× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ঢাকা সিটি নির্বাচন- ২০২০ষোলো আনা মন ভালো করা খবর
ঢাকা, ১৮ জানুয়ারি ২০২০, শনিবার

নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলের বিরোধী বাইচুং ভুটিয়া

বিশ্বজমিন

মানবজমিন ডেস্ক | ৫ ডিসেম্বর ২০১৯, বৃহস্পতিবার, ১১:০৫

নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলের বিরোধিতা করেছেন ভারতের সাবেক ফুটবল অধিনায়ক বাইচুং ভুটিয়া। তিনি কড়া বিরোধিতা প্রকাশ করে এ বিলকে দীর্ঘমেয়াদে অত্যন্ত বিপজ্জনক বলে আখ্যায়িত করেছেন। তার মতে, নাগরিকত্ব বিলে দীর্ঘমেয়াদে ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে সিকিম। একই সঙ্গে এই বিল সিকিমের মানুষের স্বার্থে নয়।  তাই বাইচুং ভুটিয়া বলেন, তিনি এবং তার দল হামরো সিকিম পার্টি এই বিলের পুরোপুরি বিরোধিতা করেন। বাইচুং ভুটিয়া বলেছেন, আমরা বাংলাদেশের খুবই কাছে। পশ্চিমবঙ্গে এবং উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় রাজ্যগুলোতে অসংখ্য ইস্যু আছে। তাই দীর্ঘ মেয়াদে সিকিমও আক্রান্ত হতে পারে। এ খবর প্রকাশ করেছে অনলাইন ইন্ডিয়া টুডে।


বাইচুং ভুটিয়ার বয়স এখন ৪৩ বছর। তার নিজের রাজ্য সিকিম। সেখানে হামরো সিকিম পার্টির প্রতিষ্ঠাতা তিনি। ওদিকে ভারতের কেন্দ্রীয় মন্ত্রীপরিষদ বুধবার অনুমোদন দিয়েছে নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল। এই বিলটি পাস হলে বাংলাদেশ, পাকিস্তান ও আফগানিস্তান থেকে যেসব ধর্মীয় অমুসলিম সংখ্যালঘু নির্যাতনের শিকার হয়ে ভারতে গিয়েছেন তাদেরকে নাগরিকত্ব দেয়া হবে। তবে সমালোচকরা বলছেন, নাগরিকত্বের সঙ্গে ধর্মকে যুক্ত করা যাবে না। এ বিলের কড়া বিরোধিতা করেছে পশ্চিমবঙ্গের তৃণমূল কংগ্রেস। তাদের অভিযোগ রাজনৈতিক সুবিধা পাওয়ার জন্য সস্তা ও সংকীর্ণতাকে বেছে নিয়েছে বিজেপি।

সিকিমে সিকিম ক্রান্তিকারি মোর্চা এবং বিজেপি ক্ষমতায়। এই সরকারের প্রতি আশা প্রকাশ করে বাইচুং ভুটিয়া বলেন, তিনি আশা করেন উত্তর-পূর্বাঞ্চলে বিজেপির অন্য মিত্রদের পথ অনুসরণ করবে সরকার এবং নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলের বিরোধিতা করবে। তিনি বলেন, তার হামরো সিকিম পার্টি সিকিম সরকারের ওপর চাপ প্রয়োগ করার জন্য প্রস্তুত। প্রয়োজন হলে তারা এ বিষয়ে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও প্রধানমন্ত্রীর অফিসে লিখিতভাবে জানাবেন। বাইচুং ভুটিয়া বলেন, এটা এমন একটি বিল যা কোনোক্রমেই গ্রহণ করা যায় না। তার ভাষায়, আমাদের সিকিমে ৩৭১(এফ) নামে একটি অনুচ্ছেদ আছে। আমাদের সংবিধান আছে। আমাদের আরও আছে সিকিম সাবজেস্ট অ্যাক্ট। তাই আমি মনে করি যেসব মানুষ নিবন্ধনের বাইরে রয়েছেন তাদেরকে যথাযথভাবে সনাক্ত করা উচিত। এনআরসি বা নাগরিকপঞ্জিকরণের পরিবর্তে এই কাজ সম্পন্ন করতে আরো ভাল উপায় আছে সিকিম সাবজেক্টে। এটা ব্যবহার করে আরো ভালোভাবে নাগরিকদের সনাক্ত করা যায়। সিকিমের এখনকার সমস্যা শুধু ‘বিদেশীরা’ নন। সমস্যা সিকিমের বাইরে থেকে আসা মানুষও।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর