্স ম্যাটেরিয়াল সাজিয়ে নেয়া। স্যার প্রতিটা ক্লাস আমাদের নিয়েছে অত্যন্ত বাস্তবিক জগতের সঙ্গে মিল রেখে, যা অনেকটা সহজ করে দিবে আমাদের পথচলা।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর