× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার মন ভালো করা খবরসাউথ এশিয়ান গেমস- ২০১৯
ঢাকা, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৯, শুক্রবার

মৌলভীবাজারে অপহরণকারীদের কবল থেকে তরুণী উদ্ধার

বাংলারজমিন

স্টাফ রিপোর্টার, মৌলভীবাজার থেকে | ১৮ নভেম্বর ২০১৯, সোমবার, ৯:২৯

মৌলভীবাজারে অপহরণকারী চক্রের কবল থেকে ১৯ বছর বয়সী এক তরুণীকে উদ্ধার করেছে পুলিশ। জানা যায়, ওই তরুণী তার অসুস্থ বাবাকে মৌলভীবাজার সদর হাসপাতালে দেখভাল শেষে বাড়ি ফেরার পথে চক্রের খপ্পরে পড়ে। শনিবার রাত ১১টার দিকে তরুণীর মামা জহিরুল ইসলাম তাকে ভৈরব বাজারে পাঠানোর জন্য সদর হাসপাতালের পুরাতন গেটের সামনে গাড়ির জন্য অপেক্ষা করতে থাকেন। ওই সময় একটি প্রাইভেটকারে অপহরণকারী দল কৌশলে তাদের সামনে এসে লোকাল প্যাসেঞ্জার নিয়ে শ্রীমঙ্গল যাওয়ার কথা বলে। তখন ওই তরুণীর মামা তাকে গাড়িতে তুলে দিয়ে ভৈরব বাজার নামিয়ে দেয়ার জন্য প্রাইভেটকারের চালককে বলেন। চালক সম্মত হয়। পরে গাড়ি চালক মৌলভীবাজার শহর পার হয়ে শ্রীমঙ্গল রোডে না গিয়ে মধ্যপথে প্রেমনগর চা-বাগান রোডে প্রবেশ করে। এ সময় ওই তরুণী তাকে নামিয়ে দেয়ার জন্য বলে এবং চিৎকার দেয়।
তখন ওই অপহরণকারী চক্র গাড়ি বাগানের ভেতর দিয়ে আগাতে থাকে। একপর্যায়ে ওই তরুণী মোবাইল ফোনে বিষয়টি তার মামা জহিরুল ইসলামকে জানায়। তখন অপহরণকারীরা তার মোবাইল ফোন কেড়ে নেয় এবং তাদের সহযোগী অন্যদেরও ফোন দেয়। এ সময় অপহরণকারী চক্রের ৪ সদস্য তরুণীকে চা বাগানের একটি নির্জনস্থানে নিয়ে যায়। এবং প্রাইভেটকারের ভেতরে জোরপূর্বক ধর্ষণের চেষ্টা চালায়।

ওই তরুণীর মামার মাধ্যমে সংবাদ পেয়ে পুলিশ সুপার মো. ফারুক আহমদের নির্দেশে তাৎক্ষণিক অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) রাশেদুল ইসলামের নেতৃত্বে মৌলভীবাজার মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ আলমগীর হোসেন ও এসআই নাফিজ সাদিকসহ মৌলভীবাজার মডেল থানার অন্য সদস্যরা প্রেমনগর চা-বাগানে পৌঁছান। বাগানের গেটম্যানের তথ্যের ভিত্তিতে তারা ভোর রাতেই চা-বাগানের নির্জন স্থান হতে ওই তরুণীকে অক্ষত অবস্থায় উদ্ধার করতে সক্ষম হন। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে ওই সময় অপহরণকারী চক্রের ৪ সদস্য বাগানের ভেতর দিয়ে দৌড়ে পালিয়ে যায়। তবে পুলিশ তাদের ব্যবহৃত প্রাইভেটকার (রেজি নং-ঢাকা মেট্টো-গ-১৪-২৫৪৭) আটক করে। মৌলভীবাজার মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আলমগীর হোসেন জানান, ওই ঘটনায় অজ্ঞাতনামা ৪ জনের বিরুদ্ধে মৌলভীবাজার মডেল থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। মামলা নং-১৪,তাং-১৭.১১.১৯ ধারা-নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন ২০০০ (সংশোধনী/২০০৩) এর ৭/৯(৪)(খ)/৩০ ধারায় মামলা রুজু হয়। রোববার বিকাল পর্যন্ত একজন আসামি শনাক্ত করা হয়েছে। অন্যদেরও নাম ঠিকানা উদ্ধারের চেষ্টা চলছে এবং ওই আসামিদের গ্রেপ্তারে পুলিশি অভিযান অব্যাহত আছে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর