× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার মন ভালো করা খবরসাউথ এশিয়ান গেমস- ২০১৯
ঢাকা, ৬ ডিসেম্বর ২০১৯, শুক্রবার

গোলাপি এখন কলকাতার ইডেনে

খেলা

ইশতিয়াক পারভেজ,কলকাতা থেকে | ২১ নভেম্বর ২০১৯, বৃহস্পতিবার, ৮:৪২

‘গোলাপি এখন ট্রেনে’। ১৯৭৮ সালে আমজাদ হোসেন পরিচালিত বাংলা চলচ্চিত্রের আলোচিত একটি সিনেমা। পরবর্তীতে ‘গোলাপি এখন ঢাকায়’ নামে একটি সিক্যুয়েল বানানো হয়। তবে আমজাদ হোসেন বেঁচে থাকলে হয়তো নতুনভাবে লিখতেন- ‘গোলাপি এখন ইডেনে’। এমন না ভেবে উপায় কি? সন্ধ্যা নামতে না নামতেই ইডেন গার্ডেন স্টেডিয়াম ঢেকে যাচ্ছে গোলাপি আলোয়। শুধু স্টেডিয়াম কেন! গঙ্গার পাড়, কালিঘাট, শহীদ মিনার সবই দখল করে নিচ্ছে গোলাপি আলো। পিংক বল টেস্টকে ঐতিহাসিক মেনেই এই আয়োজন বলে জানালেন ক্রিকেট এসোসিয়েশন অব বেঙ্গলের (সিএবি) সেক্রেটারি অভিষেক ডালমিয়া। আগামীকাল এখানে দিন-রাতের টেস্টে ভারতের বিপক্ষে লড়বে বাংলাদেশ।
দৈনিক মানবজমিনকে দেয়া একান্ত সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, ‘আমাদের জন্য ঐতিহাসিক এক উপলক্ষ। এই টেস্টকে স্মরণীয় করে রাখতে যা যা সম্ভব সবই করে যাচ্ছি। টেস্ট শুরু হওয়ার আগে ও পরে, লাঞ্চ কিংবা চা বিরতিতে নানা কর্মসূচি রাখা হয়েছে। একটার পর একটা হতে থাকবে। যেহেতু গোলাপি বলে খেলা হবে, পুরো শহর, পুরো ইডেন গার্ডেনে গোলাপি আবহ ফুটিয়ে তোলা হয়েছে। চারদিক এখন আলোকিত হচ্ছে গোলাপি আলোয়।’
মঙ্গলবার রাতে ইডেন স্টেডিয়ামে প্রবেশ করেই চমকে যেতে হয়। প্রতিটি দেয়াল রাঙানো হচ্ছে নানা রঙের চিত্রকর্মে। এই টেস্টে উপস্থিত থাকবেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জিসহ দুই বাংলার অনেক ভিআইপি। এছাড়াও দর্শকদের মাতিয়ে রাখতে আয়োজন করা হবে সাংস্কৃতিক উৎসব। অভিষেক বলেন, ‘সংস্কৃতিই হচ্ছে বাংলার মূল। বিভিন্ন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান থাকছে। অতিথি আপ্যায়নে কোনো কমতি রাখা হচ্ছে না।’ অনুষ্ঠানে গান গাইবেন বাংলাদেশের রুনা লায়লা, ভারতের ঊষা উত্থুপসহ আরো অনেকে। নাচের অনুষ্ঠানে থাকবে দুই বাংলার নৃত্য শিল্পীরাও।

দুই দিন ধরেই কলকাতার নিরাপত্তাকর্মীদের ঘুম নেই। শেখ হাসিনাকে বরণ করে নিতে তাদের সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন। গতকাল সারাদিন এ নিয়ে সভা করেন বাংলাদেশের প্রতিনিধিদের সঙ্গেও। মাঝে গুজব ছড়িয়েছিল আসছেন না তিনি। কিন্তু অভিষেক তা উড়িয়ে দিয়েছেন। সেই সঙ্গে জানিয়েছেন হাসিনার জন্য সব আয়োজন নিয়ে অপেক্ষায় তারা। অভিষেক বলেন, ‘আজও  নিরাপত্তাবাহিনীর সঙ্গে আমরা বসেছিলাম। বাংলাদেশ হাইকমিশনের লোক ছিল। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর শীর্ষ কর্মকর্তারা ছিলেন। আমাদের জায়গা থেকে আমরা তৈরি। নিরাপত্তার দিক দিয়ে যা যা পদক্ষেপ নেয়ার দরকার সিএবি সবই নিয়েছে। কলকাতার পুলিশ ভীষণ সহযোগিতা করছে আমাদের। আমরা সব ধরনের আতিথেয়তা দিতে তৈরি।’

শেখ হাসিনার জন্য বিশেষ আয়োজন
বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী কলকাতায় এসে পৌঁছাবেন শুক্রবার। তার জন্য মূল্যবান এক স্মারক তৈরি করেছেন সিএবি। সিএবির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক দেবব্রত দাস বলেন, ‘এটা কেবল একটা খেলাই নয়, দুই বাংলার গোলাপি বন্ধন! উপহার হিসেবে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীকে গোলাপি শাল দেয়া হবে। এই টেস্ট উপলক্ষে তৈরি সোনার মুদ্রা দেয়া হবে। আর সবচেয়ে বড় আকর্ষণ রুপোর ওপর আমেরিকান হীরা দিয়ে তৈরি গোলাপি বলের আকারে একটা বিশেষ স্মারক। রুপোর লোগোর ওপর জারকন পাথরে তৈরি স্মারকটি হবে খুবই আকর্ষণীয়।’

বল আসবে আকাশ থেকে
ইডেনের উপরে উড়বে হিলিয়াম বেলুন। থাকবে বিশেষ দুটি মাসকট ‘পিংকু-টিংকু’। মজার বিষয় হলো টেস্ট শুরুর আগে বল আসবে আকাশ থেকে। ভারতীয় বিমান বাহিনীর আটজন প্যারাট্রুপার আটটি গোলাপি বল নিয়ে নামবে। তারা বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী ও পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রীকে হস্তান্তর করবেন গোলাপি বল। এছাড়াও বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী ও পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী দুই দলের অধিনায়ককে গোলাপি বল হস্তান্তর করবেন। টসের সোনার তৈরি বিশেষ কয়েন ম্যাচ রেফারির হাতে তুলে  দেবেন দুই বাংলার দুই প্রধানমন্ত্রী। আর শুরুতেই দুই দেশের জাতীয় সংগীত বাজাবে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী (বিএসএফ)। শেখ হাসিনা ও মমতা ব্যানার্জি বাজাবেন ইডেনের ঘণ্টা।

ভারতের সাবেক অধিনায়কদের আন্ত্রমণ
গোলাপি বলের দিন-রাতের টেস্টে উপস্থিত থাকতে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে ভারতের সাবেক সব অধিনায়ককে। তারা ল্যাপ অব অনার দেবেন, প্রদক্ষিণ করবেন পুরো মাঠ। এটা হবে চা বিরতিতে। এছড়াও অন্য খেলার ভারতীয় কিংবদন্তি যেমন বক্সিংয়ে মেরি কম, টেনিসের সানিয়া মির্জা, শুটিংয়ে অভিনব বিন্দ্রাদের আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে ২০০০ সালের নভেম্বরে অভিষেক টেস্ট খেলা বাংলাদেশ দলের সব খেলোয়াড়কে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর