× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ঢাকা সিটি নির্বাচন- ২০২০ষোলো আনা মন ভালো করা খবর
ঢাকা, ১৮ জানুয়ারি ২০২০, শনিবার

ভারতে পিয়াজের দামে রেকর্ড

বিশ্বজমিন

মানবজমিন ডেস্ক | ৫ ডিসেম্বর ২০১৯, বৃহস্পতিবার, ১২:২১

এবার ভারতে রেকর্ড দামে বিক্রি হচ্ছে পিয়াজ। পশ্চিমবঙ্গ ও হায়দরাবাদে প্রতি কেজি পিয়াজ বিক্রি হচ্ছে ১৫০ রুপিতে। তবে ভুবনেশ্বর, কোটা ও চন্ডিগড়ের মতো স্থানে প্রতি কেজি পিয়াজের দাম ১২০ রুপি। এ খবর দিয়ে অনলাইন জি নিউজ বলছে পশ্চিমবঙ্গের বর্ধমান, মুর্শিদাবাদ ও ঝাড়গ্রামে প্রতি কেজি পিয়াজ বিক্রি হচ্ছে ১৫০ রুপিতে। অন্যদিকে হুগলিতে প্রতি কেজি পিয়াজ বিক্রি হচ্ছে ১৪০ রুপিতে। মালদা, আলিপুরদুয়ার, দুর্গাপুর এবং নদীয়ায় এই দাম ১২০ রুপি প্রতি কেজি। তবে পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন বাজারে প্রতি কেজি পিয়াজের দাম ১৪০ রুপিতে উঠানামা করছে। গত কয়েক দিনে এই দাম ছিল ১০০ থেকে ১২০ রুপি।
আকাশচুম্বী দামের কারণে খুচরা বিক্রেতারা কিনছেন কম পরিমাণ পিয়াজ। বার্তা সংস্থা আইএএনএস’কে ভোলানাথ সাহা নামে একজন বিক্রেতা বলেছেন, আমি ১৪০ রুপিতে প্রতি কেজি পিয়াজ বিক্রি করছি। আকস্মিকভাবে সরবরাহ কমে গেছে। যদি সরবরাহ ব্যবস্থা উন্নত না হয় তাহলে দাম আরো বাড়বে।

তেলেঙ্গানা রাজ্যের হায়দরাবাদে প্রতি কেজি পিয়াজের দাম ১৫০ রুপি স্পর্শ করেছে। এমন দাম বৃদ্ধির ফলে শহরের ধনী শ্রেণির মানুষরাই শুধু পিয়াজ কিনতে পারছেন। গরিবদের পক্ষে পিয়াজ স্পর্শ করা সম্ভব হচ্ছে না। ওই বিক্রেতা বলেন, এক্ষেত্রে সমাজের প্রতিটি খাতের মানুষ যাতে পিয়াজ কিনতে পারেন সে জন্য পিয়াজে ভর্তুকি দেয়া উচিত সরকারের। দামের এই আকাশ ছোঁয়ার ফলে রাষ্ট্র পরিচালিত বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান এমএমটিসি তুরস্ক থেকে ৪০০০ টন পিয়াজ আমদানি করছে। এই চালানটি জানুয়ারিতে ভারতে পৌঁছার কথা রয়েছে।

ওড়িশার রাজধানী ভুবনেশ্বরে প্রতি কেজি পিয়াজ বিক্রি হচ্ছে ১২০ থেকে ১৩০ রুপিতে। এই রাজ্যের কাটাকে প্রতি কেজি পিয়াজের দাম ১৩০ রুপি। পুরিতে ১২০ রুপি এবং বহরমপুরে ১০০ রুপি। রাজস্থানের কোটায় প্রতি কেজি পিয়াজের দাম উঠেছে ১৩০ রুপি। আলওয়ার, বিকানার, ভারতপুর ও যোধপুরে প্রতি কেজি পিয়াজ বিক্রি হচ্ছে ১০০ রুপিতে। জয়সালমার এবং বারমার, সিরোহি ও সিকার এলাকায় প্রতি কেজি পিয়াজের দাম ৮০ থেকে ১০০ রুপি।

পাঞ্জাবের চন্ডিগড়ে প্রতি কেটি পিয়াজ ক্ষেত্রবিশেষে বিক্রি হচ্ছে ১০০ থেকে ১২০ রুপিতে। আফগানিস্তান থেকে আমদানি করা পিয়াজ বিক্রি হচ্ছে প্রতি কেজি ৯০ রুপি। অমৃতসরে আফগানিস্তানের পিয়াজের প্রতি কেজির দাম ৭০ রুপি। নাশিকের পিয়াজ ৮৫ রুপি। হিসারে বিক্রি হচ্ছে ৭০ থেকে ৭৫ রুপি। পিয়াজের দাম যখন প্রতি কেজি ১৫০ রুপি স্পর্শ করেছে তখন ভারতের বিভিন্ন এলাকায় পিয়াজ চুরির বেশ কিছু খবর পাওয়া গেছে। মধ্যপ্রদেশের মান্দসুর এলাকার একজন কৃষক অভিযোগ করেছেন, তার ৩০ হাজার রুপি মূল্যের পিয়াজ ক্ষেতের সব পিয়াজ তুলে নিয়েছে চোরেরা। এমন অবস্থায় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমন বুধবার বলেছেন, পরিস্থিতি মোকাবিলায় সরকার পদক্ষেপ নিয়েছে। উচ্চ মূল্যকে মোকাবিলা করতে পিয়াজ আমদানি করা হচ্ছে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
শহীদ
৫ ডিসেম্বর ২০১৯, বৃহস্পতিবার, ৬:৪৪

বাংলাদেশের চাহিদা বুঝতে পারছে চোরে রা। বাংলাদেশের ক্রয় ক্ষমতা ‍বৃদ্ধিওয়ালা মন্ত্রিগণ কম্বল গায়ে শুয়ে আছেন। টাকা দিয়ে মাল কিনব দোকানের অভাব পড়ছে?

অন্যান্য খবর