× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার মন ভালো করা খবরসাউথ এশিয়ান গেমস- ২০১৯
ঢাকা, ৬ ডিসেম্বর ২০১৯, শুক্রবার
ভোলার ঘটনায় ফেসবুকে পোস্ট

খুলনা প্রেস ক্লাবের সাবেক সেক্রেটারি গ্রেপ্তার

শেষের পাতা

স্টাফ রিপোর্টার, খুলনা থেকে | ২২ অক্টোবর ২০১৯, মঙ্গলবার, ৮:৫৭

খুলনা প্রেস ক্লাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ডেইলি নিউ নেশন পত্রিকার খুলনা প্রতিনিধি মুনির উদ্দিন আহমেদকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। রোববার দিবাগত গভীর রাতে তাকে নগরীর দোলখোলাস্থ নিজ বাড়ি থেকে গ্রেপ্তার করে খুলনা সদর থানা পুলিশ। সোমবার বিকালে খুলনা সদর থানায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে দায়ের করা মামলায় তাকে গ্রেপ্তার দেখিয়ে সাত দিনের রিমান্ডের আবেদন জানিয়ে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে। ভোলার ঘটনাসহ কয়েকটি বিষয়ে ফেসবুক পোস্টের কারণেই খুলনা সদর থানার এসআই শরিফুল আলম বাদী হয়ে এ মামলা দায়ের করেন। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা নিযুক্ত হয়েছেন এসআই মো. সাইদুর রহমান।
সাংবাদিক মুনির উদ্দিন আহমেদ ভোলার ঘটনায় পুলিশের ভূমিকার সমালোচনা করে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়েছেন বলে মামলায় বলা হয়।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই মো. সাইদুর রহমান বলেন, তার ফেসবুক স্ট্যাটার্স ছিল উস্কানিমূলক। তার কাছ থেকে আরো তথ্য উপাত্ত সংগ্রহের জন্য আদালতে ৭ দিনের রিমান্ডের আবেদন করা হয়েছে।
খুলনা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. আসলাম বাহার বুলবুল বলেন, ফেসবুকে ভোলার ঘটনার সাথে পুলিশ কর্মকর্তাদের ছবি পোস্ট দিয়ে বিভ্রান্ত সৃষ্টি করেছেন। যা আইনত অপরাধ।
যে কারণে তার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের ও গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এ ব্যাপারে কেএমপির খুলনা জোনের এডিসি শাকিলুজ্জামান বলেন, সাংবাদিক মুনির উদ্দিন আহমেদ তার ফেসবুক আইডি থেকে পুলিশের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্নসহ একাধিক আপত্তিকর স্ট্যাটাস দেন। এ ঘটনায় তার বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা হয়েছে। এ মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
ahammad
২১ অক্টোবর ২০১৯, সোমবার, ১:০৭

অন্যায়ের প্রতিবাদ করলেই তার বিরুদ্দে মামলা দেওয়া হবে, রিমন্ড চাওয়া হবে। আর অন্যায়কারী বহাল তবিয়তে থাটাই বর্তমান আইনে পরিনত করা হয়েছে। কিন্তু দঃখের সাথে বলতে হয় আজ মানুষ আইনের জন্য, নাকি মানুষের জন্য আইন ???

অন্যান্য খবর