× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ঢাকা সিটি নির্বাচন- ২০২০ষোলো আনা মন ভালো করা খবর
ঢাকা, ২৭ জানুয়ারি ২০২০, সোমবার

‘জনগণ আমাদেরকে ভোট দেয় নাই’

অনলাইন

স্টাফ রিপোর্টার, বরিশাল থেকে | ১৯ অক্টোবর ২০১৯, শনিবার, ৪:৪৮

বাংলাদেশের ওয়াকার্স পার্টির কেন্দ্রীয় সভাপতি কমরেড রাশেদ খান মেনন (এমপি) বলেছেন, আমিসহ যারা নির্বাচিত হয়েছি আমাদেরকে দেশের কোন জনগণ ভোট দেয় নাই। ভোটাররা কেউ ভোট কেন্দ্রে আসতে পারেনি। বিগত জাতীয়, উপজেলা এবং ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে কোথাও ভোট দিতে পারেনি দেশের মানুষ।’ আজ দেশের ভোটাধিকার হরণ করেছে সরকার। সরকার দেশব্যাপী উন্নয়নের রোল মডেল করেছে দেশ-বিদেশে প্রশংসিত হচ্ছে, উন্নয়নের নামে দেশের গণতন্ত্রকে হত্যা করা হয়েছে। তিনি বলেন, উন্নয়নের নামে আজ দেশের মানুষের মত প্রকাশের স্বাধীনতা কেড়ে নিয়েছে সরকার, তাই কেউ মুখ খুলে মত প্রকাশ করতে পারে না।

আজ অশ্বিনী কুমার টাউন হলে আয়োজিত বাংলাদেশের ওয়াকার্স পার্টির বরিশাল জেলা কমিটির সম্মেলনের প্রথম অধিবেশনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি একথা বলেন।

বরিশাল জেলা কমিটির সভাপতি অধ্যাপক নজরুল হক নিলুর সভাপতিত্বে জেলা সম্মেলনে প্রধান বক্তা ছিলেন কেন্দ্রীয় পলিট ব্যুরো সদস্য কমরেড আনিছুর রহমান মল্লিক। আরো বক্তব্য রাখেন জেলা সাধারণ সম্পাদক সাবেক এমপি এ্যাড. শেখ মোহাম্মদ টিপু সুলতান, কমরেড শান্তি দাশ, কেন্দ্রীয় সদস্য অধ্যাপক বিশ্বজিৎ বাড়ৈ, কমরেড টি. এম শাহজাহান হাওলাদার, কমরেড আ. মন্নান,ফায়জুল হক বালী ফারহিন, সীমা রানি শীল ও শাহিন হোসেন।
মেনন বলেন, বিগত সরকারের প্রধান খালেদা জিয়া ও ও তার হাওয়া ভবনে বসে দুর্নীতি লুঠপাট করার কারণে কেউ সাজা ভোগ করছে, অন্যরা পালিয়ে গেছে। তিনি প্রশ্ন রাখেন, এখন সরকারে থেকে যারা দুর্নীতি লুঠপাট সহ বিদেশে অর্থ পাচার করছে তাদের বিচার করবে কে?

তিনি বলেন, শেখ হাসিনা দুর্নীতিবাজ লুটেরাদের আড়াল করে যতই শুদ্ধি অভিযান চালান তাতেই কিছুই হবে না। ক্যাসিনো মালিকদের ধরা হচ্ছে, দুর্নীতিবাজদের ধরা হচ্ছে, কিন্তু দুর্নীতির আসল জায়গা নির্বিঘ্নে আছে।
সেই দুর্নীতিবাজদের বিচার কবে হবে, তাদের সাজা কবে হবে, তাদের সম্পদ কবে বাজেয়াপ্ত হবে- প্রশ্ন রাখেন তিনি। আমাকে ১৪ দলের পক্ষ থেকে নৌকা প্রতীক দিয়েছে তাদের প্রয়োজনে।

মেনন আরো বলেন, বর্তমান সরকার ২০০৮ সালে গণতন্ত্রের কথা বলে ক্ষমতায় গিয়ে তারাই আজ এদেশের গণতন্ত্রকে গলা  কেটে হত্যা করেছে। এসব কৃষক-ক্ষেত-মজুর ও শ্রমজীবি মানুষের জন্য দেশে পেনশন স্কিম চালু করার দাবি জানান।

এর পূর্বে সকাল ১১টায় টাউন হল চত্বরে জাতীয় সংগীত পরিবেশনের মাধ্যমে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন করেন রাশেদ খান মেনন এমপি ও স্থানী দলীয় নেতৃবৃন্দ।
পরে জেলা সভাপতি ও জেলা সাধারণ সম্পাদক সহ দলীয় নেতা কর্মীরা লাল পতাকা নিয়ে নগরীতে র‌্যালি বেড় করে র‌্যালিটি শহরের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে পুনরায় টাউন হল চত্বরে এসে শেষ করেন।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
আদিল
১৯ অক্টোবর ২০১৯, শনিবার, ৯:৫২

কি কথা তাহার মুখে ! অবশেষে অরিন্দম কহিলা বিষাদে ! ভোট তো 14 সালে ও হয় নাই, মন্ত্রী করেছিল বলে কি সব জায়েজ হয়েছিল? আপনি নৌকা প্রতীক নিয়ে ভোট করে লক্ষ লক্ষ কর্মীর সঙ্গে প্রতারণা করেছিলেন । স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ে আওয়ামী লীগ আপনার লক্ষ্য লক্ষ্য কর্মীকে নির্যাতন করেছে, অনেকে জীবন দিয়েছে আওয়ামী লীগের হাতে । আপনি তাদের রক্তের উপর দিয়ে নৌকা প্রতীক নিয়ে ইলেকশন করেছেন । এখন সাধু সাজছেন । ভোট দেয়নি তো শপথ নিয়েছিলেন কেন ? ভেবেছিলেন হালুয়া-রুটি পাবেন, না পেয়ে সাধু সাজছেন ? লজ্জা শরম থাকলে পদত্যাগ করে কথা বলুন ।

Kazi
১৯ অক্টোবর ২০১৯, শনিবার, ৯:২০

Shamrat is asking law enforcement authority where are his other shareholders. He is waiting in the jail for partners

Mahmud
১৯ অক্টোবর ২০১৯, শনিবার, ৮:৪২

Tobe ki casino jale apnio atok?

Mohammed Ali
১৯ অক্টোবর ২০১৯, শনিবার, ৭:২৬

মেনন মন্ত্রীত্ব হারিয়ে নীতিবান হওয়ার ভান ধরেছেন। ছাত্রজীবনে মেননের বিপ্লবী আদর্শ আর ফজলে হোসেন বাদশার অনুকরণীয় বক্তব্যে ভুল পথে পাঁ দিয়েছিলাম। ছাত্র মৈত্রীর নেতৃত্বে সব প্রগতিশীল ছাত্র সংগঠনের আক্রমনের স্বীকার হয়ে শিবিরের ৪জন মিত্যুবরন করলো। আব্দুস সাত্তারের সরকার আমাদেরকে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিষ্কার করলো। সেই লেখাপড়ার ইতি। মেনন আর বাদশা ভাইয়েরা শুধু বক্তব্য বিবৃতিতে সীমাবদ্ধ রইলো, কোন হেল্প করেনি। কিন্তু আজ তারা এমপি, আর আমরা রাস্তার **********।

ahammad
১৯ অক্টোবর ২০১৯, শনিবার, ৬:২৯

মন্ত্রীত না পাওয়াতে আপচোছ হচ্ছে, পদ পেলে এই ধরনের অভিযোগ করতেন না। অনাকাঙ্খিত সত্য কথা স্বিকার করে নেওয়ার জন্য ধন্যবাদ।

Amir
১৯ অক্টোবর ২০১৯, শনিবার, ৭:০৮

আমিসহ যারা নির্বাচিত হয়েছি আমাদেরকে দেশের কোন জনগন ভোট দেয় নাই।-----আমাকে ১৪ দলের পক্ষ থেকে নৌকা প্রতীক দিয়েছে তাদের প্রয়োজনে।-----এই কথা বলার পর আপনার আর এমপি পদে থাকার নৈতিকভিত্তি নেই , আপনি যদি সম্মানিত জব্বার খান সাহেবর সুপুত্র হন তাহলে আগামী দু এক দিনের ভিতরে সংসদ থেকে পদত্যাগ করে নজির স্থাপন করবেন বলে আমরা আশাকরি !

sdd
১৯ অক্টোবর ২০১৯, শনিবার, ৬:৫৬

জনগণ যদি আপনাকে নির্বাচিত না করে থাকে, তাহলে সংসদ থেকে পদত্যাগ করুন। সাংসদের পদমর্যাদা ভোগ করছেন, বেতন নিচ্ছেন, লজ্জা হচ্ছে না? কোন মুখে কথা বলছেন?

SM Rafiqul Islam
১৯ অক্টোবর ২০১৯, শনিবার, ৫:৩০

Thanks Mr .Menon for telling the truth.

জিলানী
১৯ অক্টোবর ২০১৯, শনিবার, ৫:০৫

ভিন্ন, "বয়ান" কেন?

As Sadik
১৯ অক্টোবর ২০১৯, শনিবার, ৪:৫৫

সময়ের সাথে সাথে মুসতাক'রা রং পরিবর্তন করছে...

Kamal
১৯ অক্টোবর ২০১৯, শনিবার, ৪:৫১

Ohhhh . This is menon, maybe crezy now. He suffered pain for the minister.

Faruki
১৯ অক্টোবর ২০১৯, শনিবার, ৪:৪৯

Big mouth. Trying to change tone.

Nurul alam
১৯ অক্টোবর ২০১৯, শনিবার, ৪:৩২

এখন এসব বলে কোন লাভ নেই। 14 সালের 5 জানুয়ারীও আপনাদের কেউ ভোট দেয়নি তারপরও আপনি মন্ত্রী হয়েছিলেন যাকে অবৈধ বলা হয়। এবারও ঐ একই প্রক্রিয়ার সরকার কিন্তু আপনি মন্ত্রী নন। তাই এত যন্ত্রণা? যা-ই হোক মুখ দিয়ে সত্যটাতো বের হলো । ধন্যবাদ।

মোঃ কামরুল হাসান
১৯ অক্টোবর ২০১৯, শনিবার, ৪:২৭

"এতক্ষণে"--অরিন্দম কহিলা বিষাদে।

অন্যান্য খবর