× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ঢাকা সিটি নির্বাচন- ২০২০ষোলো আনা মন ভালো করা খবর
ঢাকা, ১৯ জানুয়ারি ২০২০, রবিবার

‘দর্শকরা আবারো হলমুখী হচ্ছেন’

বিনোদন

কামরুজ্জামান মিলু | ৬ ডিসেম্বর ২০১৯, শুক্রবার, ৮:৫৯

চিত্রনায়ক ফেরদৌস। ২১ বছর আগে মুক্তি পেয়েছিল তার অভিনীত ‘হঠাৎ বৃষ্টি’ ছবিটি। ওই সময় চলচ্চিত্রপ্রেমী দর্শকরা ছবিটি দেখেন এবং ফেরদৌসের অভিনয় দেখে বেশ প্রশংসা করেন। ১৯৯৮ সালে বাসু চ্যাটার্জির পরিচালনায় এ সিনেমা মুক্তি পাওয়ার পর একই নির্মাতার আরো বেশকিছু সিনেমায় অভিনয় করেন ফেরদৌস। ঢালিউডে তখন ‘পৃথিবী আমারে চায় না’ ও সালমান শাহর ‘বুকের ভেতর আগুন’ ছবিতে তিনি অভিনয় করছিলেন। ওই সময়ই মূলত ভারতের নির্মাতা বাসু চ্যাটার্জির ফোন পান এই তারকা। এরপরের ঘটনা অনেকেরই জানা। ‘হঠাৎ বৃষ্টি’ সিনেমাটি মুক্তি পাওয়ার পর খবরের শিরোনামে প্রকাশ পায় নতুন তারকার নাম।
শুরুতে টেলিভিশনে প্রচার হয় এ সিনেমাটি। তারপর এটি মুক্তি পায় সিনেমা হলে। ফেরদৌস বলেন, বাসু চ্যাটার্জির পরিচালনায় ‘হঠাৎ বৃষ্টি’, ‘চুপি চুপি’, ‘টক ঝাল মিষ্টি’, ‘হঠাৎ সেদিন’ নামের চারটি সিনেমায় অভিনয় করেছি। আর উনার লেখা ‘এক কাপ চা’ সিনেমাটি প্রযোজনা করি আমি। আমার সঙ্গে তার যোগাযোগ আছে। তবে বর্তমানে উনার অনেক বয়স হয়েছে। এই অবস্থাতে তার সঙ্গে হয়তো আর কাজ হবে না। তবে উনার লেখা আরো একটি স্ক্রিপ্ট আমার কাছে আছে। নাম ‘বিয়ের ফাঁদে’। এই গল্পটি নিয়ে সামনে আমি ভাববো। এটি নিয়ে কাজ করার ইচ্ছে আছে আমার। এদিকে পশ্চিমবঙ্গের ‘হঠাৎ বৃষ্টি’সহ বেশকিছু সিনেমা মুক্তির পর ওপার বাংলাতেও ফেরদৌস সমান পরিচিতি পান। ঢালিউডে ‘আমার স্বপ্ন তুমি’, ‘চুড়িওয়ালা’, ‘ব্যাচেলর’, ‘কখনো মেঘ কখনো বৃষ্টি’, ‘খাইরুন সুন্দরী’, ‘জীবন চাবি’, ‘গেরিলা’, ‘রানীকুঠির বাকি ইতিহাস’, ‘প্রাণের স্বামী’, ‘প্রেমের জ্বালা’সহ বেশকিছু সিনেমায় অভিনয় করে ঢালিউডের দর্শকদের মন জয় করেন। সর্বশেষ তার অভিনীত ‘পবিত্র ভালোবাসা’ ও ‘মেঘকন্যা’ সিনেমা দুটি প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পায়। এদিকে তার অভিনীত এবং সাইফুল ইসলাম মাননু পরিচালিত ‘পুত্র’ ছবিটি বেশ কয়েকটি ক্যাটাগরিতে পুরস্কার পেতে যাচ্ছে এবার। শ্রেষ্ঠ অভিনেতা হিসেবে পুরস্কার নেয়ার পাশাপাশি আগামী ৮ই ডিসেম্বর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রের হল অব ফেমে অনুষ্ঠানটির উপস্থাপনা করবেন ফেরদৌস। তার সঙ্গে থাকবেন নায়িকা পূর্ণিমা। চতুর্থবারের মতো জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানের উপস্থাপনা করতে যাচ্ছেন বলে জানালেন ফেরদৌস। এ অভিনেতা সম্প্রতি নঈম ইমতিয়াজ নেয়ামূলের পরিচালনায় এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের ‘গাঙচিল’ উপন্যাস অবলম্বনে নির্মাণাধীন ‘গাঙচিল’ সিনেমার বেশকিছু অংশের কাজ সম্প্রতি নোয়াখালীতে করেন। এ সিনেমায় তার বিপরীতে পূর্ণিমা অভিনয় করছেন। নোয়াখালীর সুবর্ণচরের বাসিন্দাদের জীবনের নানা ঘটনা এই ছবির প্রধান উপজীব্য। সিনেমাটির কাজ নিয়ে ফেরদৌস বলেন, এ সিনেমায় আমার বিপরীতে পূর্ণিমার পাশাপাশি দর্শকরা ঋতুপর্ণাকেও দেখতে পাবেন। এরইমধ্যে বেশকিছু অংশের কাজ শেষ হয়েছে আমাদের। এ সিনেমায় আমাকে একজন সাংবাদিকের চরিত্রে দর্শকরা দেখতে পাবেন। আমরা আমাদের সর্বোচ্চ চেষ্টা দিয়ে কাজটি করছি। আশা করি, দর্শকরাও সিনেমাটি পছন্দ করবেন। একই নির্মাতার ‘জ্যাম’ সিনেমায়ও দর্শকরা ফেরদৌসকে দেখতে পাবেন। এ বিষয়ে তিনি বলেন, এরইমধ্যে ছবিটির বেশকিছু অংশের কাজ হয়েছে। আমি এ সিনেমায় বিশেষ একটি চরিত্রে অভিনয় করছি। শুধু এটুকু এখন বলতে চাই। এদিকে ফেরদৌস অভিনীত ‘সেভ লাইফ’, ‘কাঠগড়ায় শরৎচন্দ্র’ নামের ছবিগুলোর কাজও শেষ পর্যায়ে। সবশেষে চলচ্চিত্রের সার্বিক অবস্থা প্রসঙ্গে ফেরদৌস বলেন, বর্তমানে ভালো বাজেটের সিনেমা হচ্ছে। প্রযোজক সমিতিসহ অনান্য সংগঠন যে যার জায়গা থেকে বেশ ভালো দায়িত্ব পালন করার চেষ্টা করছেন। নতুন সিনেপ্লেক্স হলো মহাখালীতে। আমার তো মনে হয় দর্শকরা আবারো হলমুখী হচ্ছেন। সামনে এই সংখ্যাটা আরো বাড়বে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
kawsar
৬ ডিসেম্বর ২০১৯, শুক্রবার, ৫:১১

বাংলা ছবি কে দেখে রিকশা ডাইবার আর লেবার চারা

অন্যান্য খবর