× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ঢাকা সিটি নির্বাচন- ২০২০ষোলো আনা মন ভালো করা খবর
ঢাকা, ১৯ জানুয়ারি ২০২০, রবিবার

নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল উঠছে ভারতের কেন্দ্রীয় মন্ত্রিপরিষদে

বিশ্বজমিন

মানবজমিন ডেস্ক | ৪ ডিসেম্বর ২০১৯, বুধবার, ১১:১১

নাগরিকত্ব সংশোধন বিল (সিএবি) ভারতের কেন্দ্রীয় মন্ত্রিপরিষদে উঠতে পারে আজ বুধবার। বাংলাদেশ, পাকিস্তান ও আফগানিস্তান থেকে ভারতে যাওয়া অমুসলিমদের নাগরিকত্ব দেয়ার জন্য এই আইনটি সংশোধন করার প্রস্তাব করেছে সরকার। আজ স্থানীয় সময় সকাল সাড়ে নয়টায় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সভাপতিত্বে মন্ত্রিপরিষদের বৈঠক বসার কথা রয়েছে। সেখানেই এই বিলটি উত্থাপন করার কথা। বিলটি পার্লামেন্টে উত্থাপনের জন্য এই বৈঠক থেকে সম্মতি দেয়া হতে পারে। এর প্রেক্ষিতে আগামী কয়েক দিনে পার্লামেন্টে বিপুল সংখ্যায় উপস্থিত থাকতে নিজ দলের এমপিদের প্রতি নির্দেশনা দিয়েছে ক্ষমতাসীন বিজেপি। তাতে বলা হয়েছে, নাগরিকত্ব বিল আসছে। এ বিলটি খুব গুরুত্বপূর্ণ।
অন্যদিকে আসামে বিজেপির মিত্র অসম গণ পরিষদ বলেছে, সেখানে অবস্থানকারীদের ফেরত পাঠানো যাবে না। কারণ, তাদেরকে গ্রহণ করতে অস্বীকৃতি জানিয়েছে বাংলাদেশ। সূত্র উদ্ধৃত করে এ খবর দিয়েছে অনলাইন ডেকান হেরাল্ড, ইকোনমিক টাইমস ও ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস।

এতে বলা হয়, নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল হলো ক্ষমতাসীন বিজেপি সরকারের নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি। ১৯৫৫ সালের নাগরিকত্ব আইন সংশোধন করার মাধ্যমে বাংলাদেশ, পাকিস্তান ও আফগানিস্তানের নির্যাতিত সংখ্যালঘু, যারা ভারতে গিয়েছেন তাদের কাছে যদি যথাযথ ডকুমেন্ট না-ও থাকে, তবু তাদেরকে নাগরিকত্ব দেয়ার প্রতিশ্রুতি দেয় বিজেপি। এসব সংখ্যালঘুর মধ্যে রয়েছে হিন্দু, শিখ, বৌদ্ধ, জেন, পারসি ও খ্রিস্টান।

সূত্রের উদ্ধৃতি দিয়ে ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস বলেছে, বিজেপি এমপিদের সাপ্তাহিক মিটিংয়ে বক্তব্য দেয়ার সময় প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং ইঙ্গিত দিয়েছেন যে, আগামী সপ্তাহে পার্লামেন্টে আসতে পারে এই বিল। ১০ই ডিসেম্বরের আগেই তা পাস করাতে চায় সরকার। তবে তার আগে বিলটি আজ বুধবার কেন্দ্রীয় মন্ত্রীসভা থেকে ‘ক্লিয়ারেন্স’ পাওয়ার আশা করা হচ্ছে। এই বিলটির গুরুত্ব উল্লেখ করে রাজনাথ সিং এমপিদের পার্লামেন্টে উপস্থিতি নিশ্চিত করার আহ্বান জানান। রাজনাথ সিং এমপিদের বলেছেন, পার্লামেন্টে পর্যাপ্ত সংখ্যক উপস্থিতি না দেখে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও দলীয় নেতৃত্ব অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন। এ সময় এমপিদের সতর্ক করে দেন রাজনাথ। তিনি বলেন, উপস্থিত না হওয়ার বিষয়ে কোনো অজুহাত থাকা উচিত হবে না এমপিদের।

বিলটি নিয়ে সমালোচনাকে প্রত্যাখ্যান করেন রাজনাথ সিং। তিনি বলেন, বিজেপি সব সময়ই দেশকে ঐক্যবদ্ধ রাখার জন্য কাজ করছে। ভারত ধর্মনিরপেক্ষ- এই নীতির বিরুদ্ধে নাগরিকত্ব সংশোধন বিল, এমন অভিযোগ আছে। এর জবাবে রাজনাথ সিং বলেন, বাংলাদেশ, পাকিস্তান ও আফগানিস্তান হলো মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশ। আর যেসব মানুষ এ দেশগুলোতে ধর্ম ভিত্তিক নির্যাতনের মুখে রয়েছেন তাদেরকে নাগরিকত্ব দিতে চায় ভারত।

ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলে এই বিলের বিরোধিতা রয়েছে। এর প্রেক্ষিতে গত শনিবার ওই অঞ্চলের প্রতিনিধিদের সঙ্গে বৈঠক করেছেন বিজেপি প্রধান ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী অমিত শাহ। ওই বৈঠকে তিনি বিলে বর্তমানে যে বিষয়গুলো আছে তা পরিবর্তন করতে সম্মত হয়েছেন। তিনি নাগরিক সমাজ ও রাজনৈতিক প্রতিনিধিদের আশ্বস্ত করেছেন যে, উত্তর-পূর্বাঞ্চলের সব জাতি ও সংস্কৃতির সচেতনতার বিষয় নজরে রাখা হবে।

এর আগে পার্লামেন্টে বক্তব্য রাখতে গিয়ে মহাত্মা গান্ধীর খুনী নাথুরাম গডসের প্রশংসা করেন ভুপাল থেকে নির্বাচিত লোকসভার বিজেপি দলীয় এমপি প্রজ্ঞা সিং ঠাকুর। তার তিন দিন পরে বক্তব্য রাখতে গিয়ে রাজনাথ সিং পার্লামেন্টের ভিতরে এবং বাইরে ভাষা ব্যবহারে সতর্ক হতে আহ্বান জানিয়েছেন এমপিদের প্রতি।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর