× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার মন ভালো করা খবরসাউথ এশিয়ান গেমস- ২০১৯
ঢাকা, ১১ ডিসেম্বর ২০১৯, বুধবার

‘এই ধর্মঘট দেশের ক্রিকেট ধ্বংসের ষড়যন্ত্র’ (ভিডিও)

খেলা

স্পোর্টস রিপোর্টার | ২২ অক্টোবর ২০১৯, মঙ্গলবার, ৪:২৯

দেশের ক্রিকেটকে ধ্বংস করতে ক্রিকেটারদের এই ধর্মঘট দাবি করে আজ দুপুরের দিকে জরুরি বৈঠকে বসেন বিসিবি পরিচালকরা। এরপরই বিকেল সংবাদ সম্মেলন করেন বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন। সংবাদ সম্মেলনে পাপন  বলেন, ‘আমাদের কাছে দাবি না তুলে তারা যে উদ্দেশ্যে মিডিয়ার সামনে তুলে ধরলো, সে উদ্দেশ্যে আপাতত তারা সাকসেস। এসিসি-আইসিসি থেকে শুরু করে সবাই ফোন করে বলছে, বাংলাদেশের ক্রিকেট নষ্ট হয়ে গেছে। তার মানে, বাংলাদেশের ইমেজ এবং ক্রিকেটের ইমেজ নষ্ট করতে সফল হয়েছে তারা।
বিসিবি সভাপতি আক্ষেপ করে বলেন, ‘আমাদের সঙ্গে যোগাযোগ না করেই খেলা বন্ধ। এমন এক সময়ে বন্ধ করলো- যখন ফিটনেস এবং ক্যাম্প শুরু করার কথা রয়েছে। নতুন কোচ এসেছে, সামনে ভেট্টরিও আসবেন।
আমার মনে হয়, ওদের বিদেশি এসব কোচ পছন্দ নয়। তারা তো এমনও বলেছে, কোচই চাই না। এখন চায় দেশি কোচ। কিন্তু তাদের মতো করে তো আমরা কোচ নিয়োগ দিতে পারি না।’
ভারত সফরের আগে এই আন্দোলনে অসন্তুষ্টি প্রকাশ করে বলেন, ‘ভারতে পূর্ণাঙ্গ সিরিজে এই প্রথম যাচ্ছে। এত কষ্ট করে একটি ফুল সিরিজ ভারত থেকে আসলো। টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ শুরু হচ্ছে এবং প্রথম খেলাটাই ভারতের সাথে। অথচ তার আগেই তারা বলে দিলো, আমরা খেলবো না।’
কখন থেকে এই ষড়যন্ত্র শুরু হয়েছে? পাপনের ধারণা বিসিবির এক পরিচালক (ক্যাসিনো ইস্যুতে) গ্রেফতার হওয়ার পর থেকেই এই ষড়যন্ত্র শুরু হয়েছে। তিনি বলেন, ‘আমাদের এক ডাইরেক্টর এরেস্ট হওয়ার পর থেকেই সবার টার্গেটে পরিণত হয়েছি আমি নিজে এবং আমার বোর্ড। তারা প্রথমে চেষ্টা করেছে নানাভাবে আমাদের ক্ষতি করার। আমাদের আক্রমণ করে যদি বাইরে পাঠানো যায়, বোর্ডকে নিষিদ্ধ করার চেষ্টা করছে। ওটাতে তারা সফল হয়নি। এখন সেকেন্ড স্টেপ চলছে। যদি কোনোভাবে ভারত সফরটা মিস করা যায়, তাহলে বড় ধরনের একটা সমস্যায় পড়তে পারি।’
পাপনের বিশ্বাস এটা ষড়যন্ত্রেরই অংশ। তিনি বলেন, ‘তারা (ক্রিকেটাররা) কেন আমাদের কাছে কিছু না চেয়ে খেলা বন্ধ করলো? ক্যাম্পেও যোগ দেবে না। সবই ষড়যন্ত্রের অংশ। বাংলাদেশ ক্রিকেটকে ধ্বংস করে দিতে চাচ্ছে।’

পাপনের ধারণা ক্রিকেটাররা সবাই জেনে-বুঝে এ আন্দোলনে যোগ দেয়নি। তিনি বলেন, ‘ক্রিকেটার যারা আছে তাদের বেশিরভাগই ক্রিকেটকে ভালোবাসে এবং দেশকে ভালোবাসে। দেশের ক্রিকেটপ্রেমীরাও। আমার বিশ্বাস, অধিকাংশ খেলোয়াড়ই জেনে বুঝে যোগ দেয়নি। হয়তো দু-একজন জড়িত। তাদের খুঁজে বের করতে হবে।’

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
জি এম সাইফুল আলম সোহ
২২ অক্টোবর ২০১৯, মঙ্গলবার, ৯:৩৪

সবাই দেখি পাপন সাহেবের কথায় গদগদ! ওরা ১/২ টা দাবি করেনি। পুরো ১১টাই যুক্তিযুক্ত। অনেকে বলে ওরা ভালো খেলেনি। ওরা তো ভালোভাবে খেলতে চাচ্ছে। খেলার সাথে যে আনুষঙ্গিক বিষয় গুলো জড়িত, সেই বিষয় গুলোই ওরা উত্থাপন করেছে মাত্র। সবাইকে অনুরোধ করবো, হুজুগে মন্তব্য না করে সবকিছু জেনে শুনে মন্তব্য করুন। ওরাও দেশের জন্য খেলতে চায়। জিততে চায়।

ইউসুফ কামাল
২২ অক্টোবর ২০১৯, মঙ্গলবার, ৭:২৭

নতুন ক্রিকেটারা পুরাতন ক্রিকেটারদের ছেড়ে ভালো করবে।

Polash
২২ অক্টোবর ২০১৯, মঙ্গলবার, ৭:১২

এরা দেশের জন্য কি করেছে।এত দিন ধরে খেলে,১ টা ম্যাচ ভাল করলে পরের ১০টা ম্যাচ হারে।আফগানিস্তান এর কাছ থেকে শিখুক।দেশে অনেক খেলোয়ার নতুনদেরকে সুযোগ দিন,তাহলে এদের দেমাক এমনি কমে যাবে।

নাম প্রকাশ্যে অনিচ্ছ
২২ অক্টোবর ২০১৯, মঙ্গলবার, ৭:১১

ও আচ্ছা, আন্দোলন কারী কৃকেটারেরা তাহলে ষড়যন্ত্রকারী, দেশ বিরোধী!

মাসুম
২২ অক্টোবর ২০১৯, মঙ্গলবার, ৫:১২

যেদিন দাবী পেশ সেদিন থেকেই ধর্মঘট , এটা কেমন কথা ? দাবী দিয়ে প্রথমে কয়েকদিন সময় দিতে হয় । সেই সময়ের মধ্যে দাবী মেনে নেয়া না হলে ধর্ম়ঘট করা যেতেই পারে।

Zahangir
২২ অক্টোবর ২০১৯, মঙ্গলবার, ৪:০৯

পাপন সাহেব এর সাথে একমত। বোর্ডের সাথে আগে আলাপ আলাপ না করে ক্রিকেটারদের এ ধরনের সিদ্বান্ত নেয়াটা অযৌক্তিক। এতে করে দেশের ভাবমূর্তি অবশ্যই ক্ষুন্ন হয়েছে। আসলে আমাদের ক্রিকেটাররা হঠাৎ হঠৎ একটা খেলায় জিতে তারা এতো প্রশংসা ও অর্থ- কড়াকড়ির মালিক হয়ে গেছে, যে তাদের মাথাখারাপ হয়ে গে। অথচ শ্রীলঙ্কা ও আফগানিস্তানের সাথে তাদের সাম্প্রতিক খেলাগুলো দেখলেতো তাদেরকে খেলোয়াড়ই মনে হয় না।

Mohammed Moniruzzama
২২ অক্টোবর ২০১৯, মঙ্গলবার, ৪:০৮

সঠিক কথা বললেই বলা হয় ষড়যন্ত্র এটাই হচ্ছে সবচেয়ে বড় ষড়যন্ত্র । ওদের দাবী মেনে নিতে এত গড়িমসি কেন? লক্ষ কোটি টাকা চুরা করে রাজনিতিবিদরা দিব্যি ঘুরা ফেরা করছে আর কেহ সঠিক কথা বললেই ষড়যন্ত্র । আর জিন্বাবুয়ের সাথে তুলনা করা এটাই একটা বড় ধরনের ষড়যন্ত্র ।

Md Ahmed
২২ অক্টোবর ২০১৯, মঙ্গলবার, ৩:৫৫

বর বর কথা না বলে তাদের যুক্তিক দাবি গুলি মেনে নিন

অন্যান্য খবর