× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ঢাকা সিটি নির্বাচন- ২০২০ষোলো আনা মন ভালো করা খবর
ঢাকা, ১৮ জানুয়ারি ২০২০, শনিবার

‘দুদক চেয়ারম্যানের পদত্যাগ করা উচিত’

অনলাইন

স্টাফ রিপোর্টার | ১৪ অক্টোবর ২০১৯, সোমবার, ৪:৫১
ফাইল ছবি

বেসিক ব্যাংক কেলেঙ্কারির ঘটনায় মামলা না হওয়ায় দুদকের চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদের পদত্যাগ করা উচিৎ বলে মন্তব্য করেছেন সংসদ সদস্য শেখ ফজলে নূর তাপস। সোমবার দুপুরে সুপ্রিম কোর্টের অ্যানেক্স ভবনের সামনে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এই মন্তব্য করেন। ব্যারিস্টার তাপস বলেন, আদালতের নির্দেশ সত্ত্বেও বেসিক ব্যাংক কেলেঙ্কারির ঘটনায় ব্যাংকটির সাবেক চেয়ারম্যান শেখ আবদুল হাই বাচ্চুর বিরুদ্ধে মামলা করেনি দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। তাই বাচ্চুর বিরুদ্ধে মামলা না করার দায়ে সংস্থাটির চেয়ারম্যানের পদত্যাগ করা উচিত। আওয়ামী লীগের এই সংসদ সদস্য বলেন, বেসিক ব্যাংক কেলেঙ্কারির ঘটনার মামলায় বাচ্চুকে আসামি করে চার্জশিট দিতে সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের নির্দেশনা থাকলেও তা অমান্য করেছে দুদক। কী কারণে দুদক এ রকম কাজ করেছে, এটি জাতি জানতে চায়।
তিনি বলেন, বাচ্চুর বিরুদ্ধে মামলা করে তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা উচিত। জাতীয় সংসদের স্থায়ী কমিটির বিভিন্ন প্রতিবেদনে ব্যাংক কেলেঙ্কারির সঙ্গে বাচ্চুর সংশ্লিষ্টতার বিষয় উঠে এসেছে।
সরকারদলীয় এই এমপি বলেন, দুদক এখন পর্যন্ত তার (বাচ্চু) বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেয়নি। অবস্থাদৃষ্টে মনে হচ্ছে- ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে তাকে বাঁচিয়ে দেয়ার পাঁয়তারা হচ্ছে।
আমাদের মত হলো- বাচ্চু বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিলে চলমান দুর্নীতিবিরোধী অভিযান আরও সাফল্যম-িত হবে। বাচ্চুকে কারা বাঁচিয়ে দেয়ার ষড়যন্ত্র করছেন- এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ষড়যন্ত্র কারা করছে সেই প্রশ্নের জবাব দুদক চেয়ারম্যানই দিক।
এরপর তাপসের বক্তব্যের বিষয়ে দুদকের আইনজীবী খুরশীদ আলম খান সাংবাদিকদের বলেন, বেসিক ব্যাংকের দুর্নীতির চার হাজার কোটি টাকার মধ্যে দুই হাজার কোটি টাকা উদ্ধার এবং ব্যাংকটির সাবেক চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে চার্জশিট হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। দুদক চেয়ারম্যান পদত্যাগ করবেন কিনা এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, পদত্যাগ করা একান্ত তার নিজস্ব বিষয়।
 

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর