× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার মন ভালো করা খবরসাউথ এশিয়ান গেমস- ২০১৯
ঢাকা, ১২ ডিসেম্বর ২০১৯, বৃহস্পতিবার

সাভারে ইস্টার্ন ইউনিভার্সিটিতে সমাবর্তন অনুষ্ঠিত

দেশ বিদেশ

স্টাফ রিপোর্টার, সাভার থেকে | ১৭ নভেম্বর ২০১৯, রবিবার, ৮:৪৮

সাভারের বিরুলিয়ায় ইস্টার্ন ইউনিভার্সিটির ষষ্ঠ সমাবর্তন অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের নিজস্ব ক্যাম্পাসে আয়োজিত সমাবর্তন অনুষ্ঠানে চারটি অনুষদ থেকে সর্বোচ্চ সিজিপিএপ্রাপ্ত ৯ শিক্ষার্থীকে স্বর্ণপদক প্রদান করা হয়। এদের মধ্যে চ্যান্সেলর গোল্ড মেডেল পান দুজন নওশীন রহমান ও শ্রাবণী। রাষ্ট্রপতি ও চ্যান্সেলরের প্রতিনিধি হিসেবে অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন শিক্ষা উপমন্ত্রী মহীবুল হাসান চৌধুরী নওফেল, এমপি। এসময় সমাবর্তন বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন যুক্তরাষ্ট্রের বাংলাদেশ দূতাবাসের চার্জ দ্য অ্যাফেয়ার্স মিজ জোয়েন ওয়্যাগনার। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. কাজী শহীদুল্লাহ। সমাবর্তন অনুষ্ঠানে সনদ ও গোল্ড মেডেলপ্রাপ্ত শিক্ষার্থীদের অভিনন্দন জানিয়ে শিক্ষা উপমন্ত্রী মহীবুল হাসান চৌধুরী বলেন, উচ্চ শিক্ষার প্রয়াসে সরকার ও প্রধানমন্ত্রীর আন্তরিকতা রয়েছে। তোমাদের এই অর্জনের সুফল দেশ ও জাতির উন্নয়নে কাজে লাগাতে হবে।
পরে তিনি সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে বলেন, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্দোলনকারী শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা উপাচার্যের বিরুদ্ধে কিছু অভিযোগ শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে জমা দিয়েছে। সেই সঙ্গে উপাচার্যের পক্ষ থেকেও আন্দোলনকারীদের বিপক্ষে মন্ত্রণালয়ে অভিযোগপত্র দিয়েছে উপাচার্যের পক্ষে শিক্ষকরা। যেহেতু দুই পক্ষের অভিযোগ জমা পড়েছে। তাই সরকার বস্তুনিষ্ঠ ও নিরপেক্ষ তদন্ত করবে। এসময় শিক্ষা উপমন্ত্রী আরো বলেন, জাবিতে গুটিকয়েক শিক্ষক-শিক্ষার্থী আন্দোলন করছে। উপাচার্যের বিরুদ্ধে শিক্ষার পরিবেশ ও ছাত্রছাত্রীদের জীবন নষ্ট করে তারা ঢাকঢোল ও কাঁসা পিটিয়ে আন্দোলন করছে। আন্দোলন করা সবার গণতান্ত্রিক অধিকার জানিয়ে তিনি আরো বলেন, আন্দোলনকারীরা নিজেরা নিজেদের ব্যক্তি জীবনে কীভাবে বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিচালনার সঙ্গে সম্পৃক্ত আছেন এবং কে কে কোন প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশুনা করাচ্ছেন সেগুলোও আমরা জানি। সাধারণ ছাত্রছাত্রীরা যদি সেগুলো নিয়ে মাঠে নামে তখন তো পরিস্থিতি আরো ঘোলাটে হবে এবং সরকারের কাছে তথ্য আছে পরিকল্পিত ভাবে বিশ্ববিদ্যালয়ে অচলাবস্থা সৃষ্টি করা হচ্ছে।
বন্ধ থাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে তালা ভেঙে হলে ঢোকা এগুলো অন্যায় করা হচ্ছে। শিক্ষকরা বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার পরিবেশ সৃষ্টি করবে বলেও মন্তব্য করেন তিনি। অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ইস্টার্ন ইউনিভার্সিটির বোর্ড অব ট্রাস্টিজের চেয়ারম্যান লিয়াকত হোসেন মোগল, ইউনিভার্সিটির উপাচার্য অধ্যাপক ড. সহিদ আকতার হুসাইন, কলা অনুষদের ডিন অধ্যাপক তাহমিনা আহমেদ প্রমুখ। উল্লেখ্য, উচ্চ শিক্ষায় গুণগত মান ও নেতৃত্ব সৃষ্টির লক্ষ্যে ২০০৩ সালে প্রতিষ্ঠিত ইস্টার্ন ইউনিভার্সিটিতে বর্তমানে প্রায় সাড়ে তিন হাজার শিক্ষার্থী অধ্যয়ন করছে। চারটি অনুষদ এবং সেসব অনুষদের অধীনে ৯টি প্রোগ্রাম আছে। মানসম্পন্ন শিক্ষা এবং অন্যান্য প্রাতিষ্ঠানিক পরিবেশের কারণে অল্প সময়ের মধ্যে ইস্টার্ন ইউনিভার্সিটির সুনাম ছড়িয়ে পড়েছে চারদিকে। এখান থেকে এরই মধ্যে প্রায় ১০ হাজার শিক্ষার্থী কৃতিত্বের সঙ্গে উচ্চশিক্ষা সম্পন্ন করেছেন। পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের নামিদামি বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে এই বিশ্ববিদ্যালয়ের এক্সচেঞ্জ প্রোগ্রাম ও ক্রেডিট ট্রান্সফারের ব্যবস্থা আছে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর