× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার মন ভালো করা খবরসাউথ এশিয়ান গেমস- ২০১৯
ঢাকা, ৬ ডিসেম্বর ২০১৯, শুক্রবার

কলকাতা চলচ্চিত্র উৎসবে সেরা বিদেশি ছবি গুয়াতেমালার

বিনোদন

কলকাতা প্রতিনিধি | ১৫ নভেম্বর ২০১৯, শুক্রবার, ১০:০২

 ২৫তম কলকাতা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উসবের সমাপ্তি অনুষ্ঠানে শুক্রবার সেরা বিদেশি ছবির জন্য গোল্ডেন রয়েল বেঙ্গল টাইগার ট্রফি ও সেরা ভারতীয় ছবির জন্য হীরালাল সেন ট্রফি বিজয়ীদের হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে। সেরা বিদেশি ছবির জন্য গোল্ডেন রয়েল বেঙ্গল টাইগার ট্রফি পেয়েছে জায়রো বুস্তামানতে পরিচালিত গুয়াতেমালার ‘দ্য উইপিং উওমেন’। আর সেরা পরিচালকের পুরস্কার পেয়েছেন চেকোস্লোভাকিয়ার ‘দ্য পেইন্টেড বার্ড’ ছবির পরিচালক ভেকলাভ মারউল। ভারতীয় ছবি বিভাগে সেরা ছবির জন্য হীরালাল সেন ট্রফি পেয়েছে অনন্ত মহাদেবন পরিচালিত ‘ক্রাইম নম্বর ১০৩-২০০৫’। আর সেরা পরিচালকের পুরস্কার পেয়েছেন ‘পারসেল’ ছবির পরিচালক ইন্দ্রশীষ আচার্য্য।
এশিয়া বিভাগে সেরা ছবির জন্য নেটপ্যাক পুরস্কার পেয়েছে আদিত্য কৃপালনী পরিচালিত ‘দেবী আউর হিরো’ ছবিটি। সেরা স্বল্পদৈর্ঘ্যরে ছবি বিভাগে রয়েল বেঙ্গল টাইগার ট্রফি পেয়েছে শ্রাবণ কাটিকানেনি পরিচালিত ‘সামার রেপসোডি’। সেরা ভারতীয তথ্যচিত্র বিভাগে পুরস্কৃত হয়েছে গৌরব পুরী পরিচালিত ‘এব্রিজড’।
এছাড়া বিদেশি ছবির জন্য বিশেষ জুরি পুরস্কার পেয়েছে ডিটা জেকুইরাজ পরিচালিত কসোভোর ‘আগাস হাউস’। ভারতীয় ছবির মধ্যে বিশেষ জুরি পুরস্কার পেয়েছে গীতা জে পরিচালিত ‘রান কল্যানী’। এদিনের অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন অভিনেত্রী শাবানা আজমি। এছাড়াও ছিলেন বাংলা চলচ্চিত্রের বিশিষ্ট পরিচালক ও অভিনেতা-অভিনেত্রীরা।
কলকাতা চলচ্চিত্র উৎসবে বিশ্বের সর্বোচ্চ মূল্যের পুরস্কার দেওয়া হয়। সেরা বিদেশি ছবির জন্য দেওয়া হয়েছে ৫১ লাখ রুপি আর শ্রেষ্ঠ পরিচালক পেয়েছেন ২১ লাখ রুপি। সঙ্গে দেওয়া হয়েছে ‘গোল্ডেন রয়েল বেঙ্গল টাইগার ট্রফি’। সেরা ভারতীয় ছবিকে দেওয়া হয়েছে হীরালাল সেন স্মৃতি পুরস্কার। শ্রেষ্ঠ  নির্দেশক পেয়েছেন ৭ লাখ রুপি ও শ্রেষ্ঠ ছবিকে দেওয়া হয়েছে ৫ লাখ রুপি। এ ছাড়া শ্রেষ্ঠ স্বল্পদৈর্ঘ্য ছবিকে ৫ লাখ রুপি এবং শ্রেষ্ঠ তথ্যচিত্রকে দেওয়া হয়েছে ৩ লাখ রুপির নগদ পুরস্কার। এশিয়ার শ্রেষ্ঠ ছবির জন্য নেটপ্যাক পুরস্কার, স্মারক ও অর্থও দেওয়া হয়েছে।
এদিকে  ২৫তম কলকাতা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবে বাংলাদেশের দুটি ছবি দেখানো হয়েছে। নাসির উদ্দীন ইউসুফের ‘আলফা’ এবং এন রাশেদ চৌধুরীর ‘চন্দ্রবতী কথা’ উৎসবে দুদিন করে প্রদর্শিত হয়েছে। ‘চন্দ্রাবতী কথা’ নেটপ্যাক পুরস্কারের জন্য প্রতিযোগিতা মূলক বিভাগে প্রদর্শিত হয়েছে। আর ‘আলফা’ অপ্রতিযোগিতামূলক বিদেশি ছবি বিভাগে প্রদর্শিত হয়েছে।  কলকাত্রা দর্শকরা দুটি ছবিরই প্রশংসা করেছেন। গত ৯ই নভেম্বর ‘চন্দ্রাবতী কথা’ প্রথম বিদেশের মাটিতে প্রদর্শিত হয় বলে পরিচালক জানিয়েছেন।  এই ছবি দেখতে উপস্থিত ছিলেন বলিউডের বিশিষ্ট পরিচালক কুমার সাহানি।
ছবির প্রদর্শন শেষে তিনি পরিচালক রাশেদ চৌধুরীকে জড়িয়ে ধরে  বলেছেন, আমার গুরু ঋত্বিক ঘটককে আপনার ছবির মাঝে দেখতে পেয়েছি। আশা করছি আপনি বড় পরিচালক হবেন, ভালো ভালো ছবি তৈরি করুন। বাংলাদেশের মুখ উজ্জ্বল করুন। অন্যদিকে গত ১২ই নভেম্বর কলকাতা চলচ্চিত্র উৎসবে বাংলাদেশের পরিচালক নাসির উদ্দীন ইউসুফকে সংবর্ধনা দেওয়া হয়েছে। একই সঙ্গে সংবর্ধনা দেওয়া হয়েছে সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়, রুদ্রপ্রসাদ সেনগুপ্ত, মনোজ মিত্র, অরুণ মুখোপাধ্যায়, অশোক মুখার্জি ও স্বাতীলেখা সেনগুপ্তকে। সংবর্ধনা পাওয়া বিশিষ্ট ব্যক্তিত্বদের হাতে উপহার তুলে দিয়েছিলেন পরিচালক গৌতম ঘোষ এবং রাজ্যের তথ্য ও সংস্কৃতিসচিব বিবেক কুমার।
সংবর্ধনায় আপ্লুত নাসির উদ্দীন ইউসুফ বলেছেন, এই উৎসবে আমি আসি। আমার ভালো লাগে। কলকাতা আমার ভালোবাসা এবং ভালো লাগার জায়গা। এ বছর আমার ছবি ‘আলফা’ দুই দিন প্রদর্শিত হয়েছে। এর আগে আমার ‘গেরিলা’ ছবিটি এই উৎসবে যোগ দিয়ে পুরস্কৃত হয়েছিল। আমি মনে করি, আমাদের দুই বাংলার চলচ্চিত্রশিল্পকে এই উৎসব আরো এগিয়ে নেবে। চলচ্চিত্রই পারে দুই দেশের সামাজিক ও সাংস্কৃতিক বন্ধনকে দৃঢ় করতে। দুই বাংলার মৈত্রীর বন্ধনকে শক্তিশালী করতে।
গত ৮ই নভেম্বর প্রদীপ জ্বালিয়ে ২৫তম কলকাতা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব উদ্বোধন করেছিলেন শাহরুখ খান। এ সময় তার পাশে ছিলেন রাখী গুলজার, মহেশ ভাট, সৌরভ গাঙ্গুলী এবং পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এ বছর উৎসবে ৭৬টি দেশের ২১৪টি পূর্ণদৈর্ঘ্য ছবি, ১৫২টি স্বল্পদৈর্ঘ্য ছবি ও তথ্যচিত্র দেখানো হয়েছে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর