× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ঢাকা সিটি নির্বাচন- ২০২০ষোলো আনা মন ভালো করা খবর
ঢাকা, ২৭ জানুয়ারি ২০২০, সোমবার
ইউক্রেন ২-১ পর্তুগাল

ইতিহাস গড়েও আক্ষেপ রোনালদোর

খেলা

স্পোর্টস ডেস্ক | ১৬ অক্টোবর ২০১৯, বুধবার, ৯:০৫

৭০০ গোল থেকে মাত্র এক কদম দূরে ছিলেন ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো। সোমবার ইউক্রেনের বিপক্ষে ইউরো বাছাইয়ের ম্যাচে মাইলফলকটা স্পর্শ করে ফেললেন পর্তুগিজ সুপারস্টার। ক্যারিয়ারের ৯৭৩তম ম্যাচে ফুটবল ইতিহাসের ষষ্ঠ খেলোয়াড় হিসেবে ৭০০ গোল করার কীর্তি গড়লেন রোনালদো। যোগ দিলেন পেলে, ফ্রাঙ্ক পুসকাস, রোমারিও, জার্ড মুলার ও জোসেফ বিকানদের কাতারে। তবে ইতিহাস গড়েও একটা আক্ষেপ পুড়াচ্ছে রোনালদোকে। কারণ ১০ জনের ইউক্রেনের বিপক্ষেও ২-১ গোলে পরাজিত হয় তার দল। এতে ৭ ম্যাচে ১৯ পয়েন্ট নিয়ে ‘বি’ গ্রুপ থেকে প্রথম দল হিসেবে মূল পর্বে নাম লেখায় ইউক্রেন। আর ৬ ম্যাচে ১১ পয়েন্ট নিয়ে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন পর্তুগালের ভবিষ্যত অনিশ্চিত।
তাদের সমান ম্যাচ খেলে ১০ পয়েন্ট নিয়ে সার্বিয়া রয়েছে তৃতীয় স্থানে। ম্যাচের পর রোনালদো বলেন, ‘রেকর্ড ন্যাচারালি আসে। আমি রেকর্ডের পেছনে ছুটি না রেকর্ডই আমার পিছু ছুটে। এটা (৭০০ গোল) আমার ক্যারিয়ারের সুন্দর মুহূর্ত। কিন্তু তিক্ত অভিজ্ঞতা নিয়ে মাঠ ছাড়তে হলো। কারণ আমার দল ভালো খেলেও পরাজিত। আমরা আমাদের সুযোগগুলো কাজে লাগাতে পারিনি।’
কিয়েভের ন্যাশনাল স্পোর্টস কমপ্লেক্স মাঠে ২৭ মিনিটের মধ্যেই ২-০ গোলে পিছিয়ে পড়ে পর্তুগাল। ৭২তম মিনিটে পেনাল্টি পায় ইউরো চ্যাম্পিয়নরা। পর্তুগিজ উইঙ্গার ব্রুমার নেয়া শট ডিবক্সে হাত দিয়ে ঠেকান ইউক্রেনের তারাস স্টেপানেঙ্কো। সঙ্গে সঙ্গেই পেনাল্টির বাঁশি বাজান রেফারি। আর দ্বিতীয় হলুদ কার্ড (লাল কার্ড) দেখে মাঠ থেকে বহিষ্কৃত হন স্টেপানেঙ্কো। স্পটকিক থেকে আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ারের ৯৫তম গোল করে ইতিহাসের পাতায় ঠাঁই করে নেন রোনালদো। পাঁচবারের ব্যালন ডি’অর জয়ী রোনালদোর সামনে এখন জার্মান কিংবদন্তি জার্ড মুলার। ১৯৬২-১৯৮১ সাল পর্যন্ত জার্মানি ও বায়ার্ন মিউনিখের হয়ে ৭৩৫ গোল করেন মুলার। চতুর্থ স্থানে রয়েছেন ফেরেঙ্ক পুসকাস। ১৯৪৩-১৯৬৬ পর্যন্ত হাঙ্গেরি, বুদাপেস্ট হনভেড ও রিয়াল মাদ্রিদের জার্সিতে পুসকাস করেন ৭৪৬ গোল। তৃতীয় স্থানে ব্রাজিলিয়ান কিংবদন্তি পেলে। তিনবারের বিশ্বকাপজয়ী পেলে ১৯৫৭-১৯৭৭ পর্যন্ত ব্রাজিল, সান্তোস ও নিউ ইয়র্ক কসমসের হয়ে ৭৬৭ গোল করেন। দ্বিতীয় স্থানে তারই স্বদেশি রোমারিও। ১৯৮৫-২০০৭ পর্যন্ত ব্রাজিল, ভাস্কো দা গামা , পিএসভি ও বার্সেলোনার জার্সিতে রোমারিও মোট গোল ৭৭২টি। সর্বাধিক পেশাদার গোলদাতাদের তালিকায় শীর্ষে সাবেক চেকোস্লোভাকিয়ার জোসেফ বিকান। ১৯৩১-১৯৫৫ পর্যন্ত বিকান ৮০৫ গোল করেছেন ক্লাব ও জাতীয় দলের জার্সিতে। ক্লাব পর্যায়ে তিনি খেলেন রেপিড ভিয়েনা ও স্লাভিয়া প্রাগের হয়ে।
গত শুক্রবার লুক্সেমবার্গের বিপক্ষে ক্যারিয়ারের ৬৯৯তম গোল করেন রোনালদো। তবে স্পেনের ক্রীড়া দৈনিক মার্কাসহ কয়েকটি সংবাদমাধ্যম দাবি করেন এটি রোনালদোর ৭০০তম গোল। একটি গোল বাড়িয়ে বলা হয়েছে। বিতর্কিত সেই গোলটি হয়েছিল ১৮ই সেপ্টেম্বর ২০১০ সালে। সেদিন আনোয়েতায় লা লিগার ম্যাচে রিয়াল সোসিয়েদাদের মুখোমুখি হয় রিয়াল মাদ্রিদ। সে ম্যাচের এক পর্যায়ে রোনালদো ফ্রিকিক নেন। যেটি তার সতীর্থ পেপের পেছনে লেগে জড়িয়ে যায় সোসিয়েদাদের জালে। মার্কা গোলটি রোনালদোর নামে লিপিবদ্ধ করে। কিন্তু ম্যাচের দায়িত্বে থাকা রেফারি ম্যাথু লাহোজ গোলটি লিপিবদ্ধ করেন পেপের নামে।
রোনালদোর ৭০০
পর্তুগাল- ৯৫
স্পোর্টিং লিসবন- ৫
ম্যানইউ- ১১৮
রিয়াল মাদ্রিদ- ৪৫০
জুভেন্টাস- ৩২

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর