× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার মন ভালো করা খবর
ঢাকা, ১৬ নভেম্বর ২০১৯, শনিবার

এক সেক্স স্ক্যান্ডালেই কুপোকাত হাঙ্গেরির সরকার

বিশ্বজমিন

মানবজমিন ডেস্ক | ৭ নভেম্বর ২০১৯, বৃহস্পতিবার, ১১:১৩

হাঙ্গেরিতে একটি ‘সেক্স টেপ’ প্রকাশের জেরে টালমাটাল অবস্থায় পড়েছে দেশটির সরকার। এই স্ক্যান্ডালের জেরেই শাসক দল ফিডেসজ স্থানীয় সরকার নির্বাচনে অনেকখানি সমর্থন খুইয়েছে। এছাড়া সবে রাজধানী হাঙ্গেরির একটি বড় শহরের মেয়র হিসেবে পুনঃনির্বাচিত হওয়া মেয়র পদত্যাগ করতে বাধ্য হয়েছেন। ওই মেয়র আবার দেশটির সাবেক অলিম্পিক তারকা, যিনি জিমন্যাস্টিকসে স্বর্ণপদক পেয়েছিলেন। রয়টার্সের খবরে বলা হয়, ১৯৮৮ সালে সিউল অলিম্পিকে স্বর্ণপদক জিতেছিলেন সল্ট বরকাই। বিবাহিত এই রাজনীতিকের দুই সন্তান রয়েছে। তবে কয়েক মাস আগেই একটি ইয়টে এক তরুণীর সঙ্গে যৌনমিলনরত অবস্থায় তার একটি ভিডিও সম্প্রতি ফাঁস হয়। এরপর থেকেই তীব্র চাপে রয়েছেন তিনি।
বেগতিক অবস্থা সামাল দিতে গত মাসে শাসক দল ফিডেসজ থেকে পদত্যাগ করেন তিনি। তিনি ক্ষমাও চেয়েছিলেন। কিন্তু শেষ রক্ষা হয়নি। এখন মেয়র পদ থেকেও পদত্যাগে বাধ্য হয়েছেন বরকাই।
ফিডেসজ দলের নেতৃত্বে রয়েছেন দেশের প্রধানমন্ত্রী ভিক্টর অরবান। বহুল আলোচিত এই ইউরোপিয়ান নেতা নিজেকে খ্রিস্টান ও পারিবারিক মূল্যবোধের চ্যাম্পিয়ন হিসেবে প্রদর্শন করে আসছেন। ফলে তার দলেরই গুরুত্বপূর্ণ এক মেয়রের এমন ভিডিও প্রকাশের পর তীব্র চাপে রয়েছে শাসক দল।
পদত্যাগী মেয়র বরকাই এক বিবৃতিতে বলেছেন, তিনি চান না তার কাজের জন্য শহরের উন্নয়ন বাধাগ্রস্থ হোক। এর আগে দল থেকে পদত্যাগের সময় তিনি বলেছিলেন, আমাকে ঘিরে যেই বিতর্ক হচ্ছে তা নিয়ে আমার দল কোনো নৈতিকভাবে সমস্যায় পড়ুক, তা আমি চাই না।
তবে এটি এখনও স্পষ্ট নয় যে, কে ওই ভিডিও ধারণ করেছিলেন। বরকাই বলেছেন, আদ্রিয়াটিক শহরে ব্যক্তিগত ভ্রমণের সময় ওই ভিডিও ধারণ করা হয়েছিল। বরকাই হাঙ্গেরির অলিম্পিক কমিটিরও প্রধান ছিলেন। তিনি বলেছেন, ওই ভ্রমণের অর্থ নিজের পকেট থেকে খরচ করেছিলেন তিনি। ওই ভিডিও ফাঁস হয় ১৩ই অক্টোবর দেশজুড়ে পৌরসভা নির্বাচনের আগে আগে। বিশ্লেষকরা বলেছেন, শাসক দলের অপ্রত্যাশিত নেতিবাচক ফলাফলের অন্যতম কারণ এই ভিডিও ফাঁস হওয়া। গত এক দশকে এই প্রথম নির্বাচনে সমর্থন খুইয়েছে ফিডেসজ। গত মাসে আরেক গুরুত্বপূর্ণ নগরী বুদাপেস্টে শাসক দলের মেয়র পরাজিত হন বিরোধী জোটের প্রার্থীর কাছে। এছাড়া বড় বড় শহরেও সমর্থন হারিয়েছে শাসক দল। তবে এখনও প্রত্যন্ত অঞ্চলে সমর্থন জোরালো রয়েছে অরবানের।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর