× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ঢাকা সিটি নির্বাচন- ২০২০ষোলো আনা মন ভালো করা খবর
ঢাকা, ২৭ জানুয়ারি ২০২০, সোমবার

শাহ আমনতে সাড়ে ৭ কোটি টাকার সোনা জব্দ, বিমানযাত্রী আটক

অনলাইন

অনলাইন ডেস্ক | ১৮ অক্টোবর ২০১৯, শুক্রবার, ১২:১৮

হযরত শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে এক যাত্রীর কাছে থাকা চার্জার লাইটের ভেতর থেকে ১৩০টি সোনার বার জব্দ করা হয়েছে। যার আনুমানিক বাজার মূল্য প্রায় সাড়ে ৭ কোটি টাকা। আজ সকাল ৯টার দিকে কাস্টমস কর্মকর্তারা বিপুল পরিমাণ এই সোনা জব্দ করেন।

কাস্টমস সূত্রে জানা গেছে, সকাল ৯ টার দিকে এয়ার এরাবিয়ার ফ্লাইটটি চট্টগ্রাম শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে আসে। স্বর্ণের বার জব্দের পর জয়নাল আবেদীন নামে ওই যাত্রীকে আটক করা হয়েছে।

বিমানবন্দরে দায়িত্বরত চট্টগ্রাম কাস্টমসের উপ-কমিশনার মো. রিয়াদুল ইসলাম বলেন, বেল্ট থেকে লাগেজ সংগ্রহের সময় একটি গোয়েন্দা সংস্থার তথ্যের ভিত্তিতে আমরা জয়নালকে হেফাজতে নিই। তার একটি লাগেজ তল্লাশি করি। সেখানে ৬টি চার্জার লাইটের ভেতরে স্বর্ণের বারগুলো পাই।

তিনি আরও জানান, জব্দ স্বর্ণবারের ওজন ১৫ কেজি ১৬৩ গ্রাম। দাম প্রায় সাড়ে ৭ কোটি টাকা।
আটক জয়নালের বিরুদ্ধে পতেঙ্গা থানায় মামলা করা হবে বলে জানিয়েছেন কাস্টমসের এই কর্মকর্তা।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
Helal shah
১৮ অক্টোবর ২০১৯, শুক্রবার, ৫:৫৮

সোনা চোরাচালানের সাথে বিমান বাংলাদেশ কতৃপক্ষের সবাই, , বিমান বন্দর নিরাপত্তা বাহিনী, ইমিগ্রেশন জড়িত। কাস্টমস ও সোনা চোরাচালান ও লাগেজের মাল সরানোতে অংশীদার । গডফাদার থাকেন ধরাছোঁয়ার বাইরে । মন্ত্রী থাকেন ঢাল । মাঠকর্মীদের ধরা হয় । তারপর সকালে মুক্তি হয় । মামলা ধামাচাপা পড়ে। ঘুষখোর পুলিশ, ও অন্যান্য কর্মকর্তারা সোনার বার কারবারীদের কাছে বিক্রি করে দেন। গত ৬মাসে যে সোনার চোরাচালান আটক হয়েছে।তা দিয়ে আগামী বাজেট করা যাবে!

Kazi
১৮ অক্টোবর ২০১৯, শুক্রবার, ২:৫৭

আমরা প্রবাস থেকে দেশে আসার পথে সংযুক্ত আরব আমিরাতে কর্মরত বাঙ্গালীদের সঙ্গে সাক্ষাৎ হয়। নিতান্তই মামুলী বেতনভুক তারা। এই যাত্রী কি ঐ দেশে চাকরি করেন ? এত টাকা পেলেন কোথায় সোনা কিনার জন্য ? নিশ্চয়ই তিনি সোনা চোরাচালানকারীর বাহক অথবা চোরাচালানকারী । আসল মালিক কে ও সিন্ডিকেটে আর কারা জড়িত তাদের খোঁজ বের করা জরুরি । একজন নিয়ে ব্যস্ত হলে লাভ হবে না।

অন্যান্য খবর