× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার মন ভালো করা খবর
ঢাকা, ১৪ অক্টোবর ২০১৯, সোমবার

আবরার হত্যা: বুয়েটের তদন্ত কমিটি

অনলাইন

অনলাইন ডেস্ক | ৯ অক্টোবর ২০১৯, বুধবার, ১০:০৫

শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ হত্যার ঘটনায় তদন্ত কমিটি গঠন করেছে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট)। মঙ্গলবার রাত ১১ টার দিকে নিজ কার্যালয় থেকে বের হয়ে যাওয়ার সময় বুয়েট ভিসি সাইফুল ইসলাম এ তথ্য জানান।

ভিসি জানান, এ ঘটনায় ছয় সদস্যের তদন্ত কমিটি করা হয়েছে। কমিটির প্রতিবেদন অনুসারেই অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে একাডেমিক শাস্তি দেয়া হবে। তবে এই কমিটিতে কে কে আছেন এবং কত কার্যদিবসের মধ্যে প্রতিবেদন জমা দেয়া হবে তাৎক্ষণিকভাবে তা জানা যায়নি।

ছাত্র রাজনীতি নিষিদ্ধ করা বিষয়ে এক প্রশ্নের উত্তরে ভিসি বলেন, শিক্ষার্থীরা যে দাবিগুলো দিয়েছে তার সঙ্গে আমরা একমত হয়েছি এবং আমরা সেভাবে ব্যবস্থা নেবো। কিন্তু সব তো একেবারে করা যাবে না, যা করার আমরা করবো। আর ক্লাস-পরীক্ষা বন্ধ থাকবে কিনা এমন প্রশ্নের উত্তরে তিনি জানান শিক্ষার্থীদের তা করা ঠিক হবে না।

এর আগে, আবরার হত্যার প্রায় ৩৬ ঘণ্টা পর মঙ্গলবার বিকেলে ক্যাম্পাসে আসেন বুয়েট ভিসি অধ্যাপক ড. সাইফুল ইসলাম। ক্যাম্পাসে এসেই তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের ডীন ও কয়েকজন বিভাগীয়  চেয়ারম্যানের সঙ্গে বৈঠক করেন। এ সময় প্রশাসনিক ভবনে ভেতর থেকে তালা দেয়া হয়।

পরে শিক্ষার্থীরাও প্রশাসনিক ভবনের বাইরে থেকে তালা দিয়ে দেন।
একপর্যায়ে বৈঠক শেষ করে ভিসি সাইফুল ইসলাম শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলেন। তাকে দাবির বিষয়ে জিজ্ঞাসা করা হলে, তিনি নীতিগতভাবে সব দাবির সঙ্গে একমত বলে জানান। কিন্তু শিক্ষার্থীরা তার বক্তব্যে সন্তুষ্ট হতে পারেননি। এ সময় তারা ভিসি অবরুদ্ধ করে রাখে। অবরুদ্ধের আড়াই ঘণ্টা পর তালা খুলে দেয় তারা।

এদিকে বুয়েট শিক্ষার্থীরা সকাল থেকেই আবরার ফাহাদ হত্যার প্রতিবাদে আন্দোলন করে আসছিল। একপর্যায়ে তারা আট দফা দাবি জানায়। পাশাপাশি দাবি না মানা পর্যন্ত সব ধরনের ক্লাস-পরীক্ষা বর্জনের ঘোষণা দিয়েছেন তারা।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
Kazi
৯ অক্টোবর ২০১৯, বুধবার, ১০:২৬

ভিসি, প্রভোষ্ট, প্রশাসন যারা টর্চার সেলের অস্তিত্ব জেনেও তার বন্ধ না করে নীরব সমর্থন করেছেন তারা অত্যাচারের পরোক্ষে সহযোগিতা করে অপরাধী । এই অপরাধীরাই তদন্ত কমিটির হর্তাকর্তা হলে কি ফলাফল হবে ? 0 ।

Mohin
৯ অক্টোবর ২০১৯, বুধবার, ১১:৪৮

সাংবাদিক ভাইদের নিকট অনুরোধ, আবরারের খুনীদের মা-বাবাদের অনুভূতি জানতে চাই। চাই তাদের পরিচয় যেন সমাজ তাদের চিনে রাখে।

অন্যান্য খবর