× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার মন ভালো করা খবরসাউথ এশিয়ান গেমস- ২০১৯
ঢাকা, ৯ ডিসেম্বর ২০১৯, সোমবার

পতাকা থাকবে শিলার হাতে

খেলা

স্পোর্টস রিপোর্টার | ১৯ নভেম্বর ২০১৯, মঙ্গলবার, ৮:৪৩

বাংলাদেশ সাঁতার ফেডারেশন থেকে নানা সময়ে বঞ্চনার শিকার হয়েছেন মাহফুজা খাতুন শিলা। গত এসএ গেমসে জোড়া স্বর্ণজয়ী এই সাঁতারু ফেডারেশনের ওপর বিরক্ত হয়েই সাঁতার থেকে আস্তে আস্তে নিজেকে গুটিয়ে নিয়েছেন। পারিবারিক কারণ দেখিয়ে এবারের এসএ গেমসেও অংশ নিচ্ছেন না তিনি। সাঁতার ফেডারেশন তার কদর না বুঝলেও বাংলাদেশ অলিম্পিক এসোসিয়েশন (বিওএ) ঠিকই তাকে প্রাপ্য সম্মানটুকু দিতে যাচ্ছে। ক্রীড়াবিদের হাতে পতাকা দিয়ে পর্যবেক্ষক শিলার হাতেই নেপালে আসন্ন এসএ গেমসের গর্বের পতাকা তুলে দিচ্ছে সংস্থাটি।
আগামী ১লা ডিসেম্বর নেপালে শুরু হবে সাউথ এশিয়ান গেমস (এসএ)-এর ১৩তম আসর। ২৫ ডিসিপ্লিনে বাংলাদেশের প্রায় ৬শত ক্রীড়াবিদ অংশ নিবেন এই আসরে। শীলা না থাকলেও বাংলাদেশের কন্টিনজেন্টে আছেন গত এসএ গেমসে স্বর্ণ জয়ী ভারোত্তোলক মাবিয়া আক্তার সীমান্ত, শুটার শাকিল আহম্মেদ।
সরাসরি অলিম্পিকে খেলার যোগ্যতা অর্জনকারী আর্চার রোমান সানার হাতেও পতাকা দেয়ার কথা শোনা যাচ্ছিল। শেষ পর্যন্ত এদের কাউকেই বিবেচনায় আনেনি বিওএ। শিলার হাতে পতাকা তুলে দেয়ার কারণ জানিয়ে এসএ গেমসের সেফ দ্যা মিশন ও বিওএ উপ-মহাসচিব আসাদুজ্জামান কহিনুর বলেন, শিলা এখনও দক্ষিণ এশিয়ার সেরা সাঁতারু। গত গেমসে ও আমাদের যে অর্জন এনে দিয়েছে তার সম্মান জানাতেই তার হাতে গর্বের পতাকা তুলে দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। এর আগে ক্রীড়াবিদদের হাতেই থাকতো লাল সবুজের পতাকা। এবারই প্রথম খেলোয়াড় নয় একজন পর্যবেক্ষক এই দায়িত্ব পালন করবেন বলে জানান বিওএ’র এই কর্মকর্তা। এর অনুভুতি জানাতে গিয়ে শিলা বলেন, এ এক ভিন্ন রকম অনুভূতি। আগে বিভিন্ন আন্তর্জাতিক আসরের মার্চ পাস্টে সাধারণ অ্যাথলেট হিসেবে অংশ নিয়েছি। সব সময় স্বপ্ন দেখেছি মার্চ পাস্টে দেশের পতাকা বহন করার। সে স্বপ্ন এবার পূর্ণ হতে যাচ্ছে। আমি পুরো দেশের নেতৃত্ব দিয়ে সামনে থেকে পতাকা বহন করবো। এটি নিঃসন্দেহে গৌরব ও আনন্দের। এর ওজন অনেক বেশি আমার কাছে। পুরো দেশের মানুষ এই পতাকার দাবিদার। সবার সম্মান জড়িত থাকে এই পতাকায়।’ অলিম্পিকের কাছে কৃতজ্ঞতা জানিয়ে শিলা বলেন, আমি আমার ঘরের কাছে যে সম্মানটুকু পাইনি অলিম্পিক তার চেয়ে অনেক বেশি করেছে আমার জন্য। এই অর্জনের মাধ্যমে আমার জীবনে পূর্ণতা এসেছে।
এর আগে গৌহাটি ও শিলং এসএ গেমসের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে লাল-সবুজের পতাকা বহন করেন ভারোত্তোলক হামিদুল ইসলাম ও উশু খেলোয়াড় ইতি ইসলাম।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর