× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার মন ভালো করা খবরসাউথ এশিয়ান গেমস- ২০১৯
ঢাকা, ৬ ডিসেম্বর ২০১৯, শুক্রবার

ভোলার ঘটনার প্রতিবাদে হেফাজতের কর্মসূচি

অনলাইন

অনলাইন ডেস্ক | ২১ অক্টোবর ২০১৯, সোমবার, ২:৫৭

ভোলার ঘটনায় দেশব্যাপী প্রতিবাদ কর্মসূচি ঘোষণা করেছে হেফাজতে ইসলাম। গতকাল ভোলায় জনতা-পুলিশ সংঘর্ষে ‘চারজনকে হত্যার জন্য দায়ী’ পুলিশ সদস্যদের শাস্তি দাবি করেছে তারা। আজ সোমবার চট্টগ্রামের হাটহাজারিতে আল জমিয়তুল আহলিয়া দারুল উলুম মইনুল ইসলাম মাদ্রাসা প্রাঙ্গণে এক সংবাদ সম্মেলনে কর্মসূচি ঘোষণা করেন হেফাজতে ইসলামের মহাসচিব মাওলানা বাবু নগরী। ফেসবুকে মহানবী (সা.) কে নিয়ে ঘৃণাপ্রসূত পোস্ট দেয়া ব্যক্তির শাস্তি দাবি করা হয়েছে সংবাদ সম্মেলনে। একই সঙ্গে যারা রোববারের সংঘর্ষে নিহত ও আহত হয়েছেন তাদের পরিবারকে ক্ষতিপূরণ দেয়ার দাবি জানিয়েছে হেফাজতে ইসলাম। সংবাদ সম্মেলনে বাবু নগরী বলেন, ঘৃণাপ্রসূত কথোপকথনের বিষয়ে তদন্ত করেছে হেফাজত। তদন্তে দেখা গেছে, ফেসবুক ব্যবহারকারী নিজে ইচ্ছাকৃতভাবে ওই পোস্ট দিয়েছিলেন। তার একাউন্ট হ্যাক করা হয় নি।
তিনি আরো বলেন, আমরা আরো গভীরভাবে তদন্তের জন্য ৫ সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করছি।
বাবুনগরী বলেন, সরকার যদি হেফাজতের মূল ১৩ দফা দাবি মেনে নিতো তাহলে এমন ঘটনা ঘটতো না। ওই দাবিগুলোর মধ্যে অন্যতম ছিল ইসলাম ও রাসুল (সা.)-এর সমালোচনাকারীর মৃত্যুদণ্ড। ওই ১৩ দফা দাবি মেনে নিলে বাংলাদেশ হতো স্বর্গ।
উল্লেখ্য, ভোলার বোরহানউদ্দিন উপজেলায় একজন ব্যক্তি ফেসবুকে মহানবী (সা.)কে নিয়ে ঘৃণাপ্রসূত বক্তব্য ছড়িয়ে দিয়েছেন এমন অভিযোগে রোববার উত্তাল হয়ে ওঠে ভোলা। সেখানে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষ হয় জনতার। এ সময় কমপক্ষে চার জন নিহত হন। আহত কয়েছেন শতাধিক মানুষ।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
Mohammed Ali
২১ অক্টোবর ২০১৯, সোমবার, ৪:০৯

নির্দোষ ৪ জন মানুষ পুলিশের গুলিতে মারা গেল, অথচ দোষী লোক নিরাপত্তা হেফাজতে। এই হচ্ছে বাংলাদেশের প্রকৃত চিত্র।

অন্যান্য খবর