× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার মন ভালো করা খবরসাউথ এশিয়ান গেমস- ২০১৯
ঢাকা, ১৪ ডিসেম্বর ২০১৯, শনিবার

মাগুরায় ছাত্রী হোস্টেলে ঢুকে ছাত্রলীগের নিপীড়ন

অনলাইন

স্টাফ রিপোর্টার | ২২ অক্টোবর ২০১৯, মঙ্গলবার, ১১:২৯

মাগুরা সরকারি হোসেন সোহরাওয়ার্দী কলেজে ছাত্রীদের হোস্টেলে ঢুকে তাদের নিপীড়ন করার অভিযোগ উঠেছে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে। সর্বশেষ রোববার রাতে বিনা অনুমতিতে কয়েকজন হোস্টেলে ঢুকে  মেয়েদের সঙ্গে অশালীন আচরণ, ধাক্কাধাক্কি, রান্না করতে বাধ্য করার ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় হোস্টেলের দায়িত্বরত মেট্রনকে সাময়িক বহিষ্কারসহ তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করেছে কলেজ কর্তৃপক্ষ।

কলেজের আবাসিক ছাত্রীরা জানান, অনেকদিন ধরেই ছাত্রলীগের  নেতাকর্মীরা হোস্টেলে ঢুকে নিপীড়ন করছে। কলেজ প্রশাসনকে একাধিকবার বিষয়টি জানালেও তারা অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা  নেয়নি।

কলেজের অধ্যক্ষ দেবব্রত ঘোষের কাছে সোমবার সকালে কয়েকজন ছাত্রী রোববারের ঘটনায় অভিযোগ করেন। ছাত্রীদের অভিযোগ, কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি ফাহিম ফয়সাল রাব্বিসহ বেশ কয়েকজন দীর্ঘদিন নির্বিঘেœ মেয়েদের হোস্টেলে যাতায়াত করছেন। তাদের হাতে লাঞ্ছনার শিকার হচ্ছেন অনেক ছাত্রী।

রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের এক ছাত্রী বলেন, রোববার রাত সাড়ে ৯টার দিকে খাওয়া শেষ করে অন্য মেয়েদের সঙ্গে রুমে ফেরার সময় দেখি,  হোস্টেলের দ্বিতীয় তলার সিঁড়িতে ছাত্রলীগ নেতা রাব্বি একটি মেয়েকে জড়িয়ে ধরে রয়েছে। মেয়েটি নিজেকে ছাড়িয়ে নেয়ার চেষ্টা করছে ও কাঁদছে। একটু দূরে তিন-চারজন ছেলে দাঁড়িয়ে।
এ সময় আমরা  মেয়েটিকে ছাড়িয়ে নেয়ার চেষ্টা করলে ছেলেরা আমাদের ধাক্কা দিয়ে  ফেলে দেয়।

সিঁড়ির রেলিংয়ে পড়ে এক মেয়ের হাত কেটে ও জামা ছিঁড়ে যায়। আহত ছাত্রী জানান, বিষয়টি হোস্টেলের মেট্রন (তদারকির দায়িত্ব থাকা) নাসরিন আক্তারকে জানানো হলেও তিনি চুপ থাকার নির্দেশ দেন। কিছুক্ষণ পর হোস্টেলে পুলিশ এলেও নাসরিন ম্যাডামের ভয়ে কেউ  কোনো অভিযোগ করেনি।

বিষয়টি নিয়ে হোস্টেল মেট্রন নাসরিনের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি শিক্ষার্থীদের লাঞ্ছনার বিষয়টি এড়িয়ে যান। তিনি বলেন, সেদিন কলেজ ছাত্রলীগের পরিচয়ে বেশ কয়েকজন পোলাও-এর চাল ও মুরগি নিয়ে  হোস্টেলে আসে। তারা রাঁধুনি রাজিয়াকে ১৫ জনের খাবার রান্না করে দিতে বলে। রাত সাড়ে ৯টার দিকে ১০-১৫ জনসহ ছাত্রলীগ সভাপতি রাব্বি এসে খাবার নিয়ে চলে যায়।

এ বিষয়ে কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি ফাহিম ফয়সাল রাব্বির মোবাইল  ফোনে যোগাযোগ করা হলেও কথা বলা সম্ভব হয়নি। তবে জেলা ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক আলি হোসেন মুক্তা বলেন, ছাত্রীদের এ অভিযোগ সত্য নয়। অন্যদিকে সুনির্দিষ্ট অভিযোগ পাওয়া গেলে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানিয়েছেন  জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি মেহেদি হাসান রুবেল।

কলেজের অধ্যক্ষ দেবব্রত ঘোষ বলেন, দায়িত্বে অবহেলার কারণে  হোস্টেলের মেট্রন নাসরিন আক্তার, নৈশপ্রহরী আবদুস সালাম ও রাঁধুনি রাজিয়াকে সাময়িকভাবে বহিষ্কার করা হয়েছে। ঘটনাটি তদন্তে তিন সদস্যবিশিষ্ট কমিটি গঠন করা হয়েছে। তাদের তিন কার্যদিবসের মধ্যে প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
অনিচ্ছুক
২২ অক্টোবর ২০১৯, মঙ্গলবার, ৭:৩৮

এটা হলো সবকিছু দলীয়করণ এর ফল।

ASIA
২২ অক্টোবর ২০১৯, মঙ্গলবার, ৫:৫৯

This is only example daily happening I think 1000 hostel same cases . Daily many girls losing their virginity . In front of my self many stupid did it. this Because our Co education .

Kazi nur kabir
২২ অক্টোবর ২০১৯, মঙ্গলবার, ১২:৪২

ছাত্রী হোস্টেলে কেন রাত ৯ টাই ছেলেরা ডুকবে,,, আর ছাত্রী হোস্টেলে কেন রান্না করবে,,,, রাতে ছাত্র হোস্টেলে ছেলেরা যদি অনায়াসে ডুকে যায় তাহলে ছাত্রীদের নিরাপত্তা কোথায়,,, শিক্ষকদের বিচারের আওতায় আনা জরুরী।,, কারন ছাত্রীদের নিরাপত্তার বিষয়টা দেখার দায়িত্ব শিক্ষকদের।

Md. Harun Al-Rashid
২২ অক্টোবর ২০১৯, মঙ্গলবার, ১২:১০

এদের সামলান।ছাত্রী হোস্টেল কেন এদের রান্নাঘর হবে? সম্ভব হলে কলেজের প্রশাসনকে জবাবদিহির আওতায় আনুন তা হলে কথিত অপকর্মের ঘাত গায়ে লাগবে।

অন্যান্য খবর