× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার মন ভালো করা খবরসাউথ এশিয়ান গেমস- ২০১৯
ঢাকা, ১১ ডিসেম্বর ২০১৯, বুধবার
ভোলায় সংঘর্ষের জের

চট্টগ্রামে থানা ভাঙচুর বিক্ষোভ

দেশ বিদেশ

স্টাফ রিপোর্টার, চট্টগ্রাম ও হাটহাজারী প্রতিনিধি | ২১ অক্টোবর ২০১৯, সোমবার, ৯:০০

ভোলায় ফেসবুক মেসেঞ্জারে মহানবী ও আল্লাহকে নিয়ে কটূক্তিকারী বিপ্লব চন্দ্র শুভ’র সর্বোচ্চ শাস্তি ফাঁসির দাবিতে আয়োজিত বিক্ষোভ সমাবেশ ও মিছিলে তৌহিদী জনতার ওপর পুলিশের নির্বিচারে গুলি বর্ষণের ঘটনায় হাটহাজারী থানা ভাঙচুর করেছে আলেম-ওলামারা। রোববার মাগরিবের নামাজের আগে থানায় প্রবেশ করে ভাঙচুর শুরু করে উত্তেজিত তৌহিদী জনতা। এ সময় থানার সামনের বারান্দার অবকাঠামো ভাঙচুর করে তারা। একপর্যায়ে থানার সামনে আগুন ধরিয়ে দেয়। এরপর চট্টগ্রাম-রাঙ্গামাটি-খাগড়াছড়ি মহাসড়কের হাটহাজারী চৌমুহনী মোড়ে সড়কের ওপর মাগরিবের নামাজ আদায় করেন তারা। নামাজের পর চৌমুহনী মোড়ে বিক্ষোভ সমাবেশ করেন। সমাবেশে মূল বক্তব্য রাখেন হাটহাজারী মাদ্রাসার সহযোগী পরিচালক ও হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের মহাসচিব আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী। এর আগে দলের আরো কয়েকজন নেতা সমাবেশে বক্তব্য রাখেন।
সমাবেশে আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী বলেন, ৯০ ভাগ মুসলিম অধ্যুষিত এই দেশে মহান আল্লাহ তায়ালা ও আমাদের কলিজার টুকরা বিশ্বনবী (সা:)কে নিয়ে কটূক্তি করবে তা কখনো মেনে নেয়া যায় না। বাংলাদেশ গণতান্ত্রিক দেশ। শান্তিপূর্ণ মিছিল মিটিংয়ের মাধ্যমে নিজের দাবি- দাওয়া পেশ করা এবং দোষীদের বিচার চাওয়া নাগরিক অধিকার। শান্তিপূর্ণ মিছিলে এভাবে নির্বিচারে গুলি চালিয়ে নবীপ্রেমিকদের শহীদ করে লক্ষ কোটি তৌহিদী জনতার কলিজায় আঘাত করা হয়েছে। নবীপ্রেমিকদের শরীর থেকে রক্ত ঝরবে তা দেশের কেউ মেনে নেবে না। ভোলায় নবীপ্রেমিক শহীদদের প্রতি ফোঁটা রক্তের বদলা নেয়া হবে। বাবুনগরী বলেন, আমরা বিশ্বনবী (সা:)কে নিজেদের প্রাণের চাইতেও বেশি মুহাব্বত করি। নবীর ইজ্জত রক্ষায় লক্ষ কোটি তৌহিদী জনতা জান দিতে প্রস্তুত। শাহবাগে নাস্তিক মুরতাদরা যখন বিশ্বনবীর শানে কটূক্তি করেছিল তখন কেবলমাত্র নবীর ইজ্জত রক্ষার জন্য আমরা লাখো মুমিন শাপলা চত্বরে উপস্থিত হয়েছিলাম। বিশ্বনবীর ইজ্জত রক্ষায় প্রয়োজনে আবারো শাপলা চত্বর কায়েম করা হবে।
হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে হেফাজত মহাসচিব বলেন, ভোলায় নবীপ্রেমিক শহীদদের প্রতি ফোটা রক্তের বদলা নেয়া হবে। অনতিবিলম্বে কটূক্তিকারী কুখ্যাত সেই বিপ্লব চন্দ্র শুভ’র সর্বোচ্চ শাস্তি ফাঁসি নিশ্চিত করতে হবে। হতাহতদের সঠিক চিকিৎসার ব্যবস্থা করে সুষ্ঠু তদন্তের মাধ্যমে নবীপ্রেমিকদের ওপর গুলিকারী অভিযুক্ত সেই পুলিশ সদস্যদের বিরুদ্ধে যথাযত ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। পুলিশের গুলিতে শহীদদের শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা প্রকাশ করে এ ঘটনার বিচার দাবী করে বলেন, দ্রুত সময়ে মধ্যে সুষ্ঠু বিচার না হলে বিশ্বনবীর ইজ্জত রক্ষায় দেশের কোটি কোটি নবীপ্রেমিক তৌহিদী জনতা নাস্তিক মুরতাদদের বিরুদ্ধে দুর্বার আন্দোলন গড়ে তুলতে বাধ্য হবে।
তিনি বলেন, আমার হাটহাজারী মাদ্রাসার সামনে একটি মন্দির রয়েছে। কই আমরা তো সেই মন্দিরে কেউ হামলা চালায়নি। হিন্দুরা আমাদের উসকানি দিচ্ছে ঠিকই। চাইলে তো এ মন্দির আমরা গুঁড়িয়ে দিতে পারি। এর আগে হাটহাজারী মাদ্রাসা থেকে মিছিল নিয়ে বের হন আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী। ভোলায় পুলিশি হামলার প্রতিবাদে বিক্ষোভ করতে করতে হাটহাজারী থানায় এসে ভাঙুচর শুরু করেন মিছিলকারীরা। এ বিষয়ে জানতে চাইলে হাটহাজারী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) বেলাল উদ্দিন জাহাঙ্গীর থানা ভাঙচুরের সত্যতা স্বীকার করেন। তিনি বলেন, উত্তেজিত আলেম-ওলামারা থানার কিছু অবকাঠামো নষ্ট করেছে। তবে পুলিশের প্রতিরোধের মুখে পরে তারা সরে গেছে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
Mohammed Ali
২০ অক্টোবর ২০১৯, রবিবার, ২:৪৮

হাটহাজারী থানায় আক্রমণের পর পুলিশ গুলি চালায়নি, তাই কোন বড় ধরনের গন্ডগোল হয়নি। অনুরূপ ভোলার ঘটনায় পুলিশ গুলি না চালিয়ে শান্ত ভাবে সমাধানের চেষ্টা করিলে ৪ জন মানুষ মারা যেত না।

অন্যান্য খবর