× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার মন ভালো করা খবরসাউথ এশিয়ান গেমস- ২০১৯
ঢাকা, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৯, শুক্রবার

শেরপুরে ক্ষতিগ্রস্ত গ্রাহকদের সংবাদ সম্মেলন

বাংলারজমিন

শেরপুর প্রতিনিধি | ১৮ নভেম্বর ২০১৯, সোমবার, ৮:৫২

শেরপুরে সাবেক ফারমার্স ব্যাংক লিমিটেড (বর্তমানে পদ্মা ব্যাংক লিমিটেড)’র পরিচালনা পর্ষদ ও কর্মকর্তাদের অনিয়ম-দুর্নীতি, স্বেচ্ছাচারিতা ও গ্রাহক হয়রানির প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। শনিবার রাতে শেরপুর প্রেস ক্লাবে সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করেন শেরপুরের ক্ষতিগ্রস্ত ঋণ গ্রাহকরা।
সংবাদ সম্মেলনে ক্ষতিগ্রস্ত ঋণ গ্রাহকদের পক্ষে আশরাফুল আলম সেলিম ও আব্দুল মোতালেব স্বাক্ষরিত লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন ব্যবসায়ী সাইম আহম্মেদ খান। লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, শেরপুরে পদ্মা ব্যাংক লিমিটেড (সাবেক ফারমার্স ব্যাংক লিমিটেড)’র প্রতিষ্ঠার পর পরিচালনা পর্ষদের একজন নির্বাহী কর্মকর্তাসহ স্থানীয় ব্যাংক কর্মকর্তা-কর্মচারীগণ অত্যন্ত চাতুরতার সঙ্গে ব্যবসা-বাণিজ্যের ক্ষেত্রে বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধার প্রলোভন দেখিয়ে শেরপুরে প্রায় ৫শ’ সু-প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ীকে তাদের গ্রাহক হিসেবে করায়ত্ত করে। এরপর মোটা অঙ্কের ঋণ প্রদানের কথা বলে শুরু করে গ্রাহক হয়রানি। চাহিদা মতো ঋণ আবেদনের পরই চাহিদাকৃত টাকার বিপরীতে নগদ ১০% হারে উৎকোচ গ্রহণসহ আরো একাধিক খাতে গ্রহণ করা হয় মোটা অঙ্কের টাকা। সব মিলিয়ে মঞ্জুরিকৃত ঋণের প্রায় ২৫% টাকা উৎকোচ হিসাবে ব্যাংক কর্তৃপক্ষের পকেটস্থ হয়েছে। অন্যদিকে ঋণ প্রদানকালে ঋণগ্রহীতা জায়গা-সম্পত্তি ব্যাংকের অনুকূলে মর্টগেজ দেয়ার পরও সিকিউরিটি মানি হিসাবে প্রদেয় ঋণের সমপরিমাণ অঙ্কের এবং কোনো কোনো ক্ষেত্রে স্বাক্ষরিত সাদা চেক রাখা হয়েছে গ্রাহকদের কাছ থেকে। সংবাদ সম্মেলনে ক্ষতিগ্রস্ত ব্যাংকের ঋণ গ্রাহক সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান ইলিয়াস উদ্দিন, ব্যবসায়ী আব্দুল মোতালেব, ফরহাদ আলী, আব্দুর রউফসহ প্রায় অর্ধশতাধিক ক্ষতিগ্রস্ত ব্যবসায়ী ও স্থানীয় গণমাধ্যমকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর