× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার মন ভালো করা খবরসাউথ এশিয়ান গেমস- ২০১৯
ঢাকা, ৬ ডিসেম্বর ২০১৯, শুক্রবার

সাবেক স্বামীর ছোঁড়া এসিডে ঝলসে গেলো ফাতেমা ও তার মেয়ে

অনলাইন

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি | ২২ অক্টোবর ২০১৯, মঙ্গলবার, ১২:১৮

সাতক্ষীরার আশাশুনিতে তালাকপ্রাপ্ত স্বামীর ছোঁড়া এসিডে সাবেক স্ত্রী ও তার কন্যা গুরুতর আহত হয়েছে। সোমবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে উপজেলার বুধহাটা ইউনিয়নে এ ঘটনা ঘটে।

আহত স্ত্রী উপজেলার বুধহাটা ইউনিয়নের চাপড়া গ্রামের একরামুল কাদিরের মেয়ে ফাতেমা সুলতানা (২৯) ও ফাতেমার মেয়ে জাকিয়া (২)। ফাতেমার তালাকপ্রাপ্ত স্বামী শাহজান মোড়ল নড়াইলের পঙ্কবিলা গ্রামের শওকত আলী  মোড়লের মাদকাসক্ত ছেলে।

আক্রান্ত ফাতেমা জানান, তার স্বামী মাদকাসক্ত ও নির্যাতনকারী হওয়ায় তাদের এক বছর আগে তালাক হয়। এরপর থেকে বাবার বাড়িতে থাকতেন তিনি।   সোমবার রাতে বাবার বাড়িতে অবস্থানকালে তার সাবেক স্বামী বাড়ির জানালার কাছে এসে ডাকে এবং জানালার পাশে আসার সঙ্গে সঙ্গেই এসিড ছোঁড়ে।

এতে মারাত্মক আহত হন ফাতেমা ও তার মেয়ে জাকিয়া। ফাতেমার চাচা সোহাগ হোসেন বলেন, ফাতেমার চিৎকার শুনে তার স্বামীকে ধরতে ধাওয়া করলেও তারা ব্যর্থ হন।

সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালের ডা. ইকবাল মাহমুদ জানান, মেয়ের থেকেও মায়ের (ফাতেমা) অবস্থা খারাপ। তার মুখ, চোখ ও বুক থেকে পেটসহ শরীর বিভিন্ন অংশ এসিডে পুড়ে গেছে। জরুরি ভিত্তিতে চিকিৎসা চলছে।

আশাশুনি থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) হাসানুজ্জামান বলেন, সোমবার রাতে ফাতেমা ও তার মেয়ের ওপর ফাতেমার তালাক প্রাপ্ত স্বামী এসিড ছোঁড়ে।
এতে তারা মারাত্মক আহত হন তারা। এ খবর পেয়ে আশাশুনি থানার পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। আহতদের উদ্ধার করে সাতক্ষীরা সদর হাসাপাতালে পাঠানো হয়েছে।

আশাশুনি থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আবদুস সালাম বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, এ ঘটনায় এখনও পর্যন্ত কোন মামলা হয়নি। মামলা হলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
রিপন
২২ অক্টোবর ২০১৯, মঙ্গলবার, ৬:৪২

এসিড সন্ত্রাসের মতো জঘন্য ক্রাইম সমাজদেহ হইতে নির্মূল হইবে কীবম্প্রকারে? প্রকাশ্য দিবালোকে এসিড নিক্ষেপকারীর মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা তো পরের কথা, থানা পুলিশ সবকিছু অবগত হওয়া সত্ত্বেও এসিড নিক্ষেপকারী শয়তানটির বিরুদ্ধে এখন পর্যন্ত কোন মামলাই দায়ের করে নাই, মামলা দায়ের হইলে তাহারপর তাহারা ব্যবস্থা নিবে মর্মে জানাইতেছে। সরকার তথা পুলিশ বাদী হইয়া মামলার যে বিধান ছিল, তাহাও কি সাতক্ষীরায় এসিড মারিয়া খতম করিয়া দেওয়া হইয়াছে? শ্রদ্ধাভাজন সাংবাদিক মি. মুনিরকে খুলনায় খামাখা গ্রেপ্তার করিতে তো পুলিশের এস আই শরিফুল বাদী হইয়াই মামলা করিল! সেইখানে পারিলে, এইখানে নহে কেন? আইন কি তবে সকল জায়গায় সকলের জন্যে সমান এবং কেবল সাতক্ষীরায় এসিডে ঝলসে যাওয়া ভগিনী ফাতেমাদিগের জন্যে কিঞ্চিৎ অধিক সমান? জনকল্যাণমূলক জনবান্ধব হইবার পরিবর্তে এই বাংলাদেশ নামের রাষ্ট্রটি যে কীরূপ ক্রিমিনাল বান্ধব রাষ্ট্র হইয়া গিয়াছে তাহা কি আর বিশদ বয়ানের অপেক্ষা রাখে?

অন্যান্য খবর